আমি ঘটনাটি সামাল দেয়ার চেষ্টা করেছি : ইমন

প্রকাশিতঃ 6:11 pm | December 06, 2021

নিজস্ব সংবাদদাতা, কালের আলো:

ঘুম থেকে উঠেই নেট দুনিয়ায় ঘুরপাক খাচ্ছে একটি অডিও ক্লিপ। যা ইতোমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে। যেখানে শোনা যায়, অশ্লীল ভাষায় চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহিকে দেখা করার জন্য বাধ্য করছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। সেখানে কথা বলতে শুনতে পাওয়া যায় চিত্রনায়ক ইমনকেও।

মূলত প্রতিমন্ত্রী ও এই নায়কের কথোপকথনটিই ভাইরাল হয়েছে। যেখানে মাহি ছিলেন তৃতীয় পক্ষ। এ বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছেন নায়ক ইমন।

তিনি বলেছেন, অডিও ক্লিপটি সঠিক। অপর প্রান্তে ছিলেন প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। তবে ঘটনাটা দুই বছর আগের। একটি ছবির মহরত অনুষ্ঠানের আগের রাতে ফোন দেন প্রতিমন্ত্রী।

ইমন বলেন, কল রেকর্ডে তো পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে, আমি হয়ত শুটিংয়ে ছিলাম, ব্যস্ততার জন্য তার (প্রতিমন্ত্রী মুরাদ) ফোন ধরতে পারিনি। এ কারণে তিনি সে রাতে ফোন দিয়ে রাগারাগি করেন। ওই সময়ে আমি আর মাহি ‘ব্লাড’ সিনেমা নিয়ে একটা মিটিং করছিলাম পরিচালক সুমন ভাইয়ের সঙ্গে। তখন তিনি (প্রতিমন্ত্রী) আমাদেরকে যেতে বলেন। এখন পরিস্থিতি সামাল তো দিতে হবে। আমরা তো একটি মিটিংয়ে ছিলাম। এজন্য বারবার বলছিলাম, ‘ভাইয়া দুই মিনিট, নামতেছি’।

তিনি আরও বলেন, উনার মতো একজন মন্ত্রীর সঙ্গে তো আমি ভদ্রভাবে ছাড়া খারাপভাবে কথা বলতে পারি না। আমার এখানে কী দোষ? একজন মন্ত্রী যদি ফোন দেয়, আমি কী বলতে পারি? এতো বড় একজন মানুষ, আমি থতমত খেয়ে গেছি।

ইমন আরও বলেন, আমি যে মাহিকে নিয়ে গেছি, এমন কোনও কথা সেখানে নেই। আমি কিন্তু যাইনি। আমি শুধু সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেছি। পরে আমরা সিনেমার কাজ নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। এরপর তিনি আর বিষয়টি নিয়ে তেমন কথা বলেননি। তবে আরও একটা বিষয়, আমাদের মহরত হয়েছিল কিন্তু ২০২০ সালের মার্চের প্রথম সপ্তাহে। এরপরই তো করোনা শনাক্ত হলো (৮ মার্চ)। ঢাকা শহর লকডাউনে গেলো। আমরা কিন্তু যে যার মতো ঘরে ঢুকে গেলাম।

তিনি বলেন, মাহিকে যে এভাবে প্রতিমন্ত্রী গালিগালাজ করেছেন, আমি জানতাম না। মাহির হাতে ফোনটা দিয়ে আমি তখন ডিরেক্টরের সঙ্গে স্ক্রিপ্ট নিয়ে কথা বলছিলাম। প্রতিমন্ত্রীর ফোনটি আমার নম্বরে এলেও আমার সেটে রেকর্ডিং অপশনই নেই। আর মাহিও তো একজন আর্টিস্ট। নিশ্চয়ই তিনি সহজভাবে নিতে পারেননি। এরপর কাজ শেষ করে আমরা বাসায় চলে যাই। হঠাৎ করে দেখি ফোন আলাপটি ভাইরাল হয়ে গেছে। এ নিয়ে কী বলা উচিত আমি নিজেও জানি না। রেকর্ডটি শুনে খুব মর্মাহত হলাম।

এদিকে, বিষয়টি নিয়ে মাহির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। জানা যায়, তিনি সৌদি আরবে স্বামীসহ ওমরাহ পালন করতে গেছেন। ম্যাসেঞ্জারে কল দিলে মাহি ফোন তোলেননি। এমনকি এসএমএস এর উত্তর দেননি।

কালের আলো/ডিএসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email