বাংলাদেশের আতিথিয়তায় মুগ্ধ মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 11:54 pm | November 08, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলোঃ

ইতিহাসের মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশের আতিথিয়তায় মুগ্ধ হয়েছেন দেশটিতে সফরত ভারতের মেঘালয় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড কঙ্কাল সাংমা। চারদিন যাবত বাংলাদেশে অবস্থান করে দেশটির প্রায় ৮’শ কিলোমিটার সড়ক ঘুরে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আতিথিয়তা ও বন্ধুত্বসুলভ আচরণে নিজের মুগ্ধতার কথা জানিয়েছেন তিনি।

গুরুত্ব দিয়েছেন দুই দেশের বাণিজ্য সম্প্রসারণ ও সম্পর্ক বৃদ্ধিতে। বলেছেন, ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট ও শেরপুরের নাকুগাঁও স্থলবন্দর ব্যবহার করে পণ্য আমদানি-রফতানি বাড়ানোর কথা। একজন মুখ্যমন্ত্রীর এমন ঔদার্যে যারপরেনাই খুশি ময়মনসিংহের জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা।

শুক্রবার (০৮ নভেম্বর) বিকেলে ময়মনসিংহ ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটুর সঙ্গে এক দ্বিপক্ষীয় স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বৈঠক শেষে স্থানীয় রাজনীতিক, ব্যবসায়ী ও বিশিষ্টজনদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় নিজের এমন অনুভূতির কথা জানান এ মুখ্যমন্ত্রী। এসময় মেঘালয় রাজ্যের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও তাঁর সঙ্গে ছিলেন।

ভারতের মেঘালয় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড কঙ্কাল সাংমা শুক্রবার (০৮ নভেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে ময়মনসিংহ নগরীতে পা রাখেন। এরপর বিকেলে তিনি ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটুর সঙ্গে এক দ্বিপক্ষীয় স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। পরে মুখ্যমন্ত্রী নগরীর দুর্গাবাড়ি মন্দির পরিদর্শন করেন।

সন্ধ্যায় তিনি ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন মিলনায়তনে স্থানীয় রাজনীতিক, ব্যবসায়ী ও বিশিষ্টজনদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এ সময় মুখ্যমন্ত্রী বাংলাদেশ ও ভারতের বাণিজ্য সম্পর্ক জোরালো করতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আশ্বাস দেন।

তিনি ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট ও শেরপুরের নাকুগাঁও স্থলবন্দর ব্যবহার করে পণ্য আমদানি-রফতানি বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ এ দু’টি স্থলবন্দরের ব্যবহার বাড়াতে হবে। এ দুই স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বাড়ানোর মাধ্যমে দুই দেশের ব্যবসায়ীদের সম্পর্কও উন্নত হবে। এতে উভয় দেশই ব্যবসায়িকভাবে লাভবান হবেন।’

এ মতবিনিময় সভায় ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু শেরপুরের নাকুগাঁও এবং হালুয়াঘাট স্থলবন্দর দিয়ে আসা কয়লা ও পাথর আমদানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের নানা হয়রানির কথা তুলে ধরেন। তিনি এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেন। মূলত মেয়রের দাবির সূত্র ধরেই দু’টি স্থলবন্দর নিয়ে এমন কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী।

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু পুরনো ব্রহ্মপুত্র নদ ড্রেজিং কাজ শুরু হওয়ায় জলপথে দুই দেশের ব্যবসা বাড়ানোরও প্রস্তাব দিলে তিনি সানন্দে এ প্রস্তাব গ্রহণ করেন। মেয়র বলেন, ‘পারস্পরিক বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরও জোরদার করার লক্ষে বিভিন্ন পরামর্শ যারা দিয়েছেন ভারতের পক্ষ থেকে যা যা করা দরকার তা করার আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এতে করে ভারত-বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে জানিয়ে মেয়র বলেন, ময়মনসিংহ এবং মেঘালয় রাজ্য একে অপরের পাশে থেকে আমরা একটি সুন্দর বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশ তৈরি করবো, ব্যবসা-বাণিজ্য, শিল্প-সংস্কৃতিসহ সব ক্ষেত্রে আমরা একে অপরের পাশে থাকবো।

ভারতের মেঘালয় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড কঙ্কাল সাংমা সাংবাদিকদের বলেন, মেঘালয় ও ময়মনসিংহ সীমান্তের স্থলবন্দর গুলোকে কেন্দ্র করে দুই দেশের বানিজ্য সম্প্রসারনে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে রাজ্য সরকার। তাই এই বিষয়ে নানান সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছে। দুই দেশের পারষ্পরিক সম্পর্ক বৃদ্ধিতে নতুন কি কি করা যেতে পারে খুঁজে বের করা হচ্ছে।

কালের আলো/এনএল/এমআর

Print Friendly, PDF & Email