৪০ জেলায় হচ্ছে অস্ত্রাগার; সক্ষমতায় আরও এক ধাপ এগোচ্ছে আনসার-ভিডিপি

প্রকাশিতঃ 10:17 pm | May 11, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

দেশের ৬৪ টি জেলাতেই অস্ত্রসহ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যরা। কিন্তু বিশাল এই বাহিনীটির অস্ত্র ও গোলাবারুদ নিরাপদে সংরক্ষণের কোন বন্দোবস্ত নেই। সময়ের প্রয়োজনেই এই বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার গত এক যুগে নানান কর্মপ্রয়াস বাস্তবায়নের মাধ্যমে ৬১ লাখ সদস্যের এই বিশাল বাহিনীটিকে আধুনিক ও যুগোপযোগী করে তুলছে। সেই ধারাবাহিকতায় রাজধানী থেকে প্রত্যন্ত পল্লীতে বিস্তৃত এই বাহিনীটির সক্ষমতা আরও এক ধাপ বাড়িয়ে দিতে দেশের আট বিভাগের ৪০ জেলায় নির্মাণ করা হচ্ছে অস্ত্রাগার। ফলত জেলা সদরে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর অস্ত্র-গোলাবারুদ সুরক্ষিত থাকবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ও জরুরি প্রয়োজনে দ্রুত অস্ত্র-গোলাবারুদ সংরক্ষণ ও সরবরাহ করা সম্ভব হবে। এর মাধ্যমে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর জন্য একটি নতুন অধ্যায় সূচিত হতে যাচ্ছে।

জানা যায়, বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর জন্য অস্ত্র সংরক্ষণে এসব গুদাম নির্মাণ করছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ৬৪ কোটি ৬৭ লাখ টাকা ব্যয়ে এসব গুদাম নির্মাণে সরকারের নেওয়া প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিজেই।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্র মতে, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর অস্ত্রাগার (১ম পর্যায়ে ৪০টি) নির্মাণ- শীর্ষক প্রকল্পটি ইতোমধ্যেই অনুমোদন করেছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। মঙ্গলবার (১০ মে) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় এই প্রকল্পটি অনুমোদন পেয়েছে।

সূত্র জানায়, সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে প্রকল্পটি আগামী বছরের অর্থাৎ ২০২৩ সালের ৩০ জুন মেয়াদের মধ্যে শতভাগ বাস্তবায়নের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। দেশের ৮ বিভাগের ৪০টি জেলায় এসব অস্ত্রাগার নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পের উদ্দেশ্য বর্ণনা করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং অস্ত্র ও গোলাবারুদ নিরাপদে সংরক্ষণের জন্য এসব অস্ত্রাগার নির্মাণ করা হবে।

পরিকল্পনা কমিশন বলছে, প্রকল্পের আওতায় ৩৯ হাজার ৭৮৮ ঘনমিটার ভূমি উন্নয়ন করে সেখানে ১১ হাজার ৪১৪ বর্গমিটার জায়গাজুড়ে অনাবাসিক ভবন নির্মাণ করা হবে। যা অস্ত্রাগার হিসেবে ব্যবহৃত হবে। এর বাইরেও দেশের ৪০ জেলায় সিকিউরিটি পোস্ট ভবন, ড্রেন, এপ্রোন, সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হবে। অস্ত্রাগারে বহিস্থ পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা হবে। যানবাহন কেনাসহ অস্ত্রাগার এলাকায় বনায়নসহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

পরিকল্পনা কমিশন আরও জানিয়েছে, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের সরকারের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি এডিপিতে প্রকল্পটি এডিপি’তে বরাদ্দবিহীন অননুমোদিত নতুন প্রকল্প তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ছিল।
প্রকল্পটি সম্পর্কে পরিকল্পনা কমিশন জানিয়েছে, সরকারের নেওয়া ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় যে কোনও জাতীয় জরুরি অবস্থায় বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীকে কার্যকরভাবে সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীকে প্রয়োজনীয় লজিস্টিক সুবিধা প্রদানের কথা বলা হয়েছে, যার সঙ্গে এই প্রকল্পটি সঙ্গতিপূর্ণ।

একনেকে অনুমোদনের জন্য উপস্থাপনের আগে পরিকল্পনা কমিশনের মতামতে বলা হয়েছে, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে জেলা সদরে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর অস্ত্রাগার নির্মাণের মাধ্যমে বাহিনীর অস্ত্র-গোলাবারুদ সুরক্ষিত থাকবে এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ও জরুরি প্রয়োজনে দ্রুত অস্ত্র-গোলাবারুদ সংরক্ষণ ও সরবরাহ করা সম্ভব হবে।

পরিকল্পনা কমিশনের মতামতে আরও বলা হয়েছে, এমন পরিস্থিতিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ জননিরাপত্তা বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী কর্তৃক সম্পূর্ণ জিওবি অর্থায়নে বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তাবিত “আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর অস্ত্রাগার (১ম পর্যায়ে ৪০টি) নির্মাণ” শীর্ষক প্রকল্পটি মোট ৬৪ কোটি ৬৭ লাখ ৭৮ হাজার টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে বাস্তবায়নের জন্য একনেকের অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করা হলো।

কালের আলো/বিএস/এনএল

Print Friendly, PDF & Email