চীনের বাজারে পণ্য রপ্তানির সুযোগ কাজে লাগাতে হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 9:50 pm | June 08, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, চীন পণ্যের একটি বিশাল বাজার। চীনের বাজারে বাংলাদেশের অনেক পণ্য রপ্তানির সুযোগ রয়েছে। আমাদের এ সুযোগ কাজে লাগাতে হবে।

বুধবার (০৮ জুন) ঢাকার প্যানপ্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে রিসার্চ অ্যান্ড পলিসি ইনট্রিগ্রেশন ফর ডেভেলপমেন্ট (রেপিড) এবং বাংলাদেশ চায়না চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি আয়োজিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

‘চায়নার সঙ্গে বাণিজ্য ব্যবধান কমাতে রপ্তানি বৃদ্ধির বিকল্প নেই’ উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নসহ যেসব দেশে তৈরি পোশাক রপ্তানি করছে, তার চেয়েও কয়েক গুণ বড় বাজার চীন।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের শিল্পের যন্ত্রপাতি ও কাঁচামালসহ বিভিন্ন পণ্য চীন থেকে আমদানি করতে হয়। কিন্তু, আমরা সে পরিমাণ পণ্য চীনে রপ্তানি করতে পারি না। সে কারণেই চীনের সঙ্গে আমাদের বাণিজ্যব্যবধান অনেক বেশি।’

‘আমাদের শুধু তৈরি পোশাকের ওপর নির্ভর করে থাকলে চলবে না’ উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন, ‘অন্যান্য রপ্তানিপণ্য উৎপাদন করে চীনে তা রপ্তানি করেই বাণিজ্য ব্যবধান কমাতে হবে।’

টিপু মুনশি বলেন, ‘বিগত ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে আমরা চীনে রপ্তানি করেছি ৬৮০ দশমিক ৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য। একই সময়ে চীন থেকে আমদানি হয়েছে প্রায় ১৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এ বিশাল বাণিজ্য ব্যবধান কমিয়ে আনার জন্য আমরা প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। চায়না আমাদের প্রায় ৯৮ ভাগ পণ্য রপ্তানির ওপর ডিউটি ফ্রি সুবিধা প্রদান করছে। বাংলাদেশ আগামী ২০২৬ সাল থেকে এলডিসি গ্রাজুয়েশন করছে। বাংলাদেশ আশা করছে, চীন আরও তিন বছর বাড়িয়ে আগামী ২০২৯ সাল পর্যন্ত এ বাণিজ্য সুবিধা অব্যাহত রাখবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘এলডিসি গ্রাজুয়েশনের পর বাংলাদেশ বাণিজ্যসুবিধা পেতে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে এফটিএ বা পিটিএ-এর মতো বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর করে সুবিধা গ্রহণ করবে। বাংলাদেশ এরই মধ্যে চীনের সঙ্গে এমওইউ স্বাক্ষর করেছে। জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করে সম্ভ্যাব্যতা যাচাই চলছে। সব দিক বিবেচনায় নিয়েই চীনের সঙ্গে আমাদের বাণিজ্য চুক্তি হতে পারে।’

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক।

বাংলাদেশ চায়না চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (বিসিসিসিআই) প্রেসিডেন্ট গাজী গোলাম মুরতজার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনের অ্যাম্বাসেডর লি জিমিং, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান এ এইচ এম আহসান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বিসিসিসিআইয়ের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল আল মামুন মৃধা।

কালের আলো/ডিএস/এমএম

Print Friendly, PDF & Email