‘ঢাকাই মসলিন হাউজ’ প্রতিষ্ঠা করছে মন্ত্রণালয়: বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 4:15 pm | December 02, 2021

নিজস্ব সংবাদদাতা, কালের আলোঃ

বাংলাদেশের সোনালী ঐতিহ্য মসলিনকে বড় পরিসরে বাণিজ্যিক রূপদানের জন্য ‘ঢাকাই মসলিন হাউজ’ প্রতিষ্ঠা করছে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীরপ্রতীক) এসব তথ্য জানান। জাতীয় বস্ত্র দিবস-২০২১ উদযাপন উপলক্ষ্যে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

তিনি বলেন, ‘সোনালি ঐতিহ্যে ফিরে ঢাকাই মসলিন আবারও বিশ্ব মাতাবে। বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড থেকে বাস্তবায়িত একটি প্রকল্পের মাধ্যমে ১৭০ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের সোনালি ঐতিহ্য ও বিশ্ব বিখ্যাত ঢাকাই মসলিন পুনরুদ্ধার করে হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনা হয়েছে।

বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকার অদূরে রূপগঞ্জ উপজেলার তারাবতে জুটো-ফাইবার গ্লাস ইনডাস্ট্রিজের জমিতে এ ঢাকাই মসলিন হাউজ স্থাপনের পরিকল্পনা করা হয়েছে।’ এ কার্যক্রমের সুবাদে ঢাকাই মসলিনের বাণিজিক উৎপাদনের ফলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে বিপুল সংখ্যক লোকের, বিশেষ করে নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি সম্ভব হবে বলেও জানান।

গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, ‘২০১৯ সালে ৪ ডিসেম্বরকে জাতীয় বস্ত্র দিবস হিসেবে ঘোষণা করে সরকার। সে অনুযায়ী আগামী ৪ ডিসেম্বর বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় থেকে জাতীয় বস্ত্র দিবস-২০২১ উদযাপন করা হবে।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের অর্থনীতি, সমাজ ও সংস্কৃতিতে বস্ত্র খাতের ভূমিকা অপরিসীম। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখছে তৈরি পোশাক খাত। দেশের রফতানি আয়ের সিংহভাগ অর্জিত হয় এ খাত থেকে। দেশের মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের একটি বড় অংশ আসে বস্ত্র খাত থেকে।

বর্তমানে বস্ত্র খাতে প্রায় ৫০ লাখ শ্রমজীবী কর্মরত রয়েছে জানিয়ে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বলেন, ‘এর মধ্যে প্রায় ৮০ ভাগ শ্রমজীবী নারী এবং এসব কর্মকাণ্ড নারীর ক্ষমতায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। বস্ত্র শিল্পের ধারাবাহিক উন্নয়ন ও আধুনিকায়নের গতি বেগবান করা এবং অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বাজারে চাহিদার লক্ষ্য সামনে রেখে জাতীয় বস্ত্র দিবস দেশব্যাপী উদযাপন করা হবে।

এবারের জাতীয় বস্ত্র দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘বস্ত্র খাতের বিশ্বায়ন; বাংলাদেশের উন্নয়ন’। এ উপলক্ষে আগামী ৪ ডিসেম্বর ওসমানী মিলনায়তনে বস্ত্র দিবসের মূল অনুষ্ঠান আয়োজনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

গোলাম দস্তগীর গাজী আরও বলেন, ‘এ অনুষ্ঠানে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মির্জা আজম বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

এ অনুষ্ঠানে বিশ্বব্যাপী চলমান করোনাভাইরাস বিপর্যয়ের অভীঘাতে বস্ত্র খাতকে রক্ষায় অবদানের জন্য সাতটি অ্যাসোসিয়েশন/প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা দেওয়া হবে।

তিনি জানান, বিদ্যমান ও বিকাশমান বস্ত্র শিল্প কারখানার জন্য মানসম্মত বস্ত্র উৎপাদনে দক্ষ বস্ত্র প্রযুক্তিবিদ প্রয়োজন। এ চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে বস্ত্র অধিদফতর সরকারি পর্যায়ে ৪১টি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট, ১০টি টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট এবং ৮টি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের মাধ্যমে স্বল্প খরচে বস্ত্র খাতের জন্য দক্ষ শ্রমিক, সুপারভাইজার, ডিপ্লোমা প্রযুক্তিবিদ ও স্নাতক পর্যায়ের টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার তৈরি করে চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ জনশক্তি বস্ত্র শিল্প কারখানায় সরবরাহ করছে।

বস্ত্র খাতে দক্ষ জনবলের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে এ ধরনের আরও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী।

কালের আলো/টিআরকে/এসআইএল

Print Friendly, PDF & Email