পায়ের পাতার জন্মগত ত্রুটি প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

প্রকাশিতঃ 9:02 pm | July 18, 2022

কালের আলো প্রতিবেদক:

অতীতে কোন শিশু বাঁকা পা নিয়ে জন্ম নিলে অভিভাবকদের বিষণ্ণতায় ভর করত। মনে করা হতো, এ বুঝি কোন অভিশাপ! ওসব শিশু পেত না চিকিৎসাসেবা, বেড়ে উঠত বাঁকা পা নিয়ে। উচ্চবিত্তের কেউ কেউ বিদেশ থেকে শিশুর পায়ে জটিল অপারেশন করিয়ে আনতেন। তারপরও ঠিকমতো ফলোআপ না করায় বাঁকা পা আগের অবস্থায় ফিরে যেত। বাঁকা পা নিয়ে জন্মগ্রহণকারী শিশুদের বলা হয় ‘ক্লাবফুট’ শিশু।

তবে বর্তমানে আর এমন হয়না দেশেই হচ্ছে সে চিকিৎসা। বিভিন্ন এলাকাতে বিনা খরচে এসব সেবা দিচ্ছে বিভিন্ন সংস্থা ও ডাক্তাররা।

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছাতেও বিনা খরচে ক্যাম্পেইন করতে চায় ডাক্তাররা। আর এতে সহায়তা করতে আগ্রহী উপজেলা প্রশাসন।

সোমবার (১৮ জুলাই) মুক্তাগাছা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ‘ক্লাবফুট’ ম্যানেজমেন্ট বিষয়ক সেমিনার বক্তারা এসব কথা জানান।

মুক্তাগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মনসুরের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলাপরিষদ চেয়ারম্যান আরব আলী।

এছাড়া সেমিনারে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক (পেডিয়াট্রিক অর্থোপেডিকস) ডা. মোঃ তরিকুল আলম নোমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মমেকের সহযোগী অধ্যাপক, অর্থোপেডিক্স এন্ড ট্রমাটোলোজি ডা. মোঃ সাইফুল ইসলাম, ডা. হাফিজুল ইসলাম ও ডা. মোঃ মোহসিন উদ্দিন।

সেমিনারে ‘ক্লাব ফুট’ এর চিকিৎসা কতটা সহজ ও স্বল্প ব্যয়ের এবং শুধুমাত্র সচেতনতার মাধ্যমে কিভাবে এই ধরনের জন্মগত ত্রুটি থেকে শিশুরা মুক্তি পেতে পারে তা আলোচনা করা হয়। এছাড়া সেমিনারে বক্তারা পায়ের পাতার জন্মগত ত্রুটি প্রতিরোধে সচেতনতার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

সেমিনারে ইউএনও আব্দুল্লাহ আল মনসুর বলেন, মুক্তাগাছা উপজেলা হবে প্রথম ক্লাবফুট মুক্ত উপজেলা এবং সেই লক্ষে শীঘ্রই উপজেলা পরিষদে ক্লাব ফুট এর চিকিৎসা ক্যাম্প আয়োজন করা হবে বলেও জানান তিনি।

সেমিনারে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, স্বাস্থ্যকর্মী, নার্স ও বিভিন্ন পর্যায়ের সচেতন নাগরিকরা অংশ নেন।

Print Friendly, PDF & Email