রমজানে জেরুজালেমে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা

প্রকাশিতঃ 10:18 am | March 11, 2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, কালের আলো:

ইসরায়েল আর হামাসের মধ্যে যুদ্ধবিরতি না হওয়ায় মুসলমানদের পবিত্র রমজান মাসে জেরুজালেমে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে। রমজানে আল আকসা মসজিদে যাতায়াত ও পরিদর্শনের সুযোগ বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছে হামাস।

তবে ইসরায়েল দাবি করছে, হামাস রমজান মাসে অঞ্চলটি অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে, যা কয়েকদিনের মধ্যেই শুরু হতে পারে।

আল আকসা হলো ইসলামের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান। এই জায়গাটিকে ইহুদিরাও তাদের পবিত্রতম স্থান বলে মনে করে, যা তাদের কাছে টেম্পল মাউন্ট নামে পরিচিত। কখনো কখনো জায়গাটি ইসরায়েল ফিলিস্তিন সংকটের কেন্দ্রবিন্দু হয়েও দাঁড়ায়।

রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেছে ফিলিস্তিনে। এ সপ্তাহে আল আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণ পরিদর্শনের সময় সেখানকার পরিবেশ শান্ত দেখা গেছে। কিন্তু ফিলিস্তিনিদের মনে চিন্তা যুদ্ধ নিয়ে।

আয়াত নামে এক নারী বলছিলেন, লোকেরা নিয়মিত রমজানের ঐতিহ্য উদযাপন এবং উপভোগ করতে পছন্দ করে। কিন্তু এ বছর তার আর কিছুই হবে না।

রোজার শুরুতে ৪০ দিনের একটা যুদ্ধবিরতি কার্যকর হওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা ভেস্তে গেছে। যদিও মিশরের একটি সূত্র বলছে, ইসরায়েলের সঙ্গে একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে হামাসের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে তাদের দেখা করার কথা রয়েছে।

শনিবার ইসরায়েল বলেছে যে, তাদের গোয়েন্দা প্রধান মার্কিন প্রতিপক্ষের সাথে দেখা করেছেন। কারণ তারা কয়েক ডজন জিম্মিকে মুক্ত করে আনার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

এরপর ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর একটি বিবৃতি প্রকাশ করে। যেখানে বলা হয়, হামাস তার অবস্থানে অটল রয়েছে। তারা আসলে কোন চুক্তিতে আগ্রহী নয়।

এদিকে আল আকসা মসজিদ ঘিরে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা জারি রেখেছে ইসরায়েলি পুলিশ। মসজিদ কমপ্লেক্সের প্রতিটি গেটে কন্ট্রোল অ্যাক্সেস চালু করা হয়েছে। ১৯৬৭ সালে যুদ্ধের মাধ্যমে ইসরায়েল এই অংশসহ পূর্ব জেরুজালেম দখল করে। তাই স্থানটি ফিলিস্তিনিদের কাছে সংগ্রামের একটি প্রতীক হয়ে উঠেছে। এখানে প্রায়ই ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনী এবং ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনার বেশিরভাগই হয় রমজান মাসেই।

২০২১ সালের মে মাসে আল আকসায় সহিংসতায় জেরুজালেমে উত্তেজনা বাড়ে। ওই ঘটনার জেরে হামাস তখন জেরুজালেমে রকেট নিক্ষেপ করে। তখন গাজায় ছোটখাটো একটি যুদ্ধও হয়। এ নিয়ে তখন আরব বিশ্ব ও ইসরায়েলিদের মধ্যে ব্যাপক অস্থিরতাও দেখা দেয়। এ বছর রোজার মাস কিভাবে কাটবে তা নির্ভর করছে ইসরায়েলের ওপর। কারণ তারা কী ধরনের উদ্যোগ বা কৌশল নেবে সেটি এখনো স্পষ্ট নয়।

চরম ডানপন্থী ইসরায়েলি জাতীয় নিরাপত্তা মন্ত্রী ইতামার বেন গভির আল আকসা মসজিদে প্রবেশে কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারির আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, এটি করা হবে হামাসের বিজয় উদযাপন বন্ধ ও ইসরায়েলি জিম্মিদের মুক্তির জন্য।

তবে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলছেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেছেন, রমজানের প্রথম সপ্তাহে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মসজিদে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে। তবে তারা প্রতি সপ্তাহে নিরাপত্তা পরিস্থিতি পুনঃমূল্যায়ন করবে।

তবে এই আল আকসায় কত সংখ্যক মুসলমানদের প্রবেশের অনুমতি মিলবে তা এখনো স্পষ্ট করেনি ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ।

গাজা যুদ্ধের সময় পশ্চিম তীর থেকে ফিলিস্তিনিদের জেরুজালেমে প্রবেশে অনেকাংশেই বাধা দেওয়া হয়েছে। তবে পবিত্র এ রমজান মাসে জুম্মার নামাজ পড়তে হাজার হাজার ফিলিস্তিনিকে আল আকসায় যেতে হবে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর চেকপোস্টের মধ্যে দিয়ে।

ইসরায়েল সরকারের মুখপাত্র আইলন লেভি জোর দিয়ে বলেছেন, ধর্মীয় প্রার্থনার স্বাধীনতার জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তিনি বিবিসিকে বলেন, রমজানে প্রায়ই এমন একটি উপলক্ষ তৈরি হয় যখন উগ্রপন্থীদের কারণে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। এবার আমরা তা প্রতিরোধের জন্য কাজ করছি।

তিনি বলেন, আমরা আগের বছরের মতো ধর্মীয় প্রার্থনার জন্য টেম্পল মাউন্টে প্রবেশের সুবিধা অব্যাহত রাখব। তবে কেউ যদি এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে পরিবেশ বিঘ্নিত করার চেষ্টা করে, আমরা তা প্রতিরোধ করব।

ইসলামি ওয়াকফ কাউন্সিলের সদস্য ও আল আকসা বা হারাম আল শরীফের পরিচালক ড. ইমাম মুস্তফা আবু সোয়ে বলেন, কয়েক বছর থেকেই পশ্চিম তীর থেকে যারা আল আকসায় আসছেন, তাদের অনুমতি দিচ্ছে ইসরায়েল। কিন্তু এতে কোনো সংঘর্ষ বা সহিংসতা হয় নি”।

তিনি বলেন, এখানে মানুষ প্রার্থনা করতে আসে। শান্তি বিঘ্নিত করতে আসে না। যদি ইসরায়েলি পুলিশ কিংবা নিরাপত্তা বাহিনী তাদেরকে কোনো বাধা না দেয়, তাহলে আশা করি কোনো সংকট তৈরি হবে না।

এবার রমজানে সারা বিশ্ব আরও গভীরভাবে খেয়াল করবে জেরুসালেমে আল আকসা মসজিদ ঘিরে কিছু ঘটছে কি না।

বিবিসি বাংলা অবলম্বনে

কালের আলো/এমএইচ/এসবি

Print Friendly, PDF & Email