ব্যারিস্টার মইনুলকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে ১৫ বিশিষ্ট নাগরিকের বিবৃতি, সংবাদ বর্জনের আহ্বান

প্রকাশিতঃ 4:19 pm | October 20, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:
একাত্তর টেলিভিশনের টকশো’তে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্য করায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে বিবৃতি দিয়েছেন দেশের ১৫ জন বিশিষ্ট নাগরিক। অন্যদিকে আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের সব ধরনের সংবাদ সাত দিনের জন্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছেন নারী সাংবাদিকরা।

বিশিষ্ট নাগরিকদের সাক্ষরকৃত বিবৃতিতে বলা হয়, সাংবাদিক, কলামিস্ট ও দৈনিক আমাদের নতুন সময়ের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাসুদা ভাট্টি একাত্তর টেলিভিশনে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে একটি প্রশ্ন করার প্রেক্ষিতে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন মাসুদা ভাট্টিকে চরিত্রহীন বলে মন্তব্য করায় আমরা তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমরা মনে করি যে, কেবলমাত্র সাংবাদিকসুলভ প্রশ্ন করায় কাউকে এরকম ক্ষিপ্ত হয়ে চরিত্রহীন বলার এখতিয়ার কারোরই নেই। স্বাধীন সাংবাদিকতা ও উম্মুক্ত গণমাধ্যম যখন বিভিন্ন ভাবে আক্রান্ত তখন রাজনীতিবিদ ও আইনবিদ হিসেবে ব্যারিস্টার মইনুলের কাছ থেকে এরকম আচরণ অনভিপ্রেত।

দেশের ক্ষুব্ধ নারী সমাজের সঙ্গে একাত্বতা ঘোষণা করে আমরা নিম্নোক্ত ব্যক্তিবর্গ ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের এই নিন্দনীয় আচরণে অত্যন্ত ক্ষুব্ধ। আমরাও অবিলম্বে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের এই অনভিপ্রেত বক্তব্য প্রত্যাহারপূর্বক প্রকাশ্যে মার্জনা প্রার্থনা আশা করছি। এটা শুধু মাসুদা ভাট্টিকে অপমান করা হয়েছে বলে নয়, বরং ভবিষ্যতে যাতে কেউ আর এভাবে কাউকে ব্যক্তি আক্রমণ না করেন সেটা নিশ্চিত করার জন্যই অবিলম্বে তার কাছ থেকে প্রকাশ্যে একটি মার্জনা প্রার্থনা আসা প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি। দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবং ভবিষ্যতে একটি সুন্দর বাংলাদেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে সমাজের প্রতিটি স্তরে সহনশীলতা ও গণতান্ত্রিক আচরণ প্রতিষ্ঠাই আমাদের সকল নাগরিকের লক্ষ্য।

সংবাদ বর্জনের আহ্বান
নারী সাংবাদিকদের থেকে গণমাধ্যমের সম্পাদকদের কাছে পাঠানো এক খোলা চিঠিতে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের সব ধরনের সংবাদ সাত দিনের জন্য বর্জন করার আহ্বান করা হয়েছে।

গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তার (মইনুল হোসেন) মতো যারা রাজনৈতিক সহনশীলতার কথা বলেন, তাদের কাছ থেকে এ ধরনের শব্দচয়ন উদ্বেগজনক এবং ভবিষ্যতে স্বাধীন সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের জন্য বিপজ্জনকও বটে। সুতরাং, এই বক্তব্য প্রত্যাহারপূর্বক তার কাছ থেকে একটি প্রকাশ্য মার্জনা প্রার্থণা দাবী করা হচ্ছে দেশের সকল সচেতন নাগরিকের পক্ষ থেকে। কিন্তু এখনও ব্যারিস্টার মইনুলের কাছ থেকে সেরকম কোনো পদক্ষেপ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। উপরন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নারী সাংবাদিকদের প্রতি চরম অবমাননাকর প্রচারণা শুরু হয়েছে। বিশেষ করে মাসুদা ভাট্টিকে লক্ষ্য করে চালানো অপপ্রচার সকল সীমা অতিক্রম করছে। এমতাবস্থায়, তার নিরাপত্তা সংকটও তৈরি হয়েছে।

এই অবস্থায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এই আপত্তিকর বক্তব্য দেওয়ায় এবং এখনও জনসম্মুখে ক্ষমা না চাওয়ায় তাকে সব ধরনের সংবাদ, অনুষ্ঠান এবং টক শো থেকে বয়কট করার জোর আহ্বান জানাচ্ছি। আমাদের সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা ও সম্মান রক্ষার্থেই এই দাবী সঙ্গত বলেও আমরা মনে করি।

উল্লেখ্য, গত ১৬ অক্টোবর মধ্যরাতে একাত্তর টেলিভিশনের নিয়মিত আয়োজন একাত্তর জার্নালে রাজনৈতিক সংবাদের বিশ্লেষণ চলছিলো। এ সময় ব্যারিস্টার মইনুলের কাছে মাসুদা ভাট্টির প্রশ্ন ছিল ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি আলোচনা চলছে যে, সদ্য গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতের প্রতিনিধিত্ব আপনি করছেন কিনা?’

জবাবে ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, ‘আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই।’

কালের আলো/এনএলএম

Print Friendly, PDF & Email