খিচুড়ি রান্না নয়, মিড ডে মিল বাস্তবায়নে বিদেশে প্রশিক্ষণ : গণশিক্ষা সচিব

প্রকাশিতঃ 3:07 pm | September 15, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

প্রায় এক হাজার সরকারি কর্মকর্তাকে খিচুড়ি রান্না শিখতে বা অভিজ্ঞতা অর্জন করতে বিদেশে পাঠানোর প্রস্তাব করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। স্কুল ফিডিং কর্মসূচির আওতায় প্রশিক্ষণের জন্য তাদের বিদেশ পাঠানোর উদ্যোগ নেয়ার বিষয়টি নিয়ে চলছে আলোচনা সমালোচনা। এর মধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেছেন, এ অর্থ ব্যয় কোনো অপচয় নয় বরং অভিজ্ঞতা অর্জনে জন্য কর্মকর্তারা বিদেশ যাচ্ছেন। কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে মোট প্রকল্পের অতি অল্প অর্থ ব্যয় ধরা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন জ্যেষ্ঠ সচিব।

আকরাম-আল-হোসেন বলেন, এ প্রকল্পের কোনো অর্থ এখনো ছাড়া হয়নি। পরিকল্পনা কমিশন কিছু জিজ্ঞাসা পাঠিয়েছে। তার জবাব পাঠানো হবে। এরপর একনেকে চূড়ান্ত অনুমোদন হবে।

তিনি বলেন, স্কুল ফিডিং প্রকল্প ১০৪টি উপজেলায় চালু ছিল যা ডিসেম্বরে শেষ হচ্ছে। আগামী বছর থেকে সারাদেশে নির্বাচনী ইস্তেহারমতে সব স্কুলগুলোতে দুপুরের খাবার দেয়া হবে।

‘এটা বাস্তবায়ন সঠিকভাবে করার জন্য ভারতসহ যেসব দেশ মিড ডে মিল চালু করেছে, সেসব দেশ থেকে অভিজ্ঞা অর্জনের জন্য এক হাজার কর্মকর্তার এ প্রশিক্ষণের কম্পোনেন্টা রাখা হয়েছে, যোগ করেন আকরাম-আল-হোসেন।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই) সূত্র জানায়, খিচুড়ি রান্না ও পরিবেশন শিখতে বিদেশ যাচ্ছেন বেশ কিছু কর্মকর্তা। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্কুল ফিডিং কার্যক্রমের আওতায় এসব কর্মকর্তারা বিদেশ সফর করবেন বলে জানা গেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে স্কুল ফিডিং কার্যক্রমের প্রকল্প পরিচালক মো. রুহুল আমিন জানান, এশিয়ার বিভিন্ন দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয় কীভাবে খিচুড়ি রান্না করা হয়, এর পরিবেশ ও পরিবেশন দেখতে এই প্রকল্পের আওতায় বেশ কিছু কর্মকর্তা বিদেশ সফর করবেন। কবে কতজন বিদেশ সফর করবেন সে বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

এ প্রসঙ্গে মঙ্গলবার সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন বলেন, ‘মন্ত্রিসভায় স্কুল ফিডিং পলিসি অনুমোদিত হয়েছে। এই পলিসির ভিত্তিতে ১৯ হাজার ২৯৬ কোটি টাকার একটি প্রকল্প পরিকল্পনা কমিশনে দাখিল করা হয়েছে। বর্তমানের প্রকল্পটি ১০৪টি উপজেলায়, যা ৩১ ডিসেম্বর শেষ হবে। আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে পর্যায়ক্রমে ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালু করা হবে। সেই নির্বাচনী ইশতেহারকে সামনে রেখে আমরা ২০২৩ সাল পর্যন্ত একটা প্রকল্প প্রণয়ন করে দাখিল করেছি।’

এই প্রকল্পে দুটি বিষয় আছে জানিয়ে সচিব বলেন, ‘বাচ্চাদের আমরা দুপুর বেলা খাবার দেব। খাবারটা হবে দুই ধরনের। তিন দিন বিস্কুট এবং তিন দিন রান্না করা খাবার। বর্তমানে ছয় দিন বিস্কুট দেয়া হয়। রান্না করা খাবারের মধ্যে খিচুড়িটি সবচেয়ে প্রোটিন-সমৃদ্ধ।’

‘আর যারা এটি বাস্তবায়ন করবেন-আমাদের প্রধান শিক্ষক, কর্মকর্তা যারা মাঠ পর্যায়ে আছেন তাদের সক্ষমতার জন্য প্রত্যেকটা প্রকল্পে দেশে এবং বিদেশি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রেখেছি। প্রত্যেক প্রকল্পে এ ধরনের একটা কম্পোনেন্ট থাকে। এই কম্পোনেন্টে আছে যে, এক হাজার কর্মকর্তাকে বিভিন্ন দেশে যে স্কুল ফিডিং চালু আছে…যেমন আমাদের প্রতিমন্ত্রী এবং আমাদের অ্যাডিশনাল সেক্রেটারি আমাদের যাওয়ার কথা ছিল কেরালা, দিল্লিতে।’

সচিব বলেন, ‘কীভাবে বিভিন্ন দেশে মিড ডে মিল চালু আছে, কীভাবে তারা ম্যানেজ করছে সেই বিষয়গুলোকে অভিজ্ঞতা অর্জন করার জন্য একটা কম্পোনেট আছে, বিদেশে কর্মকর্তারা গিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে আসে।’

তিনি বলেন, ‘খিচুড়ি কীভাবে রান্না করে সেটার জন্য কিন্তু আমরা বিদেশে লোক পাঠাচ্ছি না। এ প্রকল্পটি এখনো অনুমোদন হয়নি। গতকাল পরিকল্পনা কমিশনের সদস্যের সভাপতিত্বে এটার পিইসি মিটিং ছিল। তারা আমাদের কাছে কিছু কোয়ারি করেছে, সেগুলোর আমরা জবাব দেব। জবাবের পরে যদি তারা সন্তুষ্ট হয় তাহলে একনেকে উপস্থাপিত হবে। একনেকে অনুমোদিত হলে জানুয়ারি থেকে বাস্তবায়ন করতে পারব। সুতরাং, আমরা খিচুড়ি রান্না করার জন্য কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারীকে বিদেশি পাঠাচ্ছি না। আমরা টাকাও চাই না এটার জন্য। কোনো একটা পত্রিকা লিখেছে যে ৫-১০ কোটি টাকা চেয়েছি, নো।’

‘এটা একটা বিশাল কর্মযজ্ঞ। ৬৫ হাজার ৬২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক কোটি ৪০ লাখ শিক্ষার্থীর জন্য মিড ডে মিল চালু করতে হবে। কীভাবে ম্যানেজ করব, সেই ম্যানেজমেন্ট দেখার জন্য আসলে যে সমস্ত উন্নত এবং উন্নয়নশীল দেশে এই ব্যবস্থা চালু আছে, সেই ব্যবস্থা দেখার জন্য এবং দেশে-বিদেশে তাদের প্রশিক্ষণ দেয়ার জন্য কম্পোনেন্ট রেখেছি সক্ষমতা অর্জনের জন্য। খিচুড়ি রান্না করার জন্য আমরা কোন কর্মকর্কতা বা আমরা বিদেশে যাচ্ছি না’, যোগ করেন আকরাম-আল-হোসেন।

‘যারা চালু করেছে তাদের নিয়ে এসে প্রশিক্ষণ করা যাচ্ছে না কেন’-এমন প্রশ্নে সচিব বলেন, ‘যে সমস্ত দেশ চালু করেছে সেখানে অভিজ্ঞতাটা দেখার থাকে। এটা তো একদিনে হয়নি। তারা অনেক দিন ভুল-ভ্রান্তি সংশোধন করে কীভাবে পারফেক্টলি কাজ করছে, সেই অভিজ্ঞতা অর্জনের একটা প্রস্তাব। এটা পরিকল্পনা কমিশন এবং একনেক অনুমোদন না করলে থাকবে না।’

‘ভারত নিশ্চয় কোনো দেশকে ফলো করেছে, তাই না? মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে কোনো কোনো দেশকে তো আমরা ফলো করি।’

‘এজন্য এত সংখ্যক কর্মকর্তা বিদেশ যাওয়ার কি দরকার আছে’-এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘এক হাজার কর্মকর্তাকে কেন? আমাদের তো কত হাজার কর্মকর্তা…৫০৯টি থানা থেকে একজন করে গেলেও তো ৫০৯ জন হয়, তাই না?’

‘কাজগুলো ফিল্ড লেবেলের কর্মকর্তারা বাস্তবায়ন করবেন। পিডিপি-৪-এ প্রত্যেক ব্যাচে ২০-২৫ জন করে পাঠাই। তারা সরেজমিনে গিয়ে যেটা দেখে এসে ইমপ্লিমেন্ট করবে, কীভাবে তারা স্কুল পর্যায়ে বাস্তবায়ন করছে। সেটার একটা ইমপ্যাক্ট হবে। একটা ভিডিও বা হ্যান্ডআউট ধরায় দেব, সেটা থেকে সরেজমিনে দেখার আসার অনেক বিষয় আছে। শুধু প্রাথমিকের না, সব মন্ত্রণালয়ে প্রকল্পে বিদেশে প্রশিক্ষণগুলো দেখে আসার কম্পোনেন্ট আছে।’

সচিব বলেন, ‘যেখানে রান্না করা খাবার দিচ্ছি সেখানে ঝরে পড়ার হার একদম কমে গেছে, ৩ শতাংশের নিচে চলে এসেছে। বাচ্চাদের পুষ্টির পরিমাণ বেড়েছে, ভর্তির হার বেড়েছে। উপস্থিতির হার বেড়েছে।’

‘এত সংখ্যক কর্মকর্তার বিদেশে গিয়ে প্রশিক্ষণ নেয়াটা অপচয় কি-না’-জানতে চাইলে সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, ‘মিড ডে মিল চালু করার ক্ষেত্রে আমাদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকার কথা, সেটা নেই। এটা একটু নতুন সিস্টেম। ভারতে যেখানে চালু আছে সেখানে কিচেন করা আছে, হাইজেন আছে। সেই জায়গাগুলো অর্জন করার জন্য প্রশিক্ষণের কোনো বিকল্প নেই। সেই কারণে আমি মনে করছি যে, এটা কোনো অপচয় নয়, এটা বরং আমাদের সক্ষমতা, দক্ষতা, ইফিসিয়েন্সিকে বৃদ্ধি করবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সরকারের একটি প্রভিশন আছে যে, কোনো প্রকল্পে এসট্যাবলিশমেন্ট কস্ট, ফরেন ট্রেনিং, অভ্যন্তরীণ ট্রেনিং কোনোভাবেই ৮ শতাংশের ওপরে হবে না। প্রশিক্ষণের জন্য মোট প্রকল্প ব্যয়ের ০.২ শতাংশ। দারিদ্র্যপীড়িত ১০৪টি উপজেলায় স্কুল ফিডিং পাইলট প্রকল্প, সেখানে আমরা বিস্কিুট দিচ্ছি। ১৬টি উপজেলায় রান্না করা খাবার চালু আছে।’

কালের আলো/এসআর/এমএইচএ

Print Friendly, PDF & Email