হঠাৎ এত শীত কেন?

প্রকাশিতঃ 10:36 am | January 09, 2023

ড. আনোয়ার খসরু পারভেজ :

নতুন বছরের প্রথম থেকেই কনকনে ঠান্ডায় জেঁকে বসেছে শীত। বেলা বাড়লেও নেই সূর্যের দেখা। শীতে জবুথুবু দেশের বিভিন্ন জনপদ। ধীরে ধীরে নামছে তাপমাত্রার পারদ। হিম বাতাসে জবুথবু সারাদেশের জনজীবন। বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়কে ঘন কুয়াশার কারণে হেডলাইট জ্বালিয়ে ধীরগতিতে চলছে যানবাহন। প্রচণ্ড ঠান্ডায় ব্যাহত হচ্ছে দৈনন্দিন জীবনযাত্রা।

আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, ০৮ জানুয়ারি যশোরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করেছে। দেশের নওগাঁ, দিনাজপুর, চুয়াডাঙা, পঞ্চগড় ও যশোর অঞ্চলের ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

শুধু উত্তরাঞ্চল নয়, দেশের অন্যান্য জেলার মতো ঢাকাতেই তুলনামূলক শীত বেশি পড়ছে। আগামী পাঁচ দিনে আবারও তাপমাত্রা কমে যেতে পারে বলেও জানানো হয়েছে পূর্বাভাসে।

এই সময়ে রাত ও দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। তবে দিনের তাপমাত্রা খানিকটা বাড়তে পারে। এই রাত ও দিনের তাপমাত্রার পার্থক্যের কারণে দেশের উত্তর, উত্তর পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে মাঝারি থেকে তীব্র শীত অনুভূত হচ্ছে। মেঘলা আকাশসহ সারাদেশে আবহাওয়া এই সময়ে শুষ্ক থাকতে পারে।

ডিসেম্বরের মধ্যভাগে যখন পৌষ মাস এসে গেল, তখন ঢাকাবাসীর অভিযোগ, আক্ষেপ তীব্র শীত পড়ে না কেন! এখন যখন কয়দিন ধরে শীত পড়তে শুরু করেছে, আমরা অভিযোগ করতে শুরু করেছি, ঢাকায় হঠাৎ এত শীত কেন! ‘ঢাকায় তেমন শীত পড়ে না’ কথার তীব্র জবাব দিতেই বোধহয় হঠাৎ করে রাজধানী ঢাকায় কনকনে বাতাস নিয়ে জেঁকে বসল তীব্র শীত।

দু’দিন আগেও তাপমাত্রা ছিল সহনীয় পর্যায়ে। তাহলে হঠাৎ ঢাকায় এমন তীব্র শীত পড়ার কারণ কী? শীতের সঙ্গে এই বায়ুদূষণের দেশে শুরু হয়েছে কুয়াশা, ধুলা আর ধোঁয়ার সঙ্গে মিশে তা হয়ে উঠেছে ধোঁয়াশা। কোনো কিছুই আর দেখা যাচ্ছে না।

উড়োজাহাজ উড়তে পারছে না সময়মতো, ফেরিঘাটে আটকে আছে ফেরি, মহাসড়কে গাড়িগুলো চলছে পিঁপড়ার গতিতে, দশ হাত দূরে কী আছে দেখা যাচ্ছে না বলে।

কিন্তু কেন এই শীতের প্রকোপ? আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, জানুয়ারি হচ্ছে দেশের সবচেয়ে শীতলতম মাস। এই মাসে বেশি শীত পড়বে এটিই স্বাভাবিক। এই সময় উপমহাদেশে উচ্চ বলয় প্রবাহ ও ঊর্ধ্বাকাশে জেড উইং প্রবাহ নিচে নেমে আসে, যে কারণে শীতের প্রকোপ অন্যান্য সময়ের চেয়ে বেশি।

হঠাৎ শীত বাড়ার কারণ, এই সময়ে সাধারণত দিনের বেলায় যে তাপমাত্রা থাকে, তার চেয়ে ২ থেকে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস কম তাপমাত্রা থাকছে দুই দিন ধরে। দিনের তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় মূলত ঠান্ডা বেশি অনুভূত হচ্ছে।

সেই তুলনায় রাতের তাপমাত্রা তেমন একটা কমেনি। কিন্তু যেহেতু দিনের তাপমাত্রাসহ রাতের তাপমাত্রা কাছাকাছি হওয়ায় মানুষকে দীর্ঘসময় একই তাপমাত্রায় থাকতে হচ্ছে বিধায় শীত অনেক বেশি অনুভূত হচ্ছে। তবে যদি সকাল ৮/৯টা পর্যন্ত কুয়াশা থাকার পর সূর্য উঠতো তাহলে দিনের তাপমাত্রা বাড়ত। তখন কিন্তু মানুষের মধ্যে এই তীব্র শীত অনুভূত হতো না। যেহেতু দিনের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে না, তাই হঠাৎ করেই শীতটা প্রচণ্ডভাবে বেড়ে গেছে।

হঠাৎ করে তাপমাত্রা এতটা কমে যাওয়ার কারণ ভারতের দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ ও বিহার অঞ্চলে একটা কুয়াশা অঞ্চল ছিল। সেটি ধীরে ধীরে বেড়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। সাধারণত সেই কুয়াশা অঞ্চল দেশের মধ্যাঞ্চল পর্যন্ত এসে থাকে। কিন্তু এবার এই কুয়াশা অঞ্চল ৩ জানুয়ারি দেশের মধ্যাঞ্চল ছাড়িয়ে ঢাকা পর্যন্ত এসেছিল। ৪ জানুয়ারি সেই কুয়াশা অঞ্চল ঢাকা হয়ে বরিশাল ও চট্টগ্রাম পর্যন্ত ছাড়িয়ে গেছে।

ঘন কুয়াশার প্রবাহ দেশের বেশিরভাগ এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে। এজন্যই শৈত্যপ্রবাহ না থাকলেও ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে অনেক বেশি শীত অনুভূত হচ্ছে। সঙ্গে যোগ হয়েছে ঘন কুয়াশা। ঘন কুয়াশার পাশাপাশি হিমেল হাওয়ায় ঠান্ডা আরও তীব্রভাবে বেড়েছে।

উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে আসছে বাতাস, যেটিকে আমরা ‘উত্তরা বাতাস’ বলে থাকি। এই বাতাস কনকনে হিম বয়ে এনে হাড় কাঁপুনির সৃষ্টি করেছে। অর্থাৎ শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে। এটিও শীতের তীব্রতা বাড়ার কারণ।

হিমালয় থেকে গঙ্গা অববাহিকা হয়ে আসা ওই ঘন কুয়াশা ও শীতল বাতাসের প্রবাহের কারণে দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে মধ্যাঞ্চল হয়ে দক্ষিণ–পশ্চিম পর্যন্ত দিনের বেলায়ও সূর্যের দেখা পাওয়া যাচ্ছে না।

দিনের বেলায় কিছুটা রোদের দেখা পাওয়া যায়। তবে তাতে শীতের অনুভূতি খুব একটা কমেনি। এই অবস্থা আরও চার থেকে পাঁচ দিন থাকতে পারে। তবে যদি কুয়াশা কমে যায় তাহলে ওইভাবে শীত থাকবে না। তারপরেই যে শীত কমে যাবে, সেটা বলা যাবে না। তবে শীতের তীব্রতা কিছুটা কমে আসবে।

কয়েকদিনে উত্তরাঞ্চলীয়সহ সারাদেশের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ। অনেকেই ধারণা করছেন, এত শীত জানুয়ারির সম্ভাব্য শৈত্যপ্রবাহের প্রভাব। কিন্তু আবহাওয়াবিদরা বলছেন, সেটা এখনো আসেনি। তীব্র শৈত্যপ্রবাহ আসতে এখনো দেরি আছে। এই মাসেই আসার আশঙ্কা প্রবল।

গঙ্গা অববাহিকা থেকে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল থেকে মধ্যাঞ্চল পর্যন্ত কুয়াশার কারণে হঠাৎ এত শীত বেশি। এছাড়া দিন ছোট হয়ে এসেছে। রাতের সময় এখন বেশি, তাই সূর্যালোক কম পড়ছে। সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার ব্যবধান কমে আসা এবং উত্তরের হিমেল হাওয়ার কারণে মূলত শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে। সব মিলিয়ে শীত পড়ছে। আগামী কয়েক দিনই সকাল ও বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত শীত বেশি অনুভূত হবে।

রাজধানীসহ দেশের বেশিরভাগ এলাকা জুড়ে সকালে ঘন কুয়াশা ও তীব্র শীতের কারণে, মানুষের স্বাভাবিক কাজ কর্ম ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া বিকেল থেকেই তাপমাত্রা নিম্নগামী হওয়ায় সন্ধ্যার পরপরই তীব্র ঠাণ্ডায় ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে রাস্তাঘাট, হাট-বাজার ও দোকানপাট। ঠান্ডাজনিত নানা রোগ নিয়ে শিশুসহ বয়স্ক রোগী ভর্তির সংখ্যা বাড়ছে হাসপাতালগুলোয়।

ঘন কুয়াশার কারণে সড়ক ও নৌপথে যানবাহন চলাচলে বাধার সৃষ্টি হচ্ছে। অনেক এলাকায় ঘন কুয়াশার কারণে ৫০ থেকে ১০০ মিটারের দূরের জিনিস দেখা যাচ্ছে না। এই আবহাওয়ায় কৃষিখাতে প্রভাব ফেলবে। ঘন কুয়াশা ও বাতাসের কারণে মৌসুমি ফসলের ক্ষতি হতে পারে।

শীতে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষ। তীব্র শীতে ছিন্নমূল মানুষের রাত কাটে অসহনীয় দুর্ভোগে। গভীর রাতে শীত নিবারণে যখন সবাই লেপ-কম্বলে ওম খোঁজেন, তখন আরেক শ্রেণির মানুষের জীবনযুদ্ধ চলে খোলা আকাশের নিচে রাস্তার পাশেই। কারও প্লাস্টিকের বস্তা আবার কারও পুরোনো কাপড় দিয়ে শরীরটা ঢেকে ঠান্ডা থেকে নিস্তার পাওয়ার চেষ্টা। কিন্তু হিম বাতাস যে ভেদ করে যায় সামান্য আবরণ। হাড় কাঁপানো শীতে ইট-বালুর শহরে এমনই নাজেহাল অবস্থা ছিন্নমূল মানুষের।

আমরা যখন গভীর ঘুমে মগ্ন, ছিন্নমূল খেটে খাওয়া মানুষ তখন শীতের সঙ্গে লড়াই করে বেঁচে থাকেন নতুন সূর্যের অপেক্ষায়। হাড় কাঁপানো শীতে সমাজের বিত্তবানদের প্রতি একটু সাহায্যের আবেদন তাদের।

সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি শীতার্ত মানুষদের সহায়তায় নানা সংগঠন, ব্যক্তি ও গোষ্ঠী শীতবস্ত্র সংগ্রহ ও বিতরণের উদ্যোগ নেয়ার এখনই সময়। মানবতার কাছে হার মানবে প্রাকৃতিক নিষ্ঠুরতা। মানুষের জয়গানে মুখরিত হবে পৃথিবী। এই হোক আগামীর প্রত্যয়।

লেখক: অধ্যাপক ও গবেষক, মাইক্রোবায়োলজি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

Print Friendly, PDF & Email