দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া, ভাসানচরেও রোহিঙ্গাদের পাশে থাকবে জাতিসংঘ! (ভিডিও)

প্রকাশিতঃ 9:08 pm | May 24, 2022

বিশেষ সংবাদদাতা, কালের আলো:

মায়ানমার থেকে বাংলাদেশে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের পাশে কক্সবাজারের মতো ভাসানচরেও থাকবে জাতিসংঘ, এমন প্রতিশ্রুতি মিলেছে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে সপ্তম আন্তর্জাতিক সম্মেলনে।

জাতিসংঘের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল আমিনা জে. মোহাম্মদের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় দেশটিতে সফরত বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এমপি’র আহবানের জবাবে এমন ইতিবাচক মতই দিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার (২৪ মে) স্থানীয় কনভেনশন সেন্টার বিআইসিসির বালি রুমে এই দ্বিপাক্ষিক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুল হাসান, স্থানীয় রাষ্ট্রদূত এয়ার ভাইস মার্শাল মোস্তাফিজুর রহমানসহ প্রতিনিধি দলের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ইন্দোনেশিয়ার বালিতে দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে সপ্তম আন্তর্জাতিক এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবারের সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য হচ্ছে- ‘গ্লোবাল প্লাটফর্ম ফর ডিজাস্টার রিস্ক রিডাকশন- জিপিডিআরআর’। গত রোববার (২২ মে) থেকে শুরু হওয়া এই সম্মেলন চলবে আগামী ২৮ মে পর্যন্ত। এতে অংশ নিয়েছে বিশ্বের প্রায় ৪০টি দেশের মন্ত্রীরা।

সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এমপি ও সচিব কামরুল হাসান। এই সম্মেলনের বেশ কয়েকটি ইভেন্টে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল। গত সোমবার (২৩ মে) ওয়ার্ল্ড রিকনস্ট্রাকশন কনফারেন্স ৫-( WRC 5) এ কোভিড পরবর্তী পুনবার্সন নিয়ে বিশেষ ইভেন্টে প্রধান আলোচক ছিলেন প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান।

প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বের প্রশংসা জাতিসংঘের জাতিসংঘের
ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল আমিনা জে. মোহাম্মদের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ এই দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের শুরুতে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের মাইলফলক অর্জিত হওয়ার বিষয়ে আলোচনার সূত্রপাত করেন বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এমপি।

বৈশ্বিক এবং আন্তঃসীমান্ত সমস্যা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় জাতিসংঘের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল আমিনা জে. মোহাম্মদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরন্তর পরিশ্রম ও দূরদর্শী নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম (সিভিএফ) এর চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার মধ্যে দিয়ে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন।’

আলোচনায় গুরুত্ব পেয়েছে রোহিঙ্গা ইস্যু
অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান কক্সবাজার থেকে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেন।

প্রতিমন্ত্রী জাতিসংঘের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেলকে বলেন, ‘মায়ানমার থেকে বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত ৩০ হাজার রোহিঙ্গাকে আমরা ইতোমধ্যেই কক্সবাজার থেকে ভাসানচরে নিয়ে গেছি। সেখানে সরকার এবং স্থানীয় এনজিও তাদের মানবিক সহায়তা দিচ্ছে।’

মাস কয়েক আগে রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তায় কক্সবাজারের মতো ভাসানচরে সম্পৃক্তকরণ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনারের (ইউএনএইচসিআর) সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। কিন্তু সময় গড়ালেও মানবিক সহায়তায় কোন অগ্রগতি নেই।

এই বিষয়টিকে ফোকাস করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান। ওই সমঝোতা স্মারকের মূল প্রতিপাদ্যও উপস্থাপন করেন। সেই স্মারকে বলা হয়েছিল- ‘জাতিসংঘের সংস্থাগুলো কক্সবাজারের মতো ভাসানচরেও মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখবে। বেসামরিক প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে এখানে মানবিক সহায়তা কার্যক্রম পরিচালিত হবে।’

এ সময় প্রতিমন্ত্রী জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনারের (ইউএনএইচসিআর) চুক্তি বাস্তবায়নে এবং ইউএনএইচসিআরকে তাদের কর্মতৎপরতা দ্রুত শুরু করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্যও জাতিসংঘের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল আমিনা জে. মোহাম্মদকে অনুরোধ জানান।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী জাতিসংঘ, আইজিডাব্লিউ অপারেটরস ফোরামস (আইওএফ) সহ সবগুলো এজেন্সি যেন কক্সবাজারের মতো ভাসানচরেও রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করে সেই বিষয়েও জাতিসংঘের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেলকে অনুরোধ জানালে তিনি আন্তরিকভাবে সেই প্রস্তাব গ্রহণ করেন।

Print Friendly, PDF & Email