করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৪৭৩০

প্রকাশিতঃ 10:22 am | March 23, 2020

ডেস্ক রিপোর্ট, কালের আলো:

করোনায় আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৭৩০ জনে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তিন লাখ ৪৩ হাজার ২০৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এ ছাড়া সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৯৭ হাজার ৩৪৪ জন। নেদারল্যান্ডসভিত্তিক বার্তা সংস্থা বিএনও নিউজ এ খবর জানিয়েছে।

এরই মধ্যে বিশ্বের ১৮৮টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। মৃত ও আক্রান্তের সংখ্যার দিক দিয়ে এবং সার্বিক স্বাস্থ্য পরিস্থিতি নিয়ে সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় রয়েছে ইতালি। ইতালিতে মৃত ও আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই হু হু করে বাড়ছে। করোনাভাইরাস ঠেকাতে দেশটির সরকার রীতিমতো যুদ্ধ করছে। এখন পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে পাঁচ হাজার ৪৭৬ জনের। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারিয়েছেন ৬৫১ জন। এ ছাড়া দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫৯ হাজার ১৩৮ জন।

ইতালিতে গৃহবন্দি জনজীবন আর কঠিন নিয়মকানুনও ঠেকাতে পারছে না করোনার সংক্রমণ। এমন পরিস্থিতিতে জরুরি বিভাগের কাজ ছাড়া সব কার্যক্রম ৩ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করেছে ইতালি সরকার।

ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিওসেপ কোঁতে বলেছেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় কড়াকড়ি আরো বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। মানুষের জীবনধারণের জন্য প্রয়োজনীয় উৎপাদন ছাড়া আর সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছি আমরা।’

এদিকে, ইউরোপের মধ্যে স্পেনেও চলছে মৃত্যুর মিছিল। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৯১ জনে মৃত্যু হওয়ায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৭৭২ জনে। এ ছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা ২৮ হাজার ৭৬৮ জনে পৌঁছেছে। ফ্রান্সেও বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। সেখানে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ১১২ জনের। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৭৪ জনে। এ ছাড়া দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন মোট ১৬ হাজার ১৮ জন।

এ ছাড়া জার্মানিতে ৯৪ জন মৃতের পাশাপাশি আক্রান্ত হয়েছেন ২৪ হাজার ৮৫২ জন। সুইজারল্যান্ডে ৯৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা সাত হাজার ২৪৫ জন। নেদারল্যান্ডসে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১৭৯ জনের। আর আক্রান্ত হয়েছেন চার হাজার ২০৪ জন।

এর মধ্যে স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টিনে গেছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তিনি করোনায় আক্রান্ত এক চিকিৎসকের সংস্পর্শে আসার পর কোয়ারেন্টিনে গেছেন বলে তাঁর মুখপাত্র জানিয়েছেন।

অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের মুখপাত্র স্টিফেন সেইবার্ট গতকাল রোববার জানান, গত শুক্রবার (২০ মার্চ) এক চিকিৎসক মেরকেলকে নিউমোনিয়ার প্রতিষেধক দিয়েছিলেন। পরে ওই চিকিৎসকের শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। কোয়ারেন্টিনে থাকাকালে মেরকেলের নিয়মিত করোনা শনাক্তকরণ পরীক্ষা করানো হবে জানান তাঁর মুখপাত্র। বার্তা সংস্থা এপি এ খবর জানিয়েছে।

এদিকে দুজনের বেশি একসঙ্গে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে জার্মানি। প্রাদেশিক সরকারগুলোর সঙ্গে বৈঠক শেষে এ ঘোষণা দেন জার্মান চ্যান্সেলর। আজ সোমবার থেকে কার্যকর হবে এ নিষেধাজ্ঞা।

মৃতের তালিকার তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইরান। দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক হাজার ৬৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে মারা গেছেন ১২৯ জন। এ ছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২১ হাজার ৬৩৮ জনে।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি চারজনের মধ্যে একজন বাড়িতে কোয়ারেন্টিন অবস্থায় রয়েছেন। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৪৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারিয়েছেন ১৫২ জন। এদিকে, নাগরিকদের অর্থ সহায়তা দিতে এক ট্রিলিয়ন ডলারের রেসকিউ প্যাকেজ নিয়ে মার্কিন সিনেটে চলছে আলোচনা। দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আবারও বলেছেন, ভাইরাসটির আমদানির জন্য দায় চীনের।

অস্ট্রেলিয়ায় সব প্রতিষ্ঠান শাটডাউনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। পাব, ক্যাফে ও উপাসনালয় বন্ধ করা হয়েছে। রোববার কেবিনেট বৈঠকের পর এই ঘোষণা দেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। আগামী ছয় মাস ক্ষতিপূরণ বাবদ জনপ্রতি ১০ হাজার ডলার এবং মাঝারি ও ছোট ব্যবসায়ীদের এক লাখ ডলার অনুদান দেওয়ারও ঘোষণা এসেছে।

অন্যদিকে, দক্ষিণ কোরিয়ায় কমছে আক্রান্ত আর মৃতের সংখ্যা। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১০৪ জনের। এ ছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা আট হাজার ৮৯৭ জন।

এদিকে ১৪ ঘণ্টার ‘জনতা কারফিউ’ পালন করল ভারতের জনগণ। দেশটিতে ৩১ মার্চ পর্যন্ত বাতিল হয়েছে সব রকম যাত্রীবাহী ট্রেন, বন্ধ হয়েছে মেট্রোরেল। আজ সোমবার বিকেল ৪টা থেকে কলকাতাসহ সব পৌর এলাকা সাত দিনের জন্য লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

সব খবর খারাপ হলেও আশার খবর হলো, ভাইরাসটি প্রতিরোধে এরই মধ্যে ২০টি গবেষণা প্রতিষ্ঠান ভ্যাকসিন তৈরির চেষ্টা করছে। এদের মধ্যে একটি প্রতিষ্ঠান মানুষের ওপর প্রতিষেধকটি প্রয়োগ করেছে।

কালের আলো/এনএল

Print Friendly, PDF & Email