২০ বছর মেয়াদী মহাপরিকল্পনায় পুলিশ; আনন্দময় মিলনমেলায় অভিষেক বিপিএসএ’র

প্রকাশিতঃ 5:22 am | October 07, 2021

বিশেষ সংবাদদাতা, কালের আলো :

বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের (বিপিএসএ) নতুন কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান। একবিন্দুতে এসেই যেন মিলিত হয়েছেন সবাই। ভিন্ন এক আমেজ। সব প্রিয় মুখের উপস্থিতিতে সরগরম মিরপুর পুলিশ কনভেনশন হল। জ্যেষ্ঠদের উপস্থিতিতে প্রাণের উচ্ছ্বাস তরুণ কর্মকর্তাদের।আনন্দময় এক মিলনমেলা। আক্ষরিক অর্থেই কী না প্রাণের মেলা!

অনিন্দ সুন্দর এই মিলন মোহনায় এক মঞ্চ ভাগাভাগি করছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, আইজিপি ড.বেনজীর আহমেদ, বিপিএম (বার) ও ডিএমপি কমিশনার মো.শফিকুল ইসলাম। ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো.মনিরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান।

মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) অভিষেক অনুষ্ঠানটি আরও পূর্ণতা পেলো বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি কবির বিন আনোয়ার ও মহাসচিব মো. খলিলুর রহমানের আবেগ-ভালোবাসার সংমিশ্রণ মেশানো কথামালায়।

দেশের যে কোন দুর্যোগ-দুর্বিপাকে প্রথম ভরসার নাম দেশপ্রেমী পুলিশ বাহিনীর প্রধানমন্ত্রীর জাদুকরি নেতৃত্বে উন্নয়ন অগ্রযাত্রার যুগে বদলে যাওয়া, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ দমনে দেশ-বিদেশে প্রশংসা, করোনাকালে বীরোচিত ভূমিকা, আত্নত্যাগ আর অর্জনের গল্পগুলো প্রাধান্য পেয়েছে আলোচনায়।

পেশাগত উৎকর্ষ আনয়ন ও সমস্যার সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের প্রাচুর্য ভরপুর ও সৌন্দর্যপূর্ণ এই অনুষ্ঠানেই আরও দক্ষ ও শক্তিশালী পুলিশ বাহিনী গড়ে তুলতে সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকারের কথা জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান কামাল।

‘এসেছি অনেক দূর, যেতে হবে বহুদূর’- এই মন্ত্রে শাণিত পুলিশপ্রধান ড.বেনজীর আহমেদ আধুনিক, দক্ষ ও যুগোপযোগী পুলিশ বাহিনী গড়তে ২০ বছর মেয়াদী মহাপরিকল্পনার প্রস্তাবনাও তুলেছেন সর্বোচ্চ গুরুত্বের সঙ্গেই।

বলেছেন, আত্মমর্যাদাশীল পুলিশ বাহিনী গড়তে নিজেদের স্বপ্ন, সংগ্রাম, সংকল্প আর দুর্বার গতিতে কাজ করে যাওয়ার অদম্য মানসিকতার কথাও।

সেই পুলিশ, এই পুলিশ এক নয়
পুলিশ বদলে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশনারি লিডারশীপ বদলে দিয়েছে পুলিশকে। বিগত সময়ের পুলিশ আর এখনকার পুলিশ এক নয়, সব সময় অমিত দৃঢ়তায় বলেন, টানা দ্বিতীয়বার দায়িত্ব পালন করে আসা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি।

তিনি বলেন, করোনা মহামারির সময় পুলিশ ফ্রন্টলাইন ফাইটার হিসেবে কাজ করছে। সন্তান যখন তার মায়ের দাফন না করে পালিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ সেই সময় দাফন সম্পন্ন করেছে। ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিয়েছে। ব্যবস্থা করেছে চিকিৎসার। তাই বিগত সময়ের পুলিশ আর এখনকার পুলিশ এক নয়। মহামারির সময় শত শত পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তারপরও জনগণকে সেবা দিতে পিছপা হয়নি। দেশের মানুষ এখন পুলিশকে সম্মান করে।

দেশ-বিদেশে পুলিশের প্রশংসার সারকথা জানিয়ে আসাদুজ্জামান খান বলেন, আমরা দেশ-বিদেশে সর্বত্রই আমাদের দেশের পুলিশের প্রশংসা শুনতে পাই। বাংলাদেশ পুলিশ অত্যন্ত দক্ষতা, নিষ্ঠাবান ও কর্তব্যপরায়ণ হয়ে দেশের মানুষের জন্য কাজ করছে। শুধু জঙ্গিবাদ নয়, যে কোনো চ্যালেঞ্জ সফলভাবে মোকাবিলা করে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে পুলিশ।

পুলিশে সংস্কার, মহাপরিকল্পনায় জোর আইজিপির
২০৪১ সালের উন্নত ও ধনী দেশের উপযোগী পুলিশ বাহিনী গড়তে ২০ বছর মেয়াদী এক মহাপরিকল্পনার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন আইজিপি ড.বেনজীর আহমেদ। তিনি নিজ বাহিনীর ব্যাপক সংস্কারের বিষয়েও জোর দিয়েছেন।

সময়ের চেয়েও প্রাগ্রসর পুলিশের এই সর্বোচ্চ কর্মকর্তা
বলেছেন, ‘পুলিশকে আধুনিক, দক্ষ ও সময়োপযোগী করে গড়ে তুলতে ব্যাপক সংস্কার করতে হবে।’ নিজের বক্তব্যে আইজিপি কমপক্ষে ৫ বার উচ্চারণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাম।

ড.বেনজীর বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের তত্ত্বাবধানে আত্মমর্যাদাশীল পুলিশ বাহিনী গড়তে আমরা দুর্বার গতিতে কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন সামাজিক প্রত্যাশা, রাষ্ট্রের ডিমান্ড পূরণে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে বলে আমি আশা করছি।’

বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের এই প্রধান পৃষ্ঠপোষক নবগঠিত কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘আশা করি আগামী এক বছর এই কমিটি তাদের দায়িত্ব অত্যন্ত সফলভাবে পালন করবে। পুলিশের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এই কমিটি কাজ করবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা গত দুই বছর ধরে মহামারির মধ্যদিয়ে সময় পার করছি। এসময় বাংলাদেশ পুলিশের ১২৬ সদস্য করোনাকালীন দায়িত্ব পালনকালে জীবন উৎসর্গ করেছেন। ২৬ হাজারে বেশি পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, ২৫ হাজারের বেশি সদস্য সুস্থ হয়ে আবারও দেশপ্রেমে মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেছেন।’

সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় বিপিএসএ
বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের (বিপিএসএ) গত কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম। তিনি ওই সময় গুরুত্বপূর্ণ কাজের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন প্রধানমন্ত্রীর ভিশন সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ইতোমধ্যে পুলিশ তার সক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমার সময়ে গত বছর মহামারি করোনার কারণে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দুই কোটি টাকা সহায়তা তুলে দিয়েছি। এছাড়া অসহায় জনগণের মাঝেও খাবার বিতরণ করা হয়েছে। করোনাকালে পুলিশের যেসব সদস্য জীবন উৎসর্গ করেছেন, তাদের আমরা সাধ্যমতো সহায়তা করেছি। সর্বশেষে নতুন কমিটি তাদের দক্ষতা ও যোগ্যতায় পুলিশ বাহিনীকে আরও অনন্য ভূমিকায় আসিন করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করছি।’

প্রধানমন্ত্রীর ডেল্টাপ্ল্যান বাস্তবায়নে নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে পুলিশ
দেখতে দেখতেই মিলনমেলায় বিদায়ের সুর। শিক্ষা, প্রজ্ঞা, মেধা ও আত্নার মননকে বিকশিত করার প্রাণবন্তকর অভিষেক অনুষ্ঠানের শেষ বক্তা, অনুষ্ঠানের সভাপতি; বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের (বিপিএসএ) সভাপতি এসবি প্রধান মো. মনিরুল ইসলাম। পুলিশ পরিবারের সদস্যদের জন্য দিনটিকে আনন্দের বলেই উল্লেখ করলেন তিনি।

বলতে থাকলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশ সরকারের সবচেয়ে অনুগত বাহিনী। বাংলাদেশ পুলিশের গৌরবময় ইতিহাসের উত্তরাধিকারী হতে পেরে আমরা গর্ববোধ করি।’

প্রধানমন্ত্রীর ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়নে বাংলাদেশ পুলিশ নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে যোগ করে তিনি বলেন, ‘বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এই দেশেও অপরাধের ধরন পরিবর্তন হচ্ছে। অপরাধীরাও তাদের অপরাধের কৌশল প্রতিনিয়ত পরিবর্তন করছে। তাদের প্রতিরোধে বাংলাদেশ পুলিশকেও যুগোপোযোগী করে গড়ে তোলা হচ্ছে।

শুধু করোনাকালীন নয়, যে কোনো দুর্যোগ মোকাবিলায় অতীতের ন্যায় ভবিষ্যতেও বাংলাদেশ পুলিশ এদেশের মানুষের পাশে থাকবে।’

অনুষ্ঠানে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি ড.মঈনুর রহমান চৌধুরী, মো.নাজিবুর রহমান, র‌্যাব ডিজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন, অতিরিক্ত আইজিপি মোশাররফ হোসেন, এস এম রুহুল আমিন, ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান, ইব্রাহিম ফাতেমীসহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কালের আলো/জিকেএম/এমএএএমকে

Print Friendly, PDF & Email