বাংলাদেশ এখন দুই ভাগে বিভক্ত: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 7:46 pm | August 26, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বাংলাদেশ এখন দুই ভাগে বিভক্ত। আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী লীগ বিরোধী। একদিকে মুক্তিযুদ্ধের সমমনা ও উল্টোদিকে যারা তাদের কোনো আদর্শ নেই। অগ্নি সন্ত্রাস, এতিমের অর্থ আত্মসাত, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে গ্রেনেড দিয়ে উড়িয়ে দেয়া এগুলো কোনো আদর্শ হতে পারে না। যুদ্ধের সময়টা মুজিবের নামে যুদ্ধ হয়েছে। দেশ স্বাধীনের পর এদেশ মুজিবের দেশ নামে পরিচিত।

শুক্রবার (২৬ আগস্ট) দুপুরে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা চত্ত্বরে আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ জাতি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার মহানায়ক’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সংকীর্ণতা কোনো রাজনীতি হতে পারে না। অগ্নি–সন্ত্রাস, এতিমের হক নষ্ট, গ্রেনেড হামলা, বোমা হামলা কোনো আদর্শ হতে পারে না। কিন্তু একটি পক্ষ দীর্ঘদিন ধরে সে কাজটিই করে আসছে। বঙ্গবন্ধুর রক্তকে তাদের ভয়। গত ৪১ বছরে তারা বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে অন্তত ২১ বার হত্যা চেষ্টা করেছে।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু মানুষকে নিয়ে রাজনীতি করতেন। মানুষের হৃদয় বুঝতেন। ৭ মার্চের ভাষণের মধ্য দিয়ে তিনি স্বাধীনতার রূপরেখা দিয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই সবাইকে এগিয়ে যেতে হবে। তাঁর অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে হবে। কিন্তু ঘাতকেরা এখনো সক্রিয়। তারা আরও একটি ১৫ আগস্ট ঘটাতে চায়। এ বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। বঙ্গবন্ধু হত্যায় যাঁরা শুধু বন্দুক হাতে ছিলেন, তাঁদের বিচার হয়েছে। কিন্তু এই হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে যাঁরা কুশীলব ছিলেন, তাঁদের এখনো বিচার হয়নি। তাঁদের বিচারের দাবি জোরালো হচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে দীপু মনি বলেন, শুধু স্লোগান নয়। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করতে হবে। ঠিকমতো পড়ালেখা করতে হবে। ভালো সংগঠক ও নেতা হতে হবে। তবেই এক দিন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করা যাবে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন আনছি। শিক্ষাকে জাতির উন্নতি ও আনন্দময় করতে চেষ্টা করছি। শিক্ষা যেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় হয়, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বান্ধব হয় সেই চেষ্টাই করছি। এছাড়া মানবিক ও সৃজনশীল মানুষ যেন আমরা তৈরি করতে পারি তার জন্য চেষ্টা চলছে।

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন পাবনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য নুরুজ্জামান বিশ্বাস, পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য আহমেদ ফিরোজ কবির, বিশ্ববিদ্যালয়ের রিজেন্ট বোর্ডের সদস্য ও সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের সংসদ সদস্য মেরিনা জাহান কবিতা, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান, অ্যাটকোর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, বাংলাদেশ সরকারি কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. নূরজাহান বেগম ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খান।

অনুষ্ঠানে শিক্ষকদের মাঝে গবেষণা সম্মাননা স্মারক তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী। অনুষ্ঠানের শুরুতে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। এর আগে ডা. দীপু মনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষ স্মারক ‘জনক জ্যোতির্ময়’ ম্যুরালে শ্রদ্ধা জানান।

কালের আলো/ডিএস/এমএম

Print Friendly, PDF & Email