আন্তর্জাতিক পর্যায়ে টেবিল টেনিসে সর্বোচ্চ সাফল্য, আত্মবিশ্বাসী স্বর্ণ বিজয়ীদের সেনাপ্রধানের সম্মাননা

প্রকাশিতঃ 10:16 pm | April 04, 2023

বিশেষ সংবাদদাতা, কালের আলো :

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে টেবিল টেনিসে এতোদিন বাংলাদেশের বিশাল সাফল্য বলতে ছিল রুপা জয়। কিন্তু গত বছর মালদ্বীপে ইতিহাস গড়ে বাংলাদেশের টেবিল টেনিস খেলোয়াড়েরা। দক্ষিণ এশিয়ান জুনিয়র অ্যান্ড ক্যাডেট টেবিল টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথমবারের মতো স্বর্ণ জিতে। প্রায় ১৯ বছর পর বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের সর্বোচ্চ এ সাফল্য স্বভাবতই আনন্দ উদ্দীপ্ত করে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের (বিওএ) সভাপতি ও সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল ড.এস এম শফিউদ্দিন আহমেদকে।

বাংলাদেশ টেবিল টেনিস দলের অভাবনীয় এই অর্জনে আত্মবিশ্বাসী চারজন স্বর্ণ বিজয়ীকে ভবিষ্যতেও সাফল্যের ধারা বজায়ে উৎসাহিত করতে বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার প্রদান করেছেন সেনাপ্রধান। মঙ্গলবার (০৪ এপ্রিল) ঢাকা সেনানিবাসস্থ সেনা সদরে তিনি স্বর্ণ বিজয়ী প্রত্যেকের হাতে নগদ পঁচিশ হাজার টাকা সম্মাননা পুরস্কার তুলে দেন।

এর আগে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ’র সঙ্গে সাউথ এশিয়ান জুনিয়র ও ক্যাডেট চ্যাম্পিয়নশীপে বাংলাদেশ টেবিল টেনিস জাতীয় দলের স্বর্ণবিজয়ী চারজন খেলোয়াড়সহ ফেডারেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন বলে জানায় আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)। আইএসপিআর জানায়, বাংলাদেশ জাতীয় টেবিল টেনিস দলের মুহতাসিন আহমেদ হৃদয়, রামহিম লিয়ন বম, মো. নাফিস ইকবাল ও আবুল হাসেম হাসিব অংশগ্রহণ করে স্বর্ণ পদক পেয়ে দেশের জন্য গৌরব বয়ে আনে। চারজন স্বর্ণ বিজয়ীদের তাদের সফলতার জন্য এবং ভবিষ্যতে আরো ভালো ফলাফল অর্জনে উৎসাহ প্রদানের নিমিত্তে সেনাবাহিনী প্রধান প্রত্যেককে এ সম্মাননা পুরস্কার প্রদান করেন।

জানা যায়, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ২০০৩ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত দক্ষিণ এশিয়ান জুনিয়র অ্যান্ড ক্যাডেট টেবিল টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপে সোনাম সুলতানা ও মৌমিতা আলম জুটি বালিকা দ্বৈতে রুপা জিতেছিলেন। এরপর দীর্ঘ অপেক্ষা। বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের (বিওএ) সভাপতি হিসেবে সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ অভিষিক্ত হওয়ার পর তিনি বাংলাদেশ টেবিল টেনিস দলকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সাফল্য পেতে কার্যকর দিকনির্দেশনা প্রদানের পাশাপাশি নানাভাবে উৎসাহিতও করেন।

ফলত মালদ্বীপে সাউথ এশিয়ান জুনিয়র ও ক্যাডেট চ্যাম্পিয়নশীপকে টার্গেট করে অনুশীলনে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেন কোচ মোহাম্মদ আলীর শিষ্যরা। করোনার মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে কঠোর অনুশীলন। কঠোর পরিশ্রমেই প্রথমবারের মতো স্বর্ণ জিতে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। সার্কভুক্ত দেশসমূহের অংশগ্রহণে বড় এ আসরে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করে।

এর আগে কমনওয়েলথ গেমসেও রেকর্ড গড়ে বাংলাদেশ টেবিল টেনিস দল। যোগ্যতা অর্জন করে প্রথমবারের মতো কমনওয়েলথ গেমসে খেলতে এসে ওই আসরেই কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে বাংলাদেশ। ওই সময় বাংলাদেশের সবগুলো ম্যাচ দেখেন বিওএ সভাপতি ও সেনাপ্রধান জেনারেল ড.এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। বাংলাদেশের এই সাফল্যে প্রত্যেক খেলোয়াড়কে তিনি পঞ্চাশ হাজার টাকা পুরস্কারও প্রদান করেন।

কালের আলো/ইএ/এমএএএমকে

Print Friendly, PDF & Email