সীতাকুণ্ডের অগ্নিকাণ্ডে ফায়ার সার্ভিসের ৫ কর্মী নিহত : ডিজি

প্রকাশিতঃ 10:47 am | June 05, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করার সময় ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের পাঁচ কর্মী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ২১ জন ফায়ার ফাইটার।

রোববার (৫ জুন) সকাল ১০টার দিকে ঘটনাস্থলে ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার মো. মাইন উদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘শনিবার রাত ১১টা ২৫ মিনিটে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। এসময়ে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে ফায়ার ফাইটাররাও হতাহত হয়েছেন। এরমধ্যে এখন পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন আরও ২১ জন।’

ব্রিগেডিয়ার মো. মাইন উদ্দিন বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আমরা ১৫ জন নিহতের তথ্য পেয়েছি। এছাড়া দুই শতাধিক আহতের খবর আছে আমাদের কাছে। তবে মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কেউ মারা যেতে পারেন। ফলে হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।’

তিনি বলেন, কন্টেইনারের ভেতরে বিপুল পরিমাণ কেমিকেল রয়েছে। কিন্তু কোন কনটেইনারে কি কেমিকেল আছে সেটা আমাদের জানা নাই। একেকে কেমিকেলের ধরন একেকরকম। এজন্য আমাদের আগুন নেভাতে বেশ সময় লাগছে।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাইন উদ্দিন জানান, আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের প্রধান কার্যালয় থেকে একটি বিশেষায়িত দল ডাকা হয়েছে, যারা কেমিকেলের আগুন নেভাতে বিদেশে প্রশিক্ষণ নিয়ে এসেছেন।

জানা গেছে, প্রতিদিনের মতো কর্মচঞ্চল এ কনটেইনার ডিপোটিতে হঠাৎ গতকাল শনিবার রাত ৯টার দিকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যে আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়ে। কেমিক্যালের কয়েকটি কনটেইনারে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। মুহূর্তেই আশপাশের চার থেকে পাঁচ কিলোমিটার এলাকার অনেক বাসা-বাড়ির জানালার কাঁচও ভেঙে পড়ে এ বিকট শব্দে। এর মধ্যে দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ায় হতাহত বাড়তে থাকে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে। কিন্তু, ডিপোটিতে থাকা কিছু কনটেইনারে রাসায়নিক পদার্থ থাকায় আগুন নিয়ন্ত্রণে বেগ পেতে হয় ফায়ার সার্ভিসসহ সংশ্লিষ্টদের।

এ ঘটনার পর আহত ব্যক্তিদের দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে, একসঙ্গে এত রোগীর চিকিৎসা দিতে হিমশিম অবস্থা চমেক হাসপাতালের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের। পরে চট্টগ্রামের জেনারেল হাসপাতাল, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালসহ (সিএমএইচ) বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে আহত ব্যক্তিদের পাঠানোর উদ্যোগ নেয় প্রশাসন।

এদিকে, মানবিক কাজে সব স্বাস্থ্যকর্মী এগিয়ে এসেছেন বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা. মো. ইলিয়াছ চৌধুরী। এ ছাড়া পরিস্থিতি মোকাবিলায় হাসপাতালসহ সব চিকিৎসককে প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য ও বিভাগীয় প্রশাসন।

কালের আলো/ডিএস/এমএম

Print Friendly, PDF & Email