সিন্ডিকেট ‘কূপোকাত’, সততার সঙ্গে দায়িত্বের অঙ্গীকার ইইডির প্রধান প্রকৌশলীর

প্রকাশিতঃ 9:45 pm | January 01, 2021

বিশেষ সংবাদদাতা, কালের আলো :

সমালোচনার পারদ উর্ধ্বমুখী করতেও নানাভাবে কলকাঠি নাড়া হচ্ছিল। বিতর্কের মাধ্যমে জলঘোলা করার অপচেষ্টাও কম হয়নি। সিন্ডিকেটের দৌড়ঝাঁপও ছিল লক্ষণীয়। কিন্তু দিনশেষে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অন্যতম প্রধান প্রতিষ্ঠান শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের (ইউডি) প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে রুটিন দায়িত্ব পেয়েছেন তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো.আরিফুর রহমান।

বিদায়ী বছরের মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের এক অফিস আদেশে তাকে এ পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত প্রশাসনিক ও আর্থিক ক্ষমতাসহ প্রধান প্রকৌশলীর পদে রুটিন দায়িত্ব পালন করবেন মো.আরিফুর রহমান।

গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী পদে শুন্যপদ পূরণের মাধ্যমে অধিদপ্তরটির ভেতরের-বাইরের প্রভাবশালী একটি সিন্ডিকেট ‘কূপোকাত’ হয়েছে। তবে এ বিষয়ে কোন রকম কথা না বলে নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গেই পালনে অঙ্গীকারের কথা বলেছেন নতুন প্রধান প্রকৌশলী আরিফুর রহমান।

একই সঙ্গে তাঁর প্রতি আস্থা রাখায় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শিক্ষামন্ত্রী ডা.দীপু মনি, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো.মাহবুব হোসেন এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো.আমিনুল ইসলাম খানের প্রতিও আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

কালের আলোকে তিনি বলেছেন, ‘সবার সম্মিলিত প্রয়াসেই আমি শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরকে (ইইডি) একটি অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে চাই। অনিয়ম ও দুর্নীতিমুক্ত একটি অধিদপ্তর হিসেবে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে চাই।’

জানা যায়, গত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে আলোচিত এ প্রতিষ্ঠানটির প্রধানের পদে কে বসবেন এ নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা ছিল। গত বছরের ১৯ নভেম্বর ইইডির প্রধান প্রকৌশলী বুলবুল আখতার অবসরে যান। এরপর ওইপদে কাউকে চলতি কিংবা রুটিন দায়িত্বও দেয়া হয়নি।

ফলে আপদকালীন কাজ চালানোর মতো কেউ না থাকায় সংস্থাটি বেশ জটিলতার পড়ে। এরই মধ্যে বিদায়ী প্রধান প্রকৌশলী চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের আবেদন করা হলে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে ওই আবেদনে সাড়া মেলেনি। এমন অবস্থায় বিতর্কমুক্ত একজন কর্মকর্তাকে এ অধিদপ্তরটির প্রধান প্রকৌশলীর দায়িত্ব দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সূত্র জানায়, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীর দায়িত্ব পালন করে আসা আরিফুর রহমানকেই সরকারের শীর্ষ মহল এ পদের জন্য উপযুক্ত বলে মনে করে তাকে প্রধান প্রকৌশলীর রুটিন দায়িত্ব দিতে অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীরও চলতি দায়িত্ব দিয়ে আদেশ জারি করা হয়।

অভিযোগ রয়েছে, দক্ষ ও প্রাজ্ঞ আরিফুর রহমানকে এ পদে নিয়োগের বিরোধীতা করে অধিদপ্তরটির ভেতরের-বাইরের একটি সিন্ডিকেট নানাভাবে সক্রিয় হয়ে উঠে। তাঁরা এক্ষেত্রে কল্পিত নানা অভিযোগ সামনে এনে প্রোপাগান্ডা ছড়াতে থাকে। এমনকি তাকে নিয়োগের পরেও চক্রটি নিজেদের কূটকৌশলী ভূমিকা থেকে সরে আসেনি।

কিন্তু সরকারি শীর্ষ মহলের আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্তের পর প্রতিষ্ঠানটির বেশিরভাগ কর্মকর্তাই তাকে স্বাগত জানিয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। আরিফুর রহমানও নিজের অধিদপ্তরের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে নিয়েই শিক্ষা অধিদপ্তরটিকে খোলনলচে পাল্টে নব উদ্যমে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন।

এরপর গত শুক্রবার (২৫ ডিসেম্বর) তিনি টুঙ্গিপাড়ায় মহান জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তাঁর নেতৃত্বে পূর্ণ আস্থা রেখেই তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শাহ নাইমুল কাদেরসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

কালের আলো/এসআর/জিকে

Print Friendly, PDF & Email