জাদুঘরে আবার নজরুল কর্নার চালু হবে, জানালেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 10:32 pm | June 14, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে নতুন করে নজরুল কর্নার স্থাপন ও পুনরুদ্ধার করা হবে বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

তিনি বলেছেন, বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে আগে নজরুল কর্নার ছিল, এমন কথা শোনা যায়। সম্ভবত স্থান সংকুলান বা অন্য কোনও কারণে বর্তমানে তা নেই। তবে কারণ যাই হোক না কেন, শিগগিরই জাতীয় জাদুঘরে নজরুল কর্নার পুনরায় স্থাপন ও পুনরুদ্ধার করা হবে।

শুক্রবার (১৪ জুন) বিকালে রাজধানীর বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। কবি নজরুল ইনস্টিটিউটের আয়োজনে আলোচনা ও নজরুল পুরস্কার ২০১৮ প্রদানের এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন তিনি।

তিনি বলেন, প্রায় ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নতুন নকশা অনুযায়ী ঢাকাস্থ নজরুল ইনস্টিটিউটের নতুন ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু হবে শিগগিরই। এসবের মাধ্যমে নতুন প্রজন্ম নজরুলের সাহিত্য ও সৃষ্টিকর্ম সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে পারবে। একইসঙ্গে নজরুল চর্চা আরও গতি লাভ করবে।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, এবারের ১২০তম নজরুল জন্মজয়ন্তী ছিল অন্যান্য বারের চেয়ে অত্যুজ্জ্বল। ময়মনসিংহ রোডে প্রায় ৬০ কি.মি. এলাকায় বিলবোর্ড, তোরণ, ব্যানার, ফেস্টুন প্রভৃতি দিয়ে এ ব্যাপারে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালানো হয়েছিল। তিনি বলেন, প্রায় ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নতুন নকশা অনুযায়ী ঢাকাস্থ নজরুল ইনস্টিটিউটের নতুন ভবনের নির্মাণ কাজ শিগগিরই শুরু করা হবে।

কবি নজরুল ইনস্টিটিউট ট্রাস্টি বোর্ড এর চেয়ারপারসন জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কবি নজরুল ইনস্টিটিউট ট্রাস্টি বোর্ড এর সদস্য ও কবিপৌত্রী খিলখিল কাজী।

কবি নজরুল ইনস্টিটিউট এর প্রাক্তন নির্বাহী পরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদার পক্ষে স্মারক বক্তৃতা পাঠ করেন তার ছেলে মুসা হুদা। স্বাগত বক্তৃতা করেন কবি নজরুল ইনস্টিটিউট এর নির্বাহী পরিচালক মো. আব্দুর রাজ্জাক ভূঞা।

উল্লেখ্য, অনুষ্ঠানে নজরুল সংগীত প্রচার, প্রসার ও স্বরলিপি প্রণয়নে বিশেষ অবদানের জন্য শিল্পী সেলিনা হোসেন ও শিল্পী যোসেফ কমল রড্রিক্সকে নজরুল পুরস্কার ২০১৮ প্রদান করা হয়। পরে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে ছিল বিভিন্ন শিল্পীদের পরিবেশনায় একক ও দলীয় সংগীত, নৃত্য এবং আবৃত্তি।

কালের আলো/এআর/এমএইচএ

Print Friendly, PDF & Email