ওবায়দুল কাদেরের উদারতায় মুক্তি পেলেন মানবাধিকার কর্মী

প্রকাশিতঃ 5:16 pm | October 19, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ছবি বিকৃতি করে ফেসবুকে ছবি পোস্ট করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছিল এক মানবাধিকার কর্মীর বিরুদ্ধে। পুলিশ তাকে গ্রেপ্তারও করেছিল। তবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী নিজের উদ্যোগে রুমি আক্তার নামের ওই নারীর জামিন করিয়েছেন। পুলিশ সুপার ও বাদীর সঙ্গে কথা বলে মামলাটিও প্রত্যাহার করিয়েছেন।

শেরপুরের ঝিনাইগাতীর মানবাধিকার কর্মী রুমি আক্তার বৃহস্পতিবার দুপুরে জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মুমিনুন্নিছা খানমের আদালতে জামিন পান।

চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়ার পর সেতুমন্ত্রীর অনুরোধে মামলাটি প্রত্যাহার করেছে পুলিশ।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা আবু নাসের জানান, মন্ত্রীর হস্তক্ষেপেই রুমি আক্তার মুক্তি পেয়েছেন।

তিনি জানান, মন্ত্রী মামলার বিষয়টি জানতেন না। পরে তিনি শেরপুরের পুলিশ সুপার ও মামলার বাদীর সঙ্গে ফোনে কথা বলে মামলাটি প্রত্যাহারের ব্যবস্থা করেন।

রুমি আক্তার বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশন ঝিনাইগাতী শাখার মহিলা বিষয়ক সম্পাদক। তিনি উপজেলার ভালুকা গ্রামের মৃত খবির উদ্দিন সরকারের মেয়ে।

গত সোমবার রাতে ঝিনাইগাতী পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। পরদিন আদালতে হাজির করে তাকে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার বিকালে রুমির জামিন পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ পরিদর্শক মো. আমিনুর রহমান তরফদার।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মজিবর রহমান রুমির বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ঝিনাইগাতী থানায় মামলা করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়, রুমি আক্তার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছবি বিকৃত করে তার ফেসবুকে পোস্ট দেন। এতে মন্ত্রীর সুনাম ও ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে এবং বাদীসহ অন্যরা মর্মাহত হয়েছেন।

কালের আলো/এনএম

Print Friendly, PDF & Email