পি কে হালদারের বান্ধবীকে গ্রেপ্তার করেছে দুদক

প্রকাশিতঃ 3:01 pm | January 13, 2021

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের পরিচালক প্রশান্ত কুমার হালদারকে (পি কে হালদার) তিন হাজার ৬০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করার অভিযোগে তাঁর বান্ধবী অবন্তিকা বড়ালকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের উপপরিচালক মো. সালাহউদ্দীনের নেতৃত্বে একটি দল বুধবার(১৩ জানুয়ারি) দুপুর ১টার দিকে অবন্তিকা বড়ালকে গ্রেপ্তার করে।

দুদকের পরিচালক প্রণব কুমার ভট্টাচার্য এনটিভি অনলাইনকে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পি কে হালদারের টাকা পাচার, জনগণের জামানত লুটপাটসহ নানা অনিয়মে অবন্তিকা বড়ালের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ তদন্তে উঠে এসেছে। কয়েকবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হলেও দুদকের ডাকে সাড়া দেননি তিনি। অবন্তিকাকে আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

এর আগে গত ৫ জানুয়ারি পি কে হালদারের মা লিলাবতী হালদার ও অবন্তিকা বড়ালসহ ২৫ জনের বিদেশ যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা দেন হাইকোর্ট। বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন।

বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, পি কে হালদার বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে থেকে লোপাট করেছেন অন্তত তিন হাজার ৬০০ কোটি টাকা। পি কে হালদার প্রথমে রিলায়েন্স ফাইন্যান্স এবং পরে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (এমডি) বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। এমন আরো কিছু প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, এফএএস ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড ও বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি) ইত্যাদি।

অভিযোগ রয়েছে, ওই সব প্রতিষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন এবং নতুন আরো কিছু কাগুজে প্রতিষ্ঠান তৈরির মাধ্যমে প্রায় তিন হাজার ৬০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ ও বিদেশে পাচার করেছেন পি কে হালদার। নিজেও পাড়ি জমিয়েছেন বিদেশে। দুদকের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ বাদী হয়ে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। তবে মামলা করার আগেই লাপাত্তা হন পি কে হালদার।

কালের আলো/এসজে/এমআরকে

Print Friendly, PDF & Email