তামাক পণ্যে উচ্চহারে কর বসানো প্রয়োজন : ডেপুটি স্পিকার

প্রকাশিতঃ 9:15 pm | June 10, 2024

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, কালের আলো:

জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. শামসুল হক টুকু বলেছেন, তামাকজাত পণ্যের ওপর উচ্চহারে কর বসানো প্রয়োজন। পাশাপাশি আগামী অর্থবছরের বাজেটে বিড়ি ও সিগারেটের ওপর কম শুল্ক আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সোমবার (১০ জুন) জাতীয় সংসদ ভবনের শপথকক্ষে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, ডিটি গ্লোবাল ও সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের সহযোগিতায় জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের বাজেট অ্যানালাইসিস ও মনিটরিং ইউনিট (বামু) আয়োজিত ‘বাজেট হেল্প ডেস্ক ২০২৪’ এর আওতায় ‘সংসদ সদস্যদের জন্য ডিব্রিফিং সেশন-৩ ও ৪’ অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব কে এম আব্দুস সালাম। সঞ্চালনা করেন প্রকল্প পরিচালক এবং অতিরিক্ত সচিব এম এ কামাল বিল্লাহ এবং সূচনা বক্তব্য দেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের পার্লামেন্ট বিষয়ক মুখ্য বিশেষজ্ঞ ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম। পরে ‘রাজস্ব আহরণে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগ’ বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম এবং ‘জাতীয় বাজেটে যুব ও নারীদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে বরাদ্দ ও বাস্তবায়ন’ বিষয়ে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান নাসরিন আফরোজ আলোচনা করেন।

এ সেশনে বিশেষ অতিথি হিসেবে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. শামসুল হক টুকু এমপি, চিফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী এমপি, যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রী নাজমুল হাসান এমপি, সরকারি প্রতিষ্ঠান কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এমপি এবং অনুমিত হিসাব কমিটির সভাপতি ক্যাপ্টেন এ বি এম তাজুল ইসলাম এমপি উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি মার্গা পিটারাসও সেশনে উপস্থিত ছিলেন।

ডেপুটি স্পিকার বলেন, তামাকজাত পণ্যকে নিরুৎসাহিত করার লক্ষ্যে উচ্চহারে কর বসানো প্রয়োজন। আগামী বছরের প্রস্তাবিত বাজেটে বিড়ি ও সিগারেটের ওপর যে শুল্কের প্রস্তাব করা হয়েছে তা খুবই কম।

মো. শামসুল হক টুকু বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে দক্ষ জনশক্তি তৈরির কোনো বিকল্প নেই। তরুণ প্রজন্মকে মেধাবী ও কর্মক্ষম হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে এবং তাদের পুষ্টি চাহিদা পূরণে বিদ্যালয়ে দুধ ও ডিম প্রদানের গৃহীত প্রকল্পের সম্প্রসারণ করা প্রয়োজন।

এসময় প্রশ্নোত্তর পর্বে সংসদ সদস্যরা তৃণমূল পর্যায়ে ট্যাক্স প্রদানে সচেতনতা তৈরি, ব্যক্তি পর্যায়ে ট্যাক্স হার কমানো ও কর্পোরেট খাতের ট্যাক্স বৃদ্ধির মাধ্যমে সরকারের রাজস্ব আহরণে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেন।

বাজেট ডিব্রিফিং সেশনে আশ্রাফুন নেছা এমপি, আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী এমপি, কানন আরা এমপি, আলাউদ্দিন আহম্মেদ চৌধুরী এমপি, সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহীম বীরপ্রতীক এমপি, আরমা দত্ত এমপি, মো. নজরুল ইসলাম বীরপ্রতীক এমপিসহ সংসদ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, সিপিডি, ডিটি গ্লোবাল, বামু-এর সদস্যরাসহ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কালের আলো/ডিএইচ/কেএ

Print Friendly, PDF & Email