কোভিড পরবর্তী বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে নারীদের সম্পৃক্ত করতে হবে : স্পিকার

প্রকাশিতঃ 7:57 pm | October 23, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, কোভিড পরবর্তী পরিস্থিতিতে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে নারীদের সম্পৃক্ত করতে হবে।

তিনি বলেন, ‘সকলের জন্য সমতাভিত্তিক ভবিষ্যৎ অর্জনে ও সবুজ বিশ্ব নির্মাণে বৈশ্বিকভাবে উদ্ভাবনী সমাধানের দিকে সকলকে এগিয়ে যেতে হবে। সকলের মনে রাখতে হবে কোভিড পরিস্থিতি সমগ্র বিশ্বেই আমূল পরিবর্তন এনেছে। গভীর অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা, স্বাস্থ্য ঝুঁকি, খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষা সংকট, জীবিকা সংকট ইত্যাদি সকল বিষয় বর্তমানে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সম্প্রসারণের সঙ্গে জড়িত। অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনীতি ও স্থিতিশীল সমাজ নির্মাণে সমতাভিত্তিক অর্থনৈতিক পুনরূদ্ধার প্রয়োজন। এক্ষেত্রে, নারীরা অগ্রযাত্রীর ভূমিকা পালন করতে পারে।’

রোববার (২৩ অক্টোবর) এশিয়ান ফোরাম অফ পার্লামেন্টারিয়ান্স অন পপুলেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট (এএফপিপিডি)-র উদ্যোগে ফিলিপাইনের ম্যানিলায় ‘প্রায়োরিটাইজিং উইমেন রাইটস এন্ড এম্পাওয়ারমেন্ট ইন কোভিড-১৯ প্যান্ডেমিক রেসপন্স এন্ড রিকভারি’ শীর্ষক সেমিনারে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে স্পিকার এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, সমগ্র মানবতা আজ কোভিড পরবর্তী পরিস্থিতির মুখোমুখি। কোভিড মহামারি সকল সেক্টরে ভয়ঙ্কর চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে। নারী ও মেয়েদের উপর বিরূপ প্রভাবসহ গভীর অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ ও সমাজের দরিদ্র অংশকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। ঘরে থেকে ভার্চুয়ালি কাজ করার নতুন ব্যবস্থা, ভ্যাক্সিন গ্রহণ ইত্যাদি বিষয়গুলো নারীদের জীবন, জীবিকা, অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষমতায়ন, স্বাস্থ্য ও তাদের মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করেছে। কোভিড মহামারিকালীন নারী ও মেয়েরা সহিংসতার শিকার হয়েছে। কোভিডকালীন বাল্যবিবাহ বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশের সীমান্ত পেরিয়ে বৈশ্বিকভাবে এসকল সমস্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।

ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে বৈশ্বিক বিনিয়োগ দরকার। আন্তঃদেশীয় ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার, সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ অর্থনৈতিক পুনরূদ্ধারে সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে। রাজস্ব সংগ্রহ বৃদ্ধি, দৈনন্দিন খরচ কমানো ইত্যাদি উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে স্থানীয় পর্যায়ে অর্থনৈতিক পুনরূদ্ধারে সচেষ্ট হতে হবে। বৈশ্বিক জ্বালানি সংকট বিশ্বের প্রতিটি দেশের অর্থনীতিকে প্রভাবিত করছে। তাই সমতাভিত্তিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে সুশীল সমাজসহ সকলের মনোযোগী হতে হবে।

সমাজের অতিদরিদ্র ব্যক্তিদের সহায়তা, আঞ্চলিক বৈষম্য দূরীকরণ, সামাজিক নিরাপত্তা জাল বাস্তবায়ন, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের পাশাপাশি সমাজের অতি দরিদ্র গোষ্ঠী যেন ছিটকে না পরে সে লক্ষ্যে সকলকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান স্পিকার।

তিনি বলেন, নারীদের অন্তর্ভুক্ত করে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা অর্জনে তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক প্রশিক্ষণ, দক্ষতা উন্নয়ন, ক্ষুদ্র ও মাঝারি নারী উদ্যোক্তাদের সহযোগিতা, কোলেটারেল ফ্রি লোন, ক্যাশ ইনসেন্টিভস, শ্রমবাজারে তাদের প্রবেশ বৃদ্ধি ইত্যাদি পদক্ষেপ গ্রহণ প্রয়োজন। এর মাধ্যমে বৃহত্তর উন্নয়ন ও সবুজ বিশ্ব নিশ্চিতকরণ সম্ভব। নারী ও মেয়েদের প্রতি সকল প্রকার সহিংসতার বিরূদ্ধে তাদের সুরক্ষা দিতে হবে। ই-কমার্সের মাধ্যমে অনলাইন প্ল্যাটফর্মকে কাজে লাগিয়ে নারীদের অর্থনৈতিক স্বাবলম্বিতা অর্জনে তাদের জন্য সুযোগ-সুবিধা বিস্তৃত করতে হবে।

সেমিনারে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। এতে বিভিন্ন গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও গনমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

কালের আলো/এসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email