‘সম্প্রীতির বাজার’; নতুন ‘মডেল’ চালু করলো সেনাবাহিনী

প্রকাশিতঃ 8:40 am | May 19, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো :

কেউ সমবয়সী নন। আবার তাদের পেশাও ভিন্ন। কেউ রিকশা চালক, দিনমজুর বা খেটে খাওয়া মানুষ। এক ক্ষেত্রে তাদের মিল রয়েছে। তারা সবাই ‘কর্মহীন’।

করোনা দুর্যোগ তাদের শান্তির ঘুম ‘উধাও’ করেছে। বাড়িতে খাবার নেই, সঞ্চিত টাকাও নেই। কিন্তু তাদের জন্য রয়েছে ‘সম্প্রীতির বাজার’।

এই বাজারই চাল, ডাল, আটা, লবণ ও নুডলসের মত শুকনো খাবার এবং বিভিন্ন ধরনের সবজি সবই মিলছে বিনামূল্যে। অবশ্য এই বাজারে চিরায়ত হইহুল্লোড় নেই।

সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করেই টেবিলে সাজানো পছন্দনীয় সব পণ্য হাত বাড়িয়ে নিচ্ছেন। বাদ ছিলো না মাস্কও। হাসিমুখে গ্রহণ করে ফিরছেন বাড়িতে। এক হাজার মানুষ পেয়েছেন এসেছেন এই সুবিধার আওতায়।

‘সম্প্রীতির বাজার’র এ চিত্রটি সোমবারের (১৮ মে), নরসিংসদী জেলার রায়পুরা উপজেলায় রায়পুরা কলেজ মাঠের।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নবম পদাতিক ডিভিশনের ব্যবস্থাপনায় গরিব, দুস্থ ও অসহায় মানুষকে এমন মানবিক সহায়তার পাশাপাশি সম্ভাব্য খাদ্য সঙ্কট ঠেকাতে তাদেরকে কৃষি উৎপাদনে উৎসাহিত করতে বিভিন্ন রকমের সবজি বীজও বিতরণ করা হয়।

এই কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ৯ আর্টিলারি ব্রিগেডের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকি।

সংশ্লিষ্টরা জানান, করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়ানোর পাশাপাশি গ্রামীণ অর্থনীতিকে সচল রাখতেই অভিনব এমন আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে।

নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে সারি বেঁধে এ বাজারে প্রবেশ করেছেন লোকজন। বাজারে প্রবেশের আগেই সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে জীবানুমুক্ত করতে হয়েছে।

সাজিয়ে রাখা টেবিল থেকে প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্য সামগ্রীসহ সবজি সংগ্রহ করেছেন। এসব সবজি আবার স্থানীয় বিভিন্ন উপজেলার প্রান্তিক কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ন্যায্যমূল্যে কেনা হয়েছে।

অসহায় মানুষগুলোও নিজেদের পছন্দনীয় সবজি ও নিত্যপণ্য ব্যাগে ভরে বাড়ি ফিরেছেন।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, সম্প্রতি সেনাবাহিনীর জেনারেল অফিসার কমান্ডিংদের (জিওসি) সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ ভিডিও কনফারেন্সে গরিব, দুস্থ ও অসহায় মানুষের মাঝে নিজেদের রেশনের একাংশ বাঁচিয়ে ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার নির্দেশ দেন সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ।

পাশাপাশি প্রান্তিক পর্যায়ে ফসলের মাঠের নায়কদের আর্থিকভাবে লাভবান করতেই তাদের কাছ থেকে সবজি সংগ্রহ করে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে অসহায়ের হাতে তুলে দেওয়ারও নির্দেশ প্রদান করেন।

‘সম্প্রীতির বাজার’ এ নরসিংদী জেলা প্রশাসক (ডিসি) সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন, জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) প্রলয় কুমার জোয়ার্দ্দার, ৭ আর্টিলারি ফিল্ড রেজিমেন্টের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল গাজী আবদুস সালাম বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ইতোমধ্যেই চট্টগ্রাম ও রাঙামাটিতে গরিব ও অসহায় মানুষকে সহায়তার জন্য ‘এক মিনিটের বাজার’ চালু করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। বিষয়টি স্থানীয় জনসাধারণের পাশাপাশি দেশজুড়েই প্রশংসিত হয়েছে।

লকডাউনে মানবিক বিপর্যয়ের মুখে থাকা কর্মহীন ও অসহায় মানুষের মুখে আহারের জোগান দিতে নিত্য নতুন স্টাইলেই এগিয়ে যাচ্ছে দেশপ্রেমিক অদম্য সেনারা। এরই গতিধারায় এবার নরসিংদীতে সাড়া ফেলেছে তাদের নিউ কনসেপ্ট ‘সম্প্রীতির বাজার’।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের ‘গাইড লাইনে’ সম্পূর্ণ নতুন একটি ধারণা বাস্তবায়ন করছেন নবম পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) মেজর জেনারেল সাইফুল আবেদীন।

আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) জানিয়েছে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৯ পদাতিক ডিভিশন অসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে গত ২৪ মার্চ থেকে নিজ দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে আসছে।

সেনাসদস্যরা দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় ৮ টি পূর্ণাঙ্গ জেলা (নরসিংদী, নারায়নগঞ্জ, গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, মুন্সিগঞ্জ ও শরীয়তপুর) ও ঢাকা জেলার ৫ টি উপজেলায় নিয়মিত টহল কার্যক্রম পরিচালনা করছেন ।

টহল কার্যক্রমের পাশাপাশি অসামরিক প্রশাসনের সদস্যদের নিয়ে বিভিন্ন অঞ্চলে সাধারণ জনগণের মাঝে সচেতনতামূলক কার্যক্রম, বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা, মাস্ক বিতরণ এবং গরীব ও দুস্থ মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রেখেছে।

কালের আলো/এসআর/এমএএএমকে

Print Friendly, PDF & Email