সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনা প্রমাণিত হলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 1:53 pm | May 19, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনা প্রমাণিত হলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান কামাল। ‘দেখেন তদন্ত চলছে, অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে’, বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

শনিবার (১৯ মে) দুপুরে রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দিরে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘মহাখালীতে সাংবাদিক হেনস্তা ও পল্টনের ঘটনায় তদন্ত কমিটি কাজ করছে। তবে কারা তদন্ত করছে সেই নামগুলো মনে নেই। তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এর আগেও কাউকে ছাড় দেওয়া হয় নাই, এখনো কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। এর আগেও দেখেছেন এমপিদের বিচার হয়েছে। এখানেও কেউ ছাড় পাবে না। সে পুলিশ কর্মকর্তা হোক, সামরিক কর্মকর্তা আর রাজনৈতিক ব্যক্তি হোক। কেউ আইনের ঊর্দ্ধে নয়।’

র‌্যাব মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান করছে, তাদের অভিযানে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ বেশ কয়েকজন মারা গেছেন। এ জন্য আমরা পেছনের অপরাধীদের বিষয়ে জানতে পারছি না। এসব অভিযানকে কিভাবে দেখছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘গোয়েন্দাদের তথ্যের ভিত্তিতেই বিভিন্ন জায়গা থেকে মাদক বিক্রেতা ও দুর্বৃত্তদের প্রতিহত করা হচ্ছে। যারা প্রতিরোধ গড়ে তোলে তাদের সাথে বন্দুকযুদ্ধ হয়ে থাকে। যেমন র‌্যাবের সঙ্গে ঘটেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এমন ঘটনায় একজন ম্যাজিস্ট্রেট তদন্ত করে থাকেন। এগুলোর বিষয়ে তদন্ত চলছে। বিনাবিচারে কিছু হলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোনো হত্যাকাণ্ড গোপন থাকবে না সবগুলোরই বিচার হবে।
মাদক যে ভয়াবহ রূপ নিতে যাচ্ছে আমাদের মেধা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আমরা ২০৪১ সালে যে বাংলাদেশের রূপ দেখতে চাচ্ছি, আমরা যেতে পারবো না যদি মাদককে প্রতিহত না করি। সেজন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করছি।’

বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখেছিলেন আমরা আস্তে আস্তে সেই জায়গায় যাওয়ার চেষ্টা করছি উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যা বিশ্বাস করেন তা বাস্তবায়ন করেন। এখানে সবাই সমানভাবে চলবে এমন কোনো অশুভ শক্তিকে আমরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে দেবো না।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘বর্তমানে রোহিঙ্গারা আমাদের কাছে নতুন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কোনো দেশে গেলে সেই দেশের মন্ত্রীরা বলেন কিভাবে আমরা রেহিঙ্গাদের মোকাবেলা করছি। তখন বলি বাংলাদেশর মানুষ খুব ভালো, তারা বিপদের সময় পাশে দাঁড়ায়। ১৬ কোটি মানুষকে যদি খাওয়াতে পারি, তাদেরও খাওয়াতে পারব।’

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জয়ন্ত সেন দীপু। সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তাপস কুমার পাল।

কালের আলো/ওএইচ

** দ্রুত খবর জানতে ও পেতে কালের আলো’র ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে রাখুন: KalerAlo/Facebook

Print Friendly, PDF & Email