মাঙ্কিপক্স নিয়ে বিশ্বব্যাপী জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি ডব্লিউএইচও’র

প্রকাশিতঃ 11:21 pm | July 23, 2022

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, কালের আলো:

ক্রমবর্ধমান সংক্রমণের কারণে মাঙ্কিপক্স ভাইরাস নিয়ে বিশ্বজুড়ে জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। বিশ্বজুড়ে এই ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় শনিবার জাতিসংঘের স্বাস্থ্য বিষয়ক এই সংস্থা জরুরি সতর্কতা জারি করেছে।

এর আগে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ব্যাপক বেড়ে যাওয়ায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ২০২০ সালের ১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিল।

৫০টিরও বেশি দেশে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ায় একে ‘আন্তর্জাতিক উদ্বেগজনক জরুরি’ পরিস্থিতি হিসেবে আখ্যায়িত করে ডব্লিউএইচও। বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত সাড়ে ১৬ হাজারের বেশি মানুষের শরীরে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়েছে।

তবে বার্তা সংস্থা রয়টার্স তাদের প্রতিবেদনে জানায়, জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থা- ডব্লিউএইচও’র বিশেষজ্ঞ কমিটির সদস্যরা এখন পর্যন্ত মাঙ্কিপক্সের কারণে জরুরি অবস্থা ঘোষণার প্রশ্নে দ্বিধাবিভক্ত রয়েছেন। এ সত্ত্বেও সংস্থাটির প্রধান জরুরি অবস্থা জারির ঘোষণা দিলেন। সংস্থার ইতিহাসে এমন ঘটনা এই প্রথম।

টেড্রোস আধানম বলেন, ‘আমাদের চারপাশে মাঙ্কিপক্স ছড়িয়ে পড়ছে। বিশ্বব্যাপী নতুন নতুন রূপে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে। তবে আমরা বুঝতে পারছি, সংখ্যাটা ছোট। কিন্তু আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য নীতি মোতাবেক সর্বোচ্চ সতর্কতা জারির শর্ত হাজির রয়েছে।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাবে, চলতি বছরে এ পর্যন্ত ৭০টির বেশি দেশে মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত ১৬ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে জুনের শেষ থেকে জুলাইয়ের শুরু পর্যন্ত সংক্রমণের হার বেড়েছে ৭৭ শতাংশ। সংস্থাটি জানিয়েছে, পুরুষ সমকামীদের মধ্যে এই রোগ ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি।

চলতি বছরে আফ্রিকায় মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত হয়ে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এ মহাদেশের বাইরে এখন পর্যন্ত কেউ মারা যাওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের (সিডিসি) তথ্য বলছে, মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত বেশিরভাগ রোগী দুই থেকে চার সপ্তাহের মধ্যে সেরে উঠছে। ভাইরাসটি একটি ফুসকুড়ি সৃষ্টি করে, যা সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়তে পারে। আক্রান্ত ব্যক্তিরা বলেছেন, ব্রণ বা ফোস্কার মতো দেখতে ওই ফুসকুড়ি খুব যন্ত্রণাদায়ক হতে পারে।

কালের আলো/এসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email