ষড়যন্ত্রকারীদের রুখে দিতে হবে : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 9:29 pm | January 16, 2022

নিজস্ব সংবাদদাতা, কালের আলো:

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম বলেছেন, উন্নয়নের ধারা ব্যাহত করতে দেশে-বিদেশে ষড়যন্ত্র চলছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে দেশ যখন সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছে তখন দেশ ও দেশের বাইরে ষড়যন্ত্র চলছে। দেশের উন্নয়নকে ব্যাহত, দেশের মানুষকে দারিদ্র্য ও ভিখারি করে রাখতেই তাদের এ ষড়যন্ত্র।

রবিবার (১৬ জানুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এলজিইডি ভবনে বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বঙ্গবন্ধু প্রকৌশলী পরিষদ’ এলজিইডি কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, দেশ এগিয়ে যাক, দেশের মানুষ উন্নত জীবন নির্বাহ করুক, বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে মর্যাদার আসনে আসীন হোক এটা অনেকের সহ্য হয়না। এদের বিষয়ে আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে। যারা ষড়যন্ত্র করে উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করার চেষ্টা করছে তাদেরকে রুখে দিতে হবে।

তিনি বলেন, অধিকারহারা বাঙালি পাকিস্তানিদের মাধ্যমে বঞ্চনার এবং বৈষম্যের স্বীকার হয়েছেন। তারা কখনোই এদেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন চাননি। বাঙালিকে দাস হিসেবে রাখতেই তারা এদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে। বাংলাদেশের সম্পদ পশ্চিম পাকিস্তানের উন্নয়নে ব্যয় করে বাঙালি জাতিকে বঞ্চিত করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, অর্থনীতি’র সূচক এবং শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসহ অন্যান্য সকল সূচকে প্রতিবেশীসহ অনেক দেশের চেয়ে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘসময় ধরে ক্ষমতায় আছে বলেই এটা সম্ভব হয়েছে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ করতে সব ধরনের পরিকল্পনা ও প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন নিয়ে এদেশ স্বাধীন করেছেন তাঁর সেই স্বপ্ন পূরণ হবেই। এ জন্য জনপ্রতিনিধি, প্রকোশলী, কৃষক শ্রমিক, দিনমজুর সবাই একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, দেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন হয়েছে, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা লাভ করেছে, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হয়েছে। পদ্মা ব্রীজ ও মেট্রোরেলসহ অনেক মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সবগুলোর একসঙ্গে ফলাফল আসতে শুরু করলে অর্থনীতির ব্যাপক পরিবর্তন আসবে। চলতি বছরের মধ্যে আমাদের গড় আয় তিন হাজার ডলার ছাড়িয়ে যাবে বলেও জানান তিনি ‌।

বঙ্গবন্ধু প্রকৌশলী পরিষদের আহ্বায়ক হাবিবুল আজিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী সেখ মোহম্মদ মুহসিন অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

কালের আলো/ডিএস/এমএম

Print Friendly, PDF & Email