কোরবানির ঈদে লবণের কোনো সংকট হবে না : শিল্প সচিব

প্রকাশিতঃ 8:19 am | June 12, 2024

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, কালের আলো:

আসন্ন কোরবানির ঈদে চামড়া প্রক্রিয়াজাত করতে প্রয়োজনীয় লবণের কোনো সংকট হবে না বলে জানিয়েছেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানা।

মঙ্গলবার (১২ জুন) রাতে রাজধানীর তেজগাঁওয়ের একটি হোটেলে এসএমই ফাউন্ডেশনের ক্রেডিট হোলসেলিং কর্মসূচির আওতায় রিভলভিং ফান্ড হতে তৃতীয় দফায় ঋণ বিতরণের উদ্দেশ্যে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে এসএমই ফাউন্ডেশনের চুক্তি সই অনুষ্ঠানে তিনি এ তথ্য জানান।

সিনিয়র সচিব বলেন, বিগত ৬৩ বছরের মধ্যে এ বছর সর্বোচ্চ ২৩ লাখ ৩৬ হাজার ৫৩০ টন লবণ উৎপাদন হয়েছে। তাই লবণের কোনো সংকট হবে না।

তিনি বলেন, এ বছর প্রায় একর প্রতি ১৭ টনের স্থলে ৮২ টন পর্যন্ত স্থানীয়ভাবে আখ উৎপাদন হওয়ায় প্রায় ১০ হাজার টন চিনি বেশি উৎপাদন হয়েছে। এছাড়া, চামড়া শিল্পে ১.২৫ বিলিয়ন ইউএস ডলার রপ্তানি আয় অর্জিত হয়েছে। বিগত ২০০৯-২০২৩ সময়ে এ মন্ত্রণালয় হতে ১৭টি আইন, ২৩টি নীতিমালা, ১২টি বিধিমালা ও ছয়টি গাইডলাইন প্রণয়ন ও হালনাগাদ করা হয়েছে।

জাকিয়া সুলতানা বলেন, আগামীর অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবসহ এলডিসি থেকে উত্তরণ পরবর্তী অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের এখন থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। রপ্তানি আয় বৃদ্ধিসহ বিশ্ববাজারে আমাদের পণ্যের প্রচার-প্রসারের জন্য উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি, পেটেন্ট ও মান নিশ্চিতকরণ জরুরি। এ বিবেচনায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল প্রোডাক্টিভিটি অর্গানাইজেশন (এনপিও), পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্ক অধিদপ্তর (ডিপিডিটি) এবং বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন বোর্ডের (বিএবি) দায়িত্বশীল ও সুদূরপ্রসারী ভূমিকা রয়েছে।

এসএমই ফাউন্ডেশনের সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব আবদুর রহমান খান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালাহউদ্দিন মাহমুদ।

ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি ও ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিম আর এফ হোসেন এবং সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আফজাল করিম।

উল্লেখ্য, এসএমই ফাউন্ডেশনের ক্রেডিট হোলসেলিং কর্মসূচির আওতায় রিভলভিং ফান্ড হতে ৩য় দফায় ৪৫০ কোটি টাকা ঋণ দেবে এসএমই ফাউন্ডেশন। একজন উদ্যোক্তা সর্বনিম্ন এক লাখ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ পাবেন। তবে মূলধনি যন্ত্রপাতি ক্রয়ের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ পাবেন উদ্যোক্তারা।

অর্থ বিভাগের নতুন পরামর্শ মোতাবেক এই ঋণের সুদের হার হবে মাত্র ৬ শতাংশ। এ লক্ষ্যে ২৩টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে এসএমই ফাউন্ডেশন। এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সাথে চুক্তি সই করেন অংশীদার ১৯টি ব্যাংক ও চারটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীরা।

কালের আলো/ডিএইচ/কেএ

Print Friendly, PDF & Email