জিয়াউর রহমানই বঙ্গবন্ধুর আসল ‍খুনি: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 5:32 pm | April 06, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

বঙ্গবন্ধুকন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইনডেমনিটি অর্ডিনেন্স প্রত্যাহারের পর আমরা যখন মামলা করতে গেলাম, আমি বললাম— জিয়াউর রহমানের নামও থাকতে হবে। কারণ, সে-ই আসল খুনি। কিন্তু আমাকে বলা হয়েছিল যেহেতু সে মৃত, তাকে আসামি করে কোনও লাভ হবে না। তাকে আসামি করা যাবে না। সেই সময়কার স্বরাষ্ট্র সচিব রেজাউল হায়াত এটা বলেছিলেন। সেই কারণে জিয়ার নামটি দেওয়া হয়নি। যেহেতু মৃত্যু ব্যক্তির বিচার হয় না, তাই দিয়ে লাভ নেই। কিন্তু যখন প্রসিডিংস শুরু হয়, সাক্ষী হয়, তখন কিন্তু এটা স্পষ্ট জিয়াউর রহমান এই হত্যার সঙ্গে সরাসরি জড়িত। তা না-হলে খন্দকার মোশতাক তাকে সঙ্গে সঙ্গে সেনাপ্রধান করবে কেন? তাকে তো সেনাপ্রধান করেছে। কাজেই এগুলো রেকর্ড। কাজেই এটা অস্বীকার করার কোনও উপায় নেই।

বুধবার (০৬ এপ্রিল) জাতীয় সংসদে ‘জয় বাংলা’ জাতীয় স্লোগান হিসেবে প্রতিষ্ঠায় বলিষ্ঠ ভূমিকার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার মন্ত্রিপরিষদকে ধন্যবাদ দিতে জাতীয় সংসদে তোলা একটি সাধারণ প্রস্তাবের ওপর প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য দেন। এ সময় বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরবর্তী ঘটনা এবং বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের সময়ে প্রসিডিংস ও সাক্ষ্যের কথা উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধুর খুনির বিষয়ে বিএনপিরর হারুনুর রশিদের বক্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

হারুনের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে প্রস্তাবের ওপর বক্তব্যকালে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখনও, আজকের সংসদে বিএনপির একজন সংসদ সদস্য কী বললেন, সেটা দেখলেন! বুঝলেন তাদের মানসিকতা। এরা স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না। এদের অন্তরে এখনও সেই পেয়ারের পাকিস্তান রয়ে গেছে। পাকিস্তানের গোলামিটাই তারা পছন্দ করে। বিএনপির হারুন সাহেবের বক্তব্যে এটা প্রকাশ হলো না!

জিয়াউর রহমানকে বঙ্গবন্ধুর খুনি বলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, খুনিকে কেন খুনি বলবে না। আমার কাছে ছবি আছে। ১৯৮৭ সালে খালেদা জিয়া এবং কর্নেল ফারুক কথা বলছেন, সেই ছবি আমার কাছে আছে। মাননীয় স্পিকার আপনার কাছে সেই ছবি পাঠিয়ে দিয়েছি। কর্নেল ফারুক আর রশিদের বিবিসির ইন্টারিভিউতে আছে জিয়াউর রহমান তাদের সঙ্গে ছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উচ্চ আদালতের আদেশে আমরা মন্ত্রিসভায় জয়বাংলা জাতীয় স্লোগানের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। পরে সব জায়গায় এর নির্দেশনা পাঠানো হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আজকের এই প্রস্তাব। এজন্য আমি সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, পচাঁত্তরের পর বাংলাদেশ এমন একটি পর্যায় চয়ে যায়, যেখানে মুক্তিযোদ্ধারা তাদের পরিচয় দিতে সাহস পেতো না। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছিল। যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতি করার সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের মুক্তি দেওয়া হয়ছিল। জাতির পিতার হত্যাকারীদের ইনডেমনিটি দিয়ে বিচারের হাত থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল। আমাদের বিচার চাওয়ার অধিকার ছিল না। ৭৫-এর পর এমন একটি বাংলাদেশ, মনে হতো এই বাংলাদেশ কি স্বাধীন বাংলাদেশ!

জাতির পিতা ১৯৪৮ সাল থেকে স্বাধীনতার সংগ্রাম শুরু করেছিলেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু ধাপে ধাপে এটাকে এগিয়ে নিয়ে যান। জয়বাংলা স্লোগান, আমার এখনও মনে আছে। যখন জাতির পিতা ৬ দফা দিলেন, এরপর তিনি সমগ্র বাংলাদেশ ঘুরে বেড়ান। সেই সময় শেখ ফজলুল হক মনিকে নির্দেশ দিয়েছিলেন এই স্লোগানটি ছাত্রলীগের মাধ্যমে মাঠে নিয়ে যাও। সেই সময় সিদ্ধান্ত দিলেন— আমাদের কয়েকটি জিনিস, আমাদের স্লোগান জয়বাংলা। আমাদের জাতীয় পতাকা কীভাবে হবে, জাতির পিতা নির্দেশ দিয়েছিলেন— জাপান উদিত সূর্যের দেশ, তাদের পতাকা সাদার মধ্যে লাল। আমাদের সবুজ বাংলাদেশ আমাদের পতাকা হবে সবুজের মাঝে লাল। এভাবে আমাদের পতাকা হবে। এটাও ছাত্রলীগের মাধ্যমে মাঠে নেওয়ার নির্দেশ দিলেন। পাশাপাশি আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি— এটা আমাদের জাতীয় স্লোগানেও বাজানো হয়েছে। কলিম শরাফীকে যেকোনও অনুষ্ঠানে এই গানটি গাওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধু বলতেন।

ছাত্রলীগ বঙ্গবন্ধুর অগ্রসেনা দল ছিল উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেটা মাঠে নেওয়া হবে, সেটা ছাত্রলীগের মাধ্যমে নেওয়া হতো।

‘আসল নিউক্লিয়াস ফর্ম করার জন্য ১৯৬১ সালে বঙ্গবন্ধু ছাত্রলীগের শেখ ফজলুল হক মনিকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেখানে আমির হোসেন আমুসহ অনেক নেতা ছিলেন। সঙ্গে অন্যরাও ছিল। কথাগুলো সবসময় তিনি (বঙ্গবন্ধু) মনি ভাইয়ের মাধ্যমে ছাত্রলীগের কাছে পৌঁছাতেন। আমি নিজে এর সাক্ষী। এটা অনেকের জানার কথা নয় যে, মনিভাইকে দিয়ে তথ্য উনি পাঠাতেন। হ্যাঁ, যে নামগুলো এসেছে সবাই সক্রিয় ছিল। সিরাজুল আলম খানের যে স্লোগান, তার নির্দেশ কিন্তু বঙ্গবন্ধু দিয়েছিলেন। স্টেজেই বসে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন স্লোগান ধরো। তারপরে কিন্তু সিরাজুল আলম খান স্লোগান ধরেছিল, এটা হলো বাস্তব কথা। ইতিহাস বললে সবটুকু বলা দরকার।’

জয়বাংলা স্লোগান প্রসঙ্গে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ভাষণ শেষ করেন জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে। এরপর থেকে এই স্লোগান হয় যায় আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্লোগান। মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রতিটি মুক্তিযোদ্ধা বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছেন এই জয়বাংলার স্লোগানে। এই স্লোগানে ছিল আলাদা একটি উদ্দীপনা। আমরাও হানাদার বাহিনীর হাতে বন্দি থাকা অবস্থায় এই স্লোগান দিতাম। আমরা ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন হলেও কিন্তু মুক্তি পাইনি। মুক্তি পাই ১৭ ডিসেম্বর। ওই বন্দি থাকতেও আমরা স্লোগান দিয়েছি।

তিনি বলেন, ৭৫-এর পরে এই স্লোগান সম্পূর্ণ বন্ধ, নিষিদ্ধ। ছাত্রলীগ আওয়ামী লীগের কত নেতাকর্মী এই স্লোগান দিতে গিয়ে জীবন দিয়েছে। এই স্লোগান দিলে নানা ধরনের কথা বলতো। অপপ্রচার করতো, ঠিক পাকিস্তানি সেনাবাহিনী মুক্তিযুদ্ধের সময়কালে যে ব্যঙ্গ করতো। ৭৫-এর পর জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে সেই কাজটি করেছে। স্বাধীনতার চেতনাকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল। জয়বাংলা স্লোগান ধ্বংস করেছিল। জাতির পিতার অবদানকে অস্বীকার করেছিল। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ নিষিদ্ধ করেছিল। আজকে বাংলাদেশে এগিয়ে যাচ্ছে।

এর আগে সংসদে ‘জয় বাংলা’ জাতীয় স্লোগান হিসেবে প্রতিষ্ঠায় বলিষ্ঠ ভূমিকার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার মন্ত্রিপরিষদকে ধন্যবাদ জানিয়েছে জাতীয় সংসদ। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও মাদারীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য শাজাহান খান কার্যপ্রণালি বিধির ১৪৭ অনুযায়ী একটি সাধারণ প্রস্তাব সংসদে পাস হয়েছে।

এই প্রস্তাবের ওপর প্রায় তিন ঘণ্টার আলোচনা শেষ তা সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয়। প্রস্তাবটি পাস হওয়ার সময় সংসদ সদস্য অধিবেশন কক্ষে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান দেন। প্রস্তাবের ওপর আলোচনার অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দুই বছর আগে হাইকোর্টের এক রায়ে জাতীয় দিবস, সরকারি অনুষ্ঠান ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচ্চারণের ওপর জোর দিয়ে ‘জয় বাংলা’ স্লোগানকে জাতীয় স্লোগান হিসেবে কার্যকর করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

উচ্চ আদালতের ওই নির্দেশনার আলোকে ২০ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ বিষয়ে দ্রুত প্রজ্ঞাপন জারির সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। পরে ২ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার।

শাজাহান খানের প্রস্তাবে বলা হয়, সংসদের অভিমত এই যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার ঘোষণার মধ্য দিয়ে ‘জয় বাংলা’কে জাতীয় স্লোগান হিসেবে ঘোষণার যে প্রত্যাশা দীর্ঘদিন এ জাতির ছিল তা পূরণ হওয়ায় বাঙালি জাতির পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার মন্ত্রিপরিষদকে এই বলিষ্ঠ ভূমিকার জন্য আন্তরিক অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হোক।

প্রস্তাব উত্থাপনকালে শাজাহান খান বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭০ সালের ১০ জানুয়ারি ঢাকার পল্টন ময়দানে এক জনসভায় আনুষ্ঠানিকভাবে জয় বাংলা স্লোগানকে বাঙালি জাতির অপরিহার্য স্লোগান হিসেবে ঘোষণা করেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধারা জয় বাংলা স্লোগানকে পাক-হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে আমরণ লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। তাদের রণধ্বনি ছিল ‘জয়বাংলা’। মুক্তিযুদ্ধের স্লোগান হিসেবে জয়বাংলা মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। স্বাধীনতার পর জয়বাংলা স্লোগানকে বাঙালি জাতি মনেপ্রাণে গ্রহণ করেছিল। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর অবৈধ ক্ষমতা দখলদার মোশতাক-জিয়া গং ‘জয় বাংলা’র পরিবর্তে পাকিস্তানি ভাবধারায় ‘বাংলাদেশ জিন্দাবাদ’কে জাতীয় স্লোগান হিসেবে ঘোষণা করে।

তিনি আরও বলেন, ‌‌উচ্চ আদালতের নির্দেশে গত ২০ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়-(ক) ‘জয় বাংলা’ বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান হবে। (খ) সাংবিধানিক পদাধিকারীগণ, দেশ ও দেশের বাইরে কর্মরত সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও সংবিধিবদ্ধ সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সব জাতীয় দিবস উদযাপন এবং অন্যান্য রাষ্ট্রীয় ও সরকারি অনুষ্ঠানে বক্তব্যের শেষে জয় বাংলা স্লোগান উচ্চারণ করবেন। (গ) সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রাত্যহিক সমাবেশে সমাপ্তির পর এবং সভা-সমাবেশ সমাপ্তির পর এবং সভা-সেমিনারে বক্তব্যের শেষে শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা ‘জয় বাংলা’ উচ্চারণ করবেন।

পরে এর ওপর আলোচনায় অংশ নেন শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আমির হোসেন আমু, মতিয়া চৌধুরী, রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার, মুহাম্মদ ফারুক খান, সাবেক প্রধান হুইপ আব্দুস শহীদ, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমান, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, বিএনপির হারুনুর রশীদ, সংরক্ষিত আসনের সদস্য ওয়াসিকা আয়শা খান ও ফরিদা খানম।

কালের আলো/এসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email