নিজের চেনা স্টাইলে রওশন; উত্তাপ ছড়ালেন সংসদে!

প্রকাশিতঃ 10:14 pm | February 18, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

টানা দুইবারের বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সম্পর্ক ‘মধুর’। প্রয়াত স্বামী, সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদ নিজের জীবদ্দশায় ঘন ঘন সিদ্ধান্ত বদলে আলোচিত-সমালোচিত হলেও একেবারেই ব্যতিক্রম তার জীবনসঙ্গী।

২০১৪’র সংসদ নির্বাচনে যখন বিএনপি’র বর্জনে দেশের গণতন্ত্র মুখ থুবড়ে পড়ার উপক্রম তখন দক্ষ ক্রাইসিস ম্যানেজারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন রওশন। নিজের দল জাতীয় পার্টিকে একক ক্যারিশমায় ভোটে এনে গণতন্ত্রের পথচলা যেমন নিশ্চিত করেন। তেমনি বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শতভাগ বিশ্বস্ততাও অর্জন করেন।

এই সম্পর্কে আর কখনও চিড় ধরেনি। ব্যক্তি জীবনে লোভ-মোহের উর্ধ্বে থাকা রওশনের প্রতি ‘অনুরাগ’ রয়েছে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীরও। একাধিকবার সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে তার প্রশংসা করেছেন শেখ হাসিনা।

নিজের বক্তব্যে রওশন নিজেও প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রার প্রশংসায় মুখর হয়েছেন। আবার, সরকারের গঠনমূলক সমালোচনাও করেছেন। মন্ত্রী-এমপিদের অসঙ্গতি উপস্থাপন করেছেন নিজের স্বভাবজাত বাগ্মিতায়।

অনেক দিন পর মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) সংসদে নিজের চেনা স্টাইলে হাজির হয়েছেন বিরোধী দলীয় এই নেতা। সরকারি দলের প্রভাবশালী দুই মন্ত্রী ডা.দীপু মনি এবং পরিকল্পনা মন্ত্রীর সমালোচনা করেছেন রওশন এরশাদ।

জাতীয় সংসদের রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর সমাপনী বক্তব্যে রওশন এরশাদ শিক্ষামন্ত্রীর ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রীকে সংসদে পাওয়া যায় না। তিনি বেশিরভাগ সময় বিদেশে থাকেন। এই যে এখনো সংসদে নেই। কিছুক্ষণের মধ্যেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য রাখবেন অথচ তিনি নেই।’

তিনি বলেন, ‘মন্ত্রীর পরিবর্তন হলেই যদি শিক্ষার পরিবর্তন হয়ে যায় তাহলে সেটা দেশের জন্য ভয়াবহ।’

অপরদিকে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের সাম্প্রতিক বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে বিরোধী দলীয় নেতা বলেন, ‘আজ পেপারের দেখলাম আমাদের পরিকল্পনামন্ত্রী বলেছেন, গরু যদি কচুরিপানা খেতে পারে তাহলে মানুষ কেনো খেতে পারবে না। আমাদের দেশে কী এখন দুর্ভিক্ষ দেখা দিছে যে কচুরিপানা খেতে হবে। আজ তো পরিকল্পনামন্ত্রী আসেননি। আমরা তো কিছু কচুরিপানা নিয়ে আসছিলাম। ওনাকে দিতাম।’

তিনি বলেন, গরুর খাবার কী মানুষ খেতে পারবে নাকি মানুষের খাবার গরু খেতে পারবে। ঘাসের মধ্যে তো অনেক ভিটামিন আছে তাহলে আমরা ঘাস খাই না কেন?

কালের আলো/বিআর/এনএল

Print Friendly, PDF & Email