দেশকে কোনোভাবেই অস্থিতিশীল হতে দেওয়া হবে না : আইজিপি

প্রকাশিতঃ 2:18 pm | November 23, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

আগুন সন্ত্রাস রুখে দিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রস্তুত আছে বলে মন্তব্য করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন।

তিনি বলেছেন, দেশে যদি আবার আগুন সন্ত্রাসের চেষ্টা করা হয় তাহলে পুলিশসহ অন্যান্য আইশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তা প্রতিহত করবে। দেশকে কোনোভাবেই অস্থিতিশীল হতে দেওয়া হবে না।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইন্স একাডেমিতে মাদক ও সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে পুলিশ মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে ব্যাপকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। অচিরেই জঙ্গিবাদের মতো করে মাদককেও নির্মূল করা হবে। শুধু সাধারণ জনগণই নয়, মাদকের সঙ্গে পুলিশ জড়িত থাকলেও তাকেও ছাড় দেওয়া হবে না।

তিনি আরও বলেন, মাদককে শুধুমাত্র পুলিশ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না। এটি সামাজিক সমস্যা। তাই সামাজিকভাবেই দূর করার চেষ্টা করতে হবে। আমাদের শক্তির উৎস জনগণ। জনগণের একমাত্র সমন্বিত প্রচেষ্টার মাধ্যমেই মাদক সমস্যার সমাধান সম্ভব।

চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, বিএনপি আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোর চেষ্টা করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দেশের মধ্যে কাউকে অরাজকতা সৃষ্টি করতে দেওয়া হবে না।

আদালত চত্বর থেকে জঙ্গি ছিনিয়ে নেওয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ঘটনাটি গভীরভাবে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় পুলিশের গাফিলতি আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

পাশাপাশি পলাতক জঙ্গিদের ধরতে পুলিশি তৎপরতা ব্যাপক বাড়ানো হয়েছে বলেও জানান আইজিপি।

তিনি বলেন, সন্তান কোথায় যায়, কার সাথে মিশে তার খোঁজ-খবর রাখা অভিভাবক হিসেবে আমাদের দায়িত্ব। পরবর্তী প্রজন্মকে মাদকের করাল গ্রাস থেকে মুক্ত রাখতে আমাদের সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে।

পুলিশপ্রধান বলেন, একটা সময় ছিল যখন গ্রামে শুধু কুঁড়েঘর দেখা যেত। আর এখন গ্রামে পাকা ঘরের সংখ্যা বাড়ছে, টিনের ঘরও আছে। কিন্তু কুঁড়েঘর হারিয়ে গেছে। কুঁড়েঘর থাকলেও বর্তমান সময়ে সেখানে গবাদি পশু, জ্বালানি কাঠ রাখা হয়, অথবা রান্নার ঘর হিসেবে ব্যবহার করা হয়। তিনি বলেন, এটা কিভাবে সম্ভব হয়েছে? এটা সম্ভব হয়েছে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির কারণে। দেশে যদি স্থিতিশীল আইন-শৃঙ্খলা না থাকে তাহলে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি হয় না। দেশে স্থিতিশীল আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় আছে বলেই আজ দেশের উন্নয়ন হচ্ছে।

তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আমরা উন্নয়নের মহাসড়কে যুক্ত হয়েছি। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। আমাদের লক্ষ্য ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত দেশে পরিণত করা।

রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিকের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার, বিট পুলিশিং রাজশাহী মহানগর শাখার আহ্বায়ক প্রফেসর ড. আব্দুল খালেক, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার জিএসএম জাফরুল্লাহ, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি আব্দুল বাতেন, জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল, রেপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন ৫ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট জেনারেল রিয়াজ শাহরিয়ার, জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, রাজশাহী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মীর ইকবাল হোসেন, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল কুমার সরকার।

পরে আইজিপি স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় এবং মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর পরিদর্শন করেন।

এছাড়া, তিনি রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ, রাজশাহী রেঞ্জ ও রাজশাহীস্থ পুলিশের সকল ইউনিটের অফিসার ও ফোর্সের সাথে মতবিনিময় করেন।

কালের আলো/এসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email