ত্যাগ-আনন্দে পালিত হচ্ছে ঈদুল আজহা, নামাজ শেষে পশু কোরবানিতে ব্যস্ত দেশবাসী

প্রকাশিতঃ 1:15 pm | August 01, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

ত্যাগ আর আনন্দঘন পরিবেশের মধ্য দিয়ে সারাদেশে ঈদুল আজহা পালিত হচ্ছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে কোথাও ঈদগাহে জামাত হয়নি। মসজিদের যথাযথ নির্দেশনা মেনে সকালে ঈদের জামাত হয়েছে। ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর এই পবিত্র দিনে পশু কোরবানির মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি খুঁজছেন মুসলমানরা। এছাড়া ঘরে ঘরে আনন্দের বন্যা বয়ে যাচ্ছে।

নামাজ আদায় শেষে পশু কোরবানিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন নগরবাসী। কাকডাকা ভোরে ঘুম ভেঙে পশুকে কোরবানি করার জন্য গোসল করিয়ে প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে।

এ ছাড়া গোসলের পর জামাকাপড় পরিধান করে এবং আতর-সুগন্ধি মেখে মসজিদে নামাজ আদায় করেছেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। স্বাস্থ্যবিধি বজায় রেখে নির্দিষ্ট দূরত্বে বসে এবং মাস্ক পরিধান করে মুসল্লিরা নামাজ আদায় করেন।

মসজিদের ইমাম খুতবা পড়ার সময় কীভাবে কোরবানি করতে হবে, কোরবানির মাংস কীভাবে বিলিবণ্টন করতে হবে ইত্যাদি সম্পর্কে বয়ান করেন। এ ছাড়া বয়ানে মহামারি করোনাভাইরাস ও চলমান বন্যা থেকে দেশবাসীকে রক্ষার জন্য মহান আল্লাহর দরবারে ফরিয়াদ জানান। নামাজ আদায় শেষে আল্লাহর কাছে দেশের মঙ্গল কামনায় মোনাজাত করা হয়।

অন্যান্য বছরের মতো এবার ঈদের নামাজ আদায় শেষে প্রচলিত রেওয়াজ অনুযায়ী কোলাকুলি করেননি মুসল্লিরা। নামাজ আদায় শেষে মুসল্লিরা কোরবানির পশু জবাইয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে আজ সর্বমোট ছয়টি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে দেখা যায়, বায়তুল মোকাররমে ছয়টি জামাত ছাড়া অন্য সব মসজিদে সকাল ৭টা থেকে ৮টার মধ্যে নামাজ শেষ হয়। এরপর চলে পশু কোরবানি। রাজধানীর প্রতিটি অলিগলিতে গরু জবাই শুরু হয়।শনির আখড়া এলাকার বাসিন্দা আক্তার হোসেন বলেন, ‘সকাল ৭টায় নামাজ শেষে গরু জবাই করেছি। এখন মাংস বণ্টন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছি।’ একইভাবে রাজধানীর সব এলাকায় গরু জবাইয়ের চিত্র দেখা যায়।

কালের আলো/এসবি/এমআরকে

Print Friendly, PDF & Email