বিএনপি ক্ষমতায় গেলে হাতে হারিকেন ধরিয়ে দেবে: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 5:29 pm | July 31, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

বিএনপির হারিকেন মিছিল নিয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, হারিকেন নিয়ে মিছিলের অনেক অর্থ আছে। যেমন, মুসলিম লীগের মার্কা ছিল হারিকেন, মুসলিম লীগ মিলিয়ে গেছে হাওয়ায়। এখন তারা হারিকন ধরে মুসলিম লীগ হতে চায় কিনা এটা একটি প্রশ্ন? আরেকটি হচ্ছে হারিকেন দিয়ে যেকোন সময় পেট্রোল ভরে বোমা বানিয়ে ফেলা যায়। তাই হারিকেন দিয়ে পেট্রোল বোমা বানাবে কিনা সেটাও একটি প্রশ্ন। এছাড়া তারা যদি ক্ষমতায় যায় এবং সুযোগ পায় তাহলে সবাইকে হাতে হারিকেন ধরিয়ে দেবে।

রোববার (৩১ জুলাই) দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সঙ্গে মতবিনিময় ও সমসাময়িক ইস্যুতে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপি বলেছে সরকারকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেবে— এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার অনেক শক্ত ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে আছে। আপনারা জানেন কোনো শক্ত দেয়ালে যদি কেউ ধাক্কা দেয় তাহলে নিজেই পড়ে যায় কিংবা কেউ যদি মাথা ঠুকায় তাহলে সে মাথা ফেটে যায়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের ভিত অনেক গভীরে প্রথিত, অনেক শক্ত ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে আছে। আসলে আওয়ামী লীগ সরকারকে ধাক্কা দিতে গিয়ে বিএনপি ইতোমধ্যেই পড়ে গেছে। আবার যদি ধাক্কা দিতে যায় আবারও পড়ে যাবে এবং মাথাও ফেটে যেতে পারে।

বিএনপির নেতারা বলেছেন—সরকারের দুর্নীতির কারণে লোডশেডিং হচ্ছে ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে, এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে হাছান মাহমুদ বলেন, সমগ্র পৃথিবীতে আজকে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির জন্য হাহাকার। জার্মানিতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এক মিনিটের জন্য বিদ্যুৎ যায়নি। সেই জার্মানিতে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার জন্য জনগণকে আহ্বান জানানো হয়েছে। রেশনিং করা হচ্ছে, পানি গরম করার জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করা হয়েছে। শীতের দেশের জনগণকে ঠান্ডা পানি ব্যবহার করার জন্য বলা হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমেরিকার নাগরিকদের কাছে এসএমএস করে সবাইকে জানানো হয়েছে যে, সাশ্রয়ীভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য। এছাড়া ফ্রান্স ও অস্টেলিয়ার সিডনিতে দুই ঘণ্টা করে লোডশেডিং করা হচ্ছে। স্পেনে গরমের জন্য টাই না পড়ার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী। সারা বিশ্বেই বিদ্যুৎ সাশ্রয়ীভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এটির কারণ হচ্ছে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জ্বালানির দাম বেড়ে গেছে। এলএনজি’র দাম ১০ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। উন্নত দেশগুলোতে বিদ্যুতের রেশনিং করা হচ্ছে। আমাদের দেশেও বিদ্যুতে রেশনিং এর কথা বলা হচ্ছে। তবে আমরা আশা করছি ডিসেম্বর নাগাদ এ সমস্যা থাকবে না। বিএনপি এগুলো বোঝে। বুঝেও তারা এসমস্ত কথা বলেন।

বিএনপির বিদ্যুৎ নিয়ে কথা বলার সুযোগ নেই জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির আমলে মানুষকে বিদ্যুৎ দিতে পারে নাই। বিদ্যুতের জন্য মানুষ যখন মিছিল করেছে তখন বিএনপি গুলি করে মানুষ হত্যা করেছে। বিদ্যুৎ দিতে না পেরে মানুষের দাবির প্রেক্ষিতে সারা দেশের বিদ্যুতের খাম্বা লাগিয়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে পারেনি।

তিনি বলেন, আমাদের সরকার ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দিয়েছে। বিএনপির মিছিলে যে হারিকেন নিয়ে গেছে তার কোনটা একদিনও জ্বলেনি। হারিকেনগুলোতে সলতে নেই, কারণ কোনদিন জ্বলেনি। বাজার থেকে কিনে নিয়ে গেছে। তাদের আসলে বিদ্যুৎ নিয়ে কথা বলার নৈতিক অধিকার নেই। কারণ তারা মানুষকে বিদ্যুৎ দিতে পারে নাই।

কালের আলো/বিএস/এমএম

Print Friendly, PDF & Email