সেনাপ্রধানের নামে সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘ভুয়া’ আইডি, সতর্ক করলো আইএসপিআর

প্রকাশিতঃ 6:11 pm | October 25, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো :

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের নাম এবং ছবি ব্যবহার করে ফেসবুক বা অন্য সোশ্যাল মিডিয়াতে ‘ভুয়া’ (Fake) আইডি বা অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। কিন্তু এসব মাধ্যমে সেনাপ্রধানের নাম (Aziz Ahmed) এবং ছবি ব্যবহারের মাধ্যমে তৈরিকৃত প্রতিটি আইডি বা অ্যাকাউন্টই ‘ভুয়া’ (Fake)।

বাস্তবতা হচ্ছে- ফেসবুক বা অন্য কোন সোশ্যাল মিডিয়াতে সেনাপ্রধানের ব্যক্তিগত কোন অ্যাকাউন্ট বা আইডি নেই। ফলে এসব ভুয়া আইডি বা অ্যাকাউন্ট থেকে প্রকাশিত সকল তথ্যাবলী মিথ্যা হিসেবে গণ্য করতে সকলকে অনুরোধ জানিয়েছেন আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)।

রোববার (২৫ অক্টোবর) বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আইএসপিআর সবাইকে সতর্ক করে আরও জানিয়েছে, ‘সম্প্রতি ফেসবুকসহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় সেনাপ্রধানের নাম (Aziz Ahmed) এবং ছবি ব্যবহার করে ভুয়া (Fake) আইডি খুলে বিভিন্ন প্রকার স্ট্যাটাস প্রদান বা তথ্য উপস্থাপন করা হচ্ছে। এসব অ্যাকাউন্ট থেকে প্রকাশিত যাবতীয় তথ্য মিথ্যা।’

জানা যায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে ফেসবুক, টুইটার বা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া হাল সময়ে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অনেক দেশের সরকার প্রধান বা গুরুত্বপূর্ণ মানুষেরা এসব মাধ্যমে নিজেদের মতামত প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও প্রধানমন্ত্রী এবং গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের নামে বিভিন্ন সময়ে ফেসবুক বা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়া (Fake) আইডি/অ্যাকাউন্ট খুলে নানামুখী অপপ্রচার চালিয়েছে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি।

এরই ধারাবাহিকতায় অসৎ উদ্দেশ্যে সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের নাম ও ছবি ব্যবহার করে অপপ্রচার ও বিভ্রান্তি ছড়ানোর অপকৌশল গ্রহণ করেছে চিহ্নিত সেই চক্রটি।

এর আগে ২০১৯ সালের ৯ জানুয়ারি আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক বিজ্ঞপ্তিতে একই বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করেছিল। পরবর্তীতে এ রকমের অপপ্রচার থেমে গেলেও সম্প্রতি নতুন করে মিথ্যা তথ্য ও প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, ইতোপূর্বে সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের ব্যক্তিগত মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে ওই নম্বর দিয়ে অসত্য এসএমএস (ক্ষুদে বার্তা) বিভিন্নজনকে পাঠানো হয়। পরবর্তীতে সেনাপ্রধান তাঁর ব্যক্তিগত মোবাইল নাম্বারও পরিবর্তন করেন।

বিশ্লেষকরা মনে করেন, ক্ষমতার দিবা স্বপ্নে বিভোর একটি চক্র বিভিন্ন ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এবং ইউটিউব চ্যানেল ব্যবহার করে মিথ্যা তথ্য ও প্রোপাগান্ডা প্রচারের মাধ্যমে সেনাবাহিনীর সুনাম ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টার পাশাপাশি দেশে অরাজকতা ও বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টির ধারাবাহিক অপপ্রয়াস চালিয়ে আসছে।

বাঙালি জাতির গর্ব ও আত্নমর্যাদার স্মারক বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে বিতর্কিত করতেও ওই চক্রটির সব হীন অপপ্রয়াস বরাবরই মাঠে মারা পড়েছে বলেও মনে করেন সচেতন সাধারণ মানুষ।

কালের আলো/এসআর/এমএএএমকে

Print Friendly, PDF & Email