ভবিষ্যতের দিকনির্দেশনা জানার জন্য বঙ্গবন্ধুকে জানা অত্যন্ত জরুরি : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 8:33 pm | March 28, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু জাতিরাষ্ট্র নিয়ে কি ভাবতেন, এটা আমাদের জানা দরকার। ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’, ‘কারাগারের রোজনামচা’, ‘আমার দেখা নয়াচীন’ এ তিনটি বই পড়লে তাঁর জাতিরাষ্ট্র নিয়ে ভাবনা, এ বাঙালিকে নিয়ে কি ভাবনা, এসব জানা যাবে। বঙ্গবন্ধুকে জানলে আমরা এ ভূখণ্ডের ইতিহাস জানব। আমরা এ ভূখণ্ডের মানুষের আশা, আকাঙ্খা, স্বপ্নের কথা জানব। আমাদের ত্যাগের কথা জানব। ভবিষ্যতের দিকনির্দেশনা জানার জন্য বঙ্গবন্ধুকে জানা অত্যন্ত জরুরি।

সোমবার (২৮ মার্চ) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু : বাংলাদেশ জাতিরাষ্ট্র সৃষ্টির মহানায়ক’ শীর্ষক আলোচনা সভায় শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ডা. দীপু মনি বলেন, বঙ্গবন্ধু কখনও পুরো পাকিস্তান নিয়ে ভাবতে চাননি। তিনি সবসময় পূর্ব পাকিস্তানের জন্য চিন্তা করে গেছেন। বঙ্গবন্ধু সবসময় এ ভূখণ্ডের মানুষের জন্য ভেবে গেছেন। সেক্ষেত্রে যখন আওয়ামী লীগ হলো, নাম দেওয়া হয় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ।

তিনি আরও বলেন, ষড়যন্ত্র এখনও চলছে। এরা ভিন্ন কেউ নয়। একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী, পঁচাত্তরের হত্যাকারী, ২০০১-২০০৬ পর্যন্ত যারা হত্যাকারী, নারী নির্যাতনকারী, ২০০৪ সালের গ্রেনেড হামলাকারী এ অপশক্তিরাই আমাদের বিরুদ্ধে, এ দেশের বিরুদ্ধে, দেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে, আমাদের স্বপ্নের বিরুদ্ধে আমাদের সামনে এগিয়ে যাওয়ার বিরুদ্ধে তারা এখনও ষড়যন্ত্র করে চলছে। কাজেই আমাদের সচেতন থাকতে হবে, সজাগ থাকতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় হয়রানি কমাতে আমরা গুচ্ছ পদ্ধতির কথা বলেছি। একটা সিস্টেম যখন চালু হয়, তখন কিছু ত্রুটি বিচ্যুতি থাকতেই পারে। আমি প্রথমবার চেষ্টা করছি সেখানে কিছু ত্রুটি বিচ্যুতি হয়তো রয়েছে৷ এসব ত্রুটিকে আমরা আগামীতে আশা করি দূর করতে পারবো। তাই গুচ্ছ পদ্ধতিকে আরও সংহত করতে হবে। এটা থেকে দূরে সরে যাওয়া উচিৎ হবে না। গুচ্ছ থেকে বেরিয়ে না যেতে আপনাদের কাছে অনুরোধ রইলো।

তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ধারণক্ষমতা অনুযায়ী যেন শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়। ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত ভর্তি করিয়ে আবাসন, খাবার, ক্লাসরুম সংকট যেন না হয়, এসব নিয়ে ভাবতে হবে। আমরা শুধু সংখ্যার দিকে তাকাবো না, আমাদের ভারসাম্যতার দিকেও দৃষ্টি দিতে হবে।

আলোচনা সভায় প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান, বিশেষ অতিথি ছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ।

কালের আলো/এসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email