ঈদের ছুটি শেষ, ঢাকামুখী যাত্রীর চাপ বাড়ছে

প্রকাশিতঃ 6:07 pm | May 06, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

ঈদুল ফিতরের ছুটি শেষে রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেছে মানুষ। শুক্রবার (০৬ মে) রাজধানীর সায়েদাবাদ, গুলিস্তান, কমলাপুর, গাবতলী, মহাখালী ও সদরঘাট টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে এ চিত্র। এছাড়া ফেরার সময়ে কোনো ধরনের ভোগান্তি হয়নি বলে জানিয়েছেন অনেকে।

এদিন দুপুরে সরেজমিনে বাংলাবাজার ফেরিঘাটে দেখা যায়, দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে বাস, মাহিন্দ্র, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, মাইক্রোবাস, ব্যক্তিগত গাড়ি, ইজিবাইক ও মোটরসাইকেলে করে বাংলাবাজার ঘাটে আসছেন যাত্রীরা। শিমুলিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া প্রতিটি ফেরি ও লঞ্চে গাদাগাদি করে পদ্মা পারাপার হচ্ছেন তারা।

এছাড়া ২১ জেলার গুরুত্বপূর্ণ নৌরুট দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া হয়ে সরকারি, বেসরকারি ও গার্মেন্টসসহ বিভিন্ন স্থানে কাজে যোগ দিতে এসব মানুষ পারাপার হয়ে যাচ্ছেন গন্তব্যে। তবে দূরপাল্লার বাসে যেসব যাত্রীরা ঘাটে আসছেন, তারা ফেরি পার হতে ঘাটে এসে যানজটে আটকে পড়েছেন বিপাকে। তবে যেসব যাত্রীরা ভেঙে ভেঙে গন্তব্যে যাচ্ছেন, তাদের অতিরিক্ত কয়েকগুণ ভাড়া দিতে হচ্ছে। এমনকি বেশি ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ করেন দূরপাল্লার বাস যাত্রীরাও।

রাজধানীর সায়েদাবাদ, গুলিস্তান, কমলাপুর, গাবতলী, মহাখালীতেও চাপ বাড়ছে ফিরতি যাত্রীদের। তবে রাস্তায় জ্যাম না থাকায় হাসিমুখেই ফিরতে দেখা গেছে যাত্রীদের।

সায়েদাবাদে খুলনা থেকে ফেরা মোসলেম বলেন, ‌‌‌ঈদ শেষ। তাই ঢাকায় ফিরে আসছি। তবে অফিস শনিবার হলেও ঢাকার আত্মীয়দের সঙ্গে ঈদের আনন্দ নেওয়ার জন্য একদিন আগে এসেছি। এবার ঈদে বেশি দিন ছুটি হওয়ায় বাড়িতে অনেক মজা হয়েছে।

রাবিবা নামের এক নারী বলেন, অনেকদিন হলো বাড়িতে ছিলাম। এখন কাজের তাগিদে ঢাকায় ফিরে এলাম। ঢাকা এখনো ফাঁকা দেখছি। তবে আসার জন্য পরিবহণে কোনো সমস্যা হয়নি।

কুমিল্লা থেকে ছেড়ে আসা এক বাসের হেলপার রহমান বলেন, ঈদের ছুটি এখনো চলছে। তাই মানুষ কম আসছেন। তবে শনিবার চাপ বাড়বে। বাড়তি যাত্রীর কথা মাথায় রেখে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। তবে বুধবার ঢাকা-কুমিল্লা রাস্তায় প্রচুর জ্যাম ছিল। বৃহস্পতিবার কুমিল্লা থেকে আসতে কোনো সমস্যা হয়নি। শুক্রবার সাকলেও তেমন কোন চাপ নেই।

এদিকে রাজধানী ঢাকা এখনও ফাঁকা। শুক্রবার ও বৃষ্টি হওয়ায় রাস্তায় তেমন চাপ দেখা যায়নি। দর্শনীয় স্থানগুলোতে মানুষের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো।

কালের আলো/এসএইচ/বিএসবি

Print Friendly, PDF & Email