শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশ বিশ্ববাসীর অকুণ্ঠ প্রশংসা অর্জন করেছে : আইজিপি

প্রকাশিতঃ 7:51 pm | May 28, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) বলেছেন, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যদের পেশাদারিত্ব, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতা বিশ্ববাসীর অকুণ্ঠ প্রশংসা অর্জন করেছে। আগামীতেও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশ পুলিশের ভূমিকা সমুজ্জ্বল থাকবে -এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

তিনি বলেন, বিশ্ব মানবতার কল্যাণ ও বৈশ্বিক ভ্রাতৃত্ববোধে উজ্জীবিত হয়ে বাংলাদেশ পুলিশের অকুতোভয় সদস্যগণ সকল দুর্যোগ ও প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে বিশ্বশান্তি রক্ষায় আন্তরিকভাবে কাজ করতে অঙ্গীকারাবদ্ধ।

রোববার (২৯ মে) আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে আইজিপি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিশ্ব মানবতার কল্যাণ ও শান্তি স্থাপনে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের অভিযাত্রা সূচিত হয় ১৯৮৯ সালে। সেই থেকে বাংলাদেশ পুলিশের নির্ভীক সদস্যগণ গত তিন দশকেরও বেশী সময় ধরে বিশ্বের নানা প্রান্তে আমাদের লাল-সবুজ পতাকা উড়িয়ে শান্তিরক্ষার দৃঢ় প্রত্যয়ে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

পুলিশ প্রধান বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের পক্ষ থেকে বিশ্বের যুদ্ধবিধ্বস্ত ও সংঘাতপূর্ণ বিভিন্ন দেশে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নিয়োজিত সকল শান্তিরক্ষীকে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। বিশ্ব শান্তিরক্ষার সুমহান দায়িত্ব পালনকালে জীবন উৎসর্গকারী ও আহত সকল শান্তিরক্ষীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি। তাঁদের পরিবারবর্গের প্রতি জানাচ্ছি আন্তরিক সমবেদনা।

তিনি বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অধিকার বঞ্চিত, শোষিত, নির্যাতিত মানুষের মুক্তির মহানায়ক। তিনি শুধু বাঙালি জাতির জন্যই সংগ্রাম করেননি, বিশ্বের নির্যাতিত মানুষের অধিকার আদায়েও ছিলেন বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর, মানবিকতার এক প্রোজ্জ্বল বাতিঘর।

ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, মানুষের অধিকার আদায় ও বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধুর অঙ্গীকার আমাদের মহান সংবিধানেও প্রতিফলিত হয়েছে। আমরা গভীরভাবে বিশ্বাস করি, সাংবিধানিক এ অঙ্গীকার পূরণে বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ আমাদের পবিত্র দায়িত্ব।

তিনি আরও বলেন, সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি-ভ্রাতৃত্বের মেলবন্ধনে যুদ্ধ ও সংঘাতমুক্ত আগামীর পৃথিবী হোক সকলের জন্য নিরাপদ ও শান্তিপূর্ণ আবাসস্থল। বিশ্বায়নের এ যুগে বিশ্বপল্লীর প্রতিটি নাগরিক হোক শান্তি ও সমৃদ্ধির অংশীজন।

আইজিপি এ সময় ‘আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস ২০২২’ এর সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

আরও পড়ুন:

কালের আলো/এসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email