ইইডিতে ‘উন্নয়ন বিপ্লবী’ দেওয়ান হানজালা

প্রকাশিতঃ 10:47 am | November 05, 2018

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, কালের আলো :
শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে (ইইডি) তাকে বলা হচ্ছে একজন ‘উন্নয়ন বিপ্লবী’। রুটিন দায়িত্বের মধ্যে নিজেকে সীমাবদ্ধ না রেখে সরকারের ভিশন ও নিজের দেশপ্রেমিক চেতনার বহি:প্রকাশের মাধ্যমে পুরো অধিদপ্তরে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতার পাশাপাশি গতিশীলতাও এনেছেন।

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের দুই মেয়াদে প্রায় সাড়ে ১০ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ কাজ শেষ করে আরো প্রায় ৯ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নতুন ভবন নির্মাণের কাজও চলছে পুরোদমে। নতুন নতুন ভবন নির্মাণের মধ্যে দিয়ে বদলে গেছে দেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চেহারা।

কার্যত শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে অভূতপূর্ব উন্নয়ন নিশ্চিত করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন অধিদপ্তরটির প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা। অবশ্য এমন কৃতিত্ব নিজের বলতে নারাজ জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, একাত্তরের এই মুক্তি সংগ্রামী।

তাঁর ভাষ্যে- শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অবকাঠামো বিপ্লবের এই কৃতিত্ব সরকার প্রধান শেখ হাসিনা ও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের। অবশ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো খাতে এমন বৈপ্লবিক পরিবর্তনের কার্যক্রম তদারকি করে নিজের অবস্থানকেও প্রকারান্তরে উজ্জ্বল করেছেন হানজালা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিকল্পিত উন্নয়নের মাধ্যমে ব্যাপক সাফল্যের স্বাক্ষী হিসেবে যুগ-যুগান্তর উচ্চারিত হবে তাঁর নামটি।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২৯ জুন শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী পদে নিয়োগ পান হানজালা। ২০১৬ সালের ২১ জুন চুক্তিতে ইইডি’র প্রধান প্রকৌশলী নিয়োগ দেওয়া হয়। এরপর চলতি বছরের মঙ্গলবার (১৭ জুলাই) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালার চুক্তির মেয়াদ এক বছর বাড়ায় সরকার।

সূত্র জানায়, দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা সততা, নিষ্ঠা ও যোগ্যতার মধ্যে দিয়ে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরকে সব বিভাগের মধ্যে ‘মডেল’ হিসেবে গড়ে তোলার কারণেই ‘গাত্রদাহ’ তৈরি হয় মহল বিশেষের। তাঁরা তাকে এই পদ থেকে সরিয়ে দিতে নানা উদ্ভট, বিভ্রান্তিকর, মিথ্যা ও অবিশ্বাসযোগ্য কথা রটিয়ে মিথ্যাচারের বেসাতি করে চক্রটি। কিন্তু ইইডিকে বদলে দেওয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা এই প্রধান প্রকৌশলী’র ওপরই আস্থা রাখেন বঙ্গবন্ধু কন্যা ও শিক্ষামন্ত্রী।

জানা যায়, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয়ে কাজ করছেন দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা। বর্তমান সরকার বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা রূপায়নে কাজ করছে। শিক্ষা সেখানে অগ্রাধিকার পেয়েছে। আর সেই অগ্রাধিকারকে বাস্তব ভিত্তি দিতে তাঁর দক্ষ নেতৃত্ব অবকাঠামো উন্নয়নে রীতিমতো বিপ্লব ঘটিয়েছে। তাঁর কর্মকৌশল ইইডি থেকে শুরু করে সর্বত্রই প্রশংসিত হচ্ছে।

সূত্র মতে, চলতি অর্থ বছরে ৮ হাজার ৭৮৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একযোগে ভবন নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে গত বছরের জুন পর্যন্ত প্রকল্পভুক্ত মোট ১২ হাজার ৪৯৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভবন নির্মাণের মধ্যে সাড়ে ১০ হাজার প্রতিষ্ঠানে নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয়েছে।

প্রায় ৯ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নতুন ভবন নির্মাণের কাজ ২০২০ সালের মধ্যে শেষ হবে। উন্নত অবকাঠামোসহ নানা সুবিধা পেলে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা গ্রহণে উৎসাহিত হবে বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষক মহল।

কালের আলো/এনএল

Print Friendly, PDF & Email