যে কোনও অবস্থার জন্য প্রস্তুত থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

প্রকাশিতঃ 10:51 am | November 07, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা দেশের মানুষকে ভালো রাখতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমাদের প্রচেষ্টা থাকবে দেশের মানুষ যেন ভালো থাকে, সুস্থ থাকে। যেখানে উন্নত দেশ হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে আমাদের তো ভুগতেই হবে। যেকোনো অবস্থার জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে।

রোববার (৬ অক্টোবর) রাতে জাতীয় সংসদের ২০তম অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে সংসদ নেতা শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। সরকারপ্রধান তার বক্তব্যে দেশের আমদানি-রপ্তানি পরিস্থিতি, রিজার্ভ, বৈশ্বিক মন্দা পরিস্থিতিসহ সরকারের নেওয়া নানা পদক্ষেপ তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের খাদ্য উৎপাদন আরো বাড়াতে হবে। নিজেদের উৎপাদনটাকে ধরে রাখতে হবে। আর আমদানীকৃত পণ্যের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে হবে। সেই চেষ্টাই আমাদের করতে হবে। সাথে সাথে রপ্তানী বাড়াতে হবে এবং যেজন্য তাঁর সরকার বিভিন্ন দেশে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

বিশ্ব মন্দার মধ্যেও তাঁর সরকার অর্থনীতিটাকে ধরে রাখতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এবং এ জন্য সকলকে কৃচ্ছতা সাধন করতে, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি ও পানির ব্যবহারে মিতব্যয়ী হওয়ারও আহ্বানও জানান তিনি।

তিনি প্রতিটি পরিবারকে এ বিষয়ে সচেতন হবার আহবান জানান। কেননা ইউরোপের অনেক উন্নত দেশে রেশনিং চলছে এবং এই শীতে বিদ্যুৎ ব্যবহার সীমিত রাখতে তারা নতুন পরিকল্পনা করছে। কাজেই আমাদের সাশ্রয়ী হতে হবে এবং আগে থেকেই যে কোন অবস্থার জন্য তৈরী থাকতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের এই মুহূর্তে যে জিনিসটার খুব বেশি প্রয়োজন নেই সেই বিলাস দ্রব্য আমদানী আমাদের কমাতে হবে। আর এর ওপর আমাদের ট্যাক্সও বসাতে হবে বেশি করে।’

বিদেশি ঋণ প্রসঙ্গে বিরোধী দলের উপনেতার বক্তব্যের প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, আমাদের মোট সরকারি ঋণ জিডিপির ৩৬ শতাংশ। আর বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ জিডিপির ১৩ দশমিক ৫ শতাংশ। আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর অন্তত এতটুকু বলতে পারি আমরা কোন দিনও ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হইনি। আমরা নিয়মিত ঋণ পরিশোধ করে যাচ্ছি। আমরা ঋণ খেলাপি (লোন ডিফল্টার) হইনি কখনো। আর ভবিষ্যতেও ইনশাল্লাহ হবনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাপী বিপর্যস্ত অর্থব্যবস্থা থেকে বাংলাদেশ আলাদা নয়। বাংলাদেশকেও তার ফল ভোগ করতে হচ্ছে এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মূল্যস্ফীতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। মুদ্রার বিপরীতে ডলারের মূল্যবৃদ্ধি এই সংকটকে আরো ঘণীভূত করেছে। কারণ প্রতিনিয়ত ডলারের দাম বেড়ে যাচ্ছে। কাজেই আমাদেও মত তৃতীয় বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলো যাদের খাদ্য পণ্য, জ্বালানি এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানী করতে হচ্ছে তারাও সংকটে পড়েছে। এরপরেও আমি বলবো আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

দেশের মানুষের কল্যাণের কথা চিন্তা করে তাদের চাহিদা সরকার পূরণের চেষ্টা করে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারপরেও চাপ রয়েছে কেননা পণ্য উৎপাদনেও ভতুর্কির পরিমাণ অস্বাভাবিক রকম বেড়ে গেছে।

তাঁর সরকার করোনার মধ্যে ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট দিতে সক্ষম হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাথাপিছু আয় হয়েছে ২ হাজার ৮শ ২৪ মার্কিন ডলার যেটা বিএনপি আমলে (২০০৫-০৬) অর্থবছরে ছিল ৫৪৩ মার্কিন ডলার। পাশাপাশি বাজেটে উন্নয়ন খাতে সরকার ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকা বরাদ্দ করতে সক্ষম হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বাজেটের খাত ওয়ারি বরাদ্দের পরিমান বিশ্ব মূল্যস্ফীতির কারণে বেড়ে গেছে উল্লেখ করে বেশ কিছু পরিসংখ্যান তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, বিদ্যুৎ খাতে আমাদের ভর্তুকি ধরা ছিল ১৭ হাজার কোটি টাকা, আজকে সেখানে অতিরিক্ত চাহিদা তৈরী হয়ে প্রয়োজন হয়েছে ৩২ হাজার ৫শ’ কোটি টাকা। সম্পূর্ণ বিদ্যুৎ দিতে গেলে এই ভতুর্কি দিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জ্বালানি তেলে অতিরিক্ত ভতুর্কি লাগছে ১৯ হাজার ৫শ’ ৫৮ কোটি টাকা। খাদ্য আদমানীতে অতিরিক্ত ভতুর্কির প্রয়োজন হচ্ছে ৪ হাজার কোটি টাকা। টিসিবি বা অন্যান্য জনবান্ধব কর্মসূচিতে ভর্তুকি লাগছে ৯ হাজার কোটি টাকার। কেননা এক কোটি মানুষকে বিশেষ কার্ড দিয়ে সরকার স্বল্পমূল্যে খাদ্য পণ্য সরবরাহ করছে। সারও কৃষি পণ্য আমদানীতে অতিরিক্ত ভর্তুকি লাগছে ৪০ হাজার ২শ’ ৪৭ কোটি টাকার। তার মানে এক লাখ ৫ হাজার ১০৫ কোটি টাকার শুধু ভর্তুকির চাহিদা বেড়েছে।

সরকার প্রধান এ সময় বিশ্ব বাজারে পণ্য মূল্য বৃদ্ধির কিছু উদাহরণ টেনে বলেন, ডিজেলের ব্যারেল প্রতি মূল্য ১৩২ ডলার বা তার বেশি থেকে প্রায় ১৭০ হয়েছে। গ্যাস সরবরাহে নভেম্বর মাসে ভোক্তা পর্যায়ে প্রতি ঘন মিটারেই ১০ টাকা ৬০ পয়সা হারে ভর্তুকি গুণতে হচ্ছে। এলএনজিকে প্রতি ঘনমিটারে ভর্তুকি দিতে হচ্ছে ৪৮ টাকা। সেভাবে ইউরিয়া সার ৭৫ টাকায় ক্রয় করে ২২ টাকায়, টিএসপি ৫৯ টাকায় করে কৃষক পর্যায়ে ২২ টাকায় এবং অন্যান্য সারও এভাবে উচ্চমূল্যে ক্রয় করে ন্যায্যমূল্যে কৃষক সরবরাহ করতে ভর্তুকি বহুগুণে বেড়ে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত এক বছরে বিশ্ব বাজারে চিনি, মশুরডাল সহ অন্যান্য খাদ্য পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ। যার অধিকাংশই আমাদের আমদানী করে স্থানীয় চাহিদা মেটাতে হয়। আন্তর্জাতিক বাজারে একই সময়ে চাল, গম, আটার মুল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ। আন্তর্জাতিক পণ্য পরিবহনের ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ৪০ শতাংশ।

প্রধানমন্ত্রী এত কিছুর পরও দেশে ‘১৫ লাখ ৭৩ হাজার ৪শ’ ৮৫ মেট্রিক টন’ খাদ্য মজুদ রয়েছে বলেও দেশবাসীকে আশ্বস্ত করেন।

‘কাজেই আমাদের চিন্তার কিছু নাই। ইতোমধ্যে ৫ লাখ ৩০ হাজার মেট্রিক টন চাল আগাম আমদানীর পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। এজন্য ভারত, মিয়ানমার, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া সকল দেশের সঙ্গেই আলোচনা চলছে এবং কিছু চুক্তিও হয়েছে’ বলেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে ৯ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন গম আমদানীর কার্যক্রম চলছে এবং চুক্তিকৃত চাল, গম ইতোমধ্যেই দেশে আসা শুরু হয়েছে। এক্ষেত্রে রাশিয়া তার বাধাটা সরিয়ে নেওয়ায় ইউক্রেনসহ ঐ অঞ্চল থেকে পণ্য আমদানী শুরু হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী রিজার্ভ নিয়ে বিরোধী দলের উপনেতার বক্তব্য প্রসংগে বলেন, উনি একটি হিসাব দেখিয়েছেন যেখানে শুধু খরচটাই দেখিয়েছেন। কিন্তু আয়টা যুক্ত করেননি। আমাদের কিছু আয় আছে .সেটাও বাস্তব।

তিনি বলেন, চলতি অর্থবছরে জুলাই-অক্টোবরে রপ্তানী আয় বেড়েছে ১৬ দশমিক ৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৭ শতাংশ বেশি। আর একই সময়ে (চলতি অর্থবছরে জুলাই-অক্টোবরে) প্রবাসী আয় (রেমিট্যান্স) এসেছে ৭ দশমিক ২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা গত বছরের এই সময়ের চেয়ে ২ শতাংশ বেশি। একই সময়ে আমদানী ঋণপত্র খোলা হয়েছে ২২ দশমিক ৯ বিলিয়ন ডলার, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১১ দশমিক ৭ কম। কেননা যখন ডলারের দাম কম ছিল তখন ঋণপত্র খোলার দায়টা এখন আমাদের নিতে হচ্ছে।

কারণ এখন ডলারের দাম বেড়ে গেছে। সেটা পরিশোধটাও অতিরিক্ত চাপ। তবে, অতীতের ঋণপত্র খোলার যে ঘাটতি বা চাপ সেটা ২০২২ সালের ডিসেম্বর নাগাদ শেষ হয়ে যাবে বলেও তিনি আশার কথা বলে উল্লেখ করেন। জানুয়ারি ২০২৩ থেকে ডলারের সংকট নিরসনেও তাঁর সরকার বিশেষ ভাবে দৃষ্টি দিয়েছে বলেও তিনি জানান।

রিজার্ভের হিসাব প্রসংগে তিনি বলেন, ৯৬ সালের ২৩ জুন সরকার গঠনের সময় তিনি রিজার্ভ পেয়েছিলেন ২ দশমিক ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তাঁর সরকার ক্ষমতায় এসেই সেই রিজার্ভকে প্রায় ৪ বিলিয়নের কাছাকাছিতে উন্নীত করে। এরপর দ্বিতীয়বার সরকারে আসে ৬ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে, তখন রিজার্ভ ছিল ৫ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ৮ জানুয়ারী ২০১৪ তারিখ যখন টানা দ্বিতীয় এবং মোট তৃতীয় বারের মত আওয়ামী লীগ সরকারের আসে তখন রির্জার্ভ বেড়ে দাঁড়ায় ১৭ দশমিক ৪৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। অর্থাৎ আওয়ামী রীগ সরকার ৫ বিলিয়ন থেকে ১৭ বিলিয়নে উন্নীত করেছে। এরপর চতুর্থ দফা এবং টানা তৃতীয় দফায় সরকার গঠনের সময় ৭ জানুয়ারি ২০১৯ রিজার্ভ বেড়ে দাঁড়ায় ৩২ দশমিক ০৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হয় এবং ৩০ জুন ২০২০ তারিখে ৩৬ দশমিক ০৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হয়।

তিনি আরো বলেন, ৩০ জুন ২০২১ তারিখে ৪৬ দশমিক ৩৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং ৩০ জুন ২০২২ তারিখে তা ৪১ দশমিক ৮৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়ায়। করোনার সময় আমদানী-রপ্তানীসহ অন্যাস্য ব্যয় প্রায় বন্ধ থাকায় তা প্রায় ৪৮ বিলিয়নে উঠে গিয়েছিল। পরবর্তী আমদানী বৃদ্ধি এবং সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বস্তবায়ন এবং ক্যাপিটাল মেনিারিজ আমদানীর ফলে রিজার্ভ কিছুটা কমে বর্তমান ৩ নভেম্বর ৩৫ দশমিক ৭২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে এসে দঁড়িয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের যে রিজার্ভ আছে সেই রিজার্ভে অন্তত ৫ মাসের আমদানী করা সম্ভব। আন্তর্জাতিক মানদন্ডে যদি ৩ মাসের আমদানী পরিমান রিজার্ভ থাকে তাহলে সেটাই যথেষ্ট। এটা হলো বাস্তবতা।

-বাসস

Print Friendly, PDF & Email