দু্ই বছরে সাড়ে ১০ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি, ‘সুমিজ হট কেক’র বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিতঃ 12:07 pm | June 09, 2021

নিজস্ব সংবাদদাতা, কালের আলো:

বিক্রয় তথ্য গোপন এবং মেশিনে প্রস্তুতকৃত কেক হাতে তৈরির ঘোষণা দিয়ে ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগে সুমিজ হট কেকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদপ্তর।

মঙ্গলবার (০৮ জুন) দায়ের করা মামলায় প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের এপ্রিল থেকে ২০২১ পর্যন্ত ১০ কোটি ৫২ লাখ টাকার ভ্যাট ফাঁকির তথ্য সংযুক্ত করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান বলেন, একজন গ্রাহকের অভিযোগের ভিত্তিতে রাজধানীর উত্তরায় সুমিজ হট কেক এ অভিযান চালায় ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদফতর। এতে ১০ কোটি ৫২ লাখ টাকার ভ্যাট ফাঁকির তথ্য পাওয়া গেছে। ভ্যাট ফাঁকির উদ্দেশে প্রকৃত বিক্রয় তথ্য গোপন ও মেশিনে প্রস্তুতকৃত কেক হাতে তৈরির ঘোষণা দিয়ে ভ্যাট ফাঁকির দায়ে ভ্যাট আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ভ্যাট গোয়েন্দা সূত্রে জানা যায়, প্রতিষ্ঠানের ২০১৯ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত ৭ কোটি ১৩ লাখ ১৪৩ টাকা ভ্যাট পরিহার করেছে এবং এই পরিহারকৃত ভ্যাট এর উপর সুদ বাবদ ৩ কোটি ৩৮ লাখ ৬৪ হাজার ৭৬৫ টাকাসহ সর্বমোট ১০ কোটি ৫১ লাখ ৬৪ হাজার ৯০৯ টাকা আদায়যোগ্য হবে।

প্রতিষ্ঠানটি ‘হাতে তৈরি’ কেকের ঘোষণা দিলেও মূলত মেশিনে কেক প্রস্তুত করে আসছে। মেশিনে তৈরির কেক এর উপর ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট প্রযোজ্য। আর হাতে তৈরি করলে তা ৫ শতাংশ। এতদিন সুমি’জ হট কেক ৫ শতাংশ হারে ভ্যাট দিয়েছে।

গোয়েন্দারা জানায়, প্রকৃতপক্ষে উক্ত পণ্যের উপর আদর্শহারে ভ্যাট (মূসক-১৫%) প্রযোজ্য হবে। কারণ সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটির সকল ধরনের কেক মেশিনে প্রস্তুত করা হচ্ছে। তদন্তে উদঘাটিত ভ্যাট ফাঁকির টাকা আদায়ের আইনগত কার্যক্রম গ্রহণের জন্য মামলাটি ঢাকা উত্তর ভ্যাট কমিশনারেটে পাঠানো হবে বলেও জানায় ভ্যাট গোয়েন্দা।

প্রসঙ্গত, রাজধানীসহ সারাদেশে এই কেক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানটির ২৬টি বিক্রয়কেন্দ্র রয়েছে। এসব বিক্রয়কেন্দ্রে কারখানায় উৎপাদিত পণ্য সরবরাহ করা হয়।

কালের আলো/ডিএসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email