সহায়তায় কাউন্সিলর আসিফ, মোহাম্মদপুরে সেনাবাহিনীর ত্রাণ বিতরণে নজিরবিহীন শৃঙ্খলা

প্রকাশিতঃ 9:08 pm | April 02, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো :

করোনাভাইরাসের ভয়াল সংক্রমণ ঠেকাতে ‘ঘরে থাকা’র কর্মসূচি চলছে জোরেশোরেই। অনেক স্থানেই ত্রাণ বিতরণে হুড়াহুড়ি বা সুরক্ষার কোন উদ্যোগের দেখা না মিললেও দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী সুশৃঙ্খলভাবে ত্রাণ বিতরণ করে নজির স্থাপন করেছে।

ত্রাণ বিতরণে বিশৃঙ্খলা ও সামাজিক দূরত্ব না মানাই যেখানে নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে সেখানে বিপরীত চিত্র দেখা গেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকির বিষয়টি মাথায় রেখেই এদিন এ ওয়ার্ডের কর্মহীন, নিম্ন আয় ও অসহায় মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে সেনাবাহিনী।

এ সময় উপস্থিত দুস্থ মানুষজনকে সামাজিক দূরত্বে অবস্থান করতে দেখা যায়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ত্রাণ বিতরণের এ পুরো বিষয়টির নেতৃত্ব দিয়েছেন ডিএনসিসির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা আসিফ আহমেদ।

বৃহস্পতিবার (০২ এপ্রিল) সকাল ১০ টা থেকে মোহাম্মদপুরের বসিলা হাইস্কুলে শুরু হয় সেনাবাহিনীর ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম।

এরপর ১২ টায় মোহাম্মদপুর কাদেরাবাদ হাউসিং ও দুপুর ১ টায় বেড়িবাঁধ এলাকায় অসহায় ও দুস্থ মানুষের হাতে ত্রাণ তুলে দেওয়া হয়।

ত্রাণ বিতরণকালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, আমরা ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছি টোকেনের সাহায্যে। ত্রাণ বিতরণের সময় স্থানীয় কাউন্সিলরদের সহায়তা নেওয়া হচ্ছে।

এরই ধারাবাহিকতায় এদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ডিএনসিসির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডে ত্রাণ বিতরণে সেনাবাহিনীকে সব রকমের সহায়তা দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর আসিফ আহমেদ।

সেনাবাহিনীকে ত্রাণ বিতরণে সহায়তা প্রদানের বিষয়ে কাউন্সিলর আসিফ আহমেদ কালের আলোকে বলেন, ‘এখন অবধি প্রায় ৪৫ ভাগ মানুষের মাঝে আমরা ত্রাণ সহায়তা পৌঁছে দিতে পেরেছি।

আমার নিজস্ব তহবিল, বিত্তশালী ও সামর্থ্যবান বন্ধুদের কাছ থেকে নেওয়া অনুদান এবং বিভিন্ন পর্যায় থেকে আসা এসব ত্রাণ মানুষের মাঝে সুষ্ঠুভাবে বিতরণ করতে আমি কাজ করে যাচ্ছি।’

তিনি জানান, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের তহবিল ও স্থানের স্বল্পতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। দু’দিন আগে আমরা যেখানে এক প্যাকেটে ৬টি আইটেম দিতে পেরেছি এখন সেখানে নানা কারণে চারটি আইটেম দিতে হচ্ছে।

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি এবং পণ্যের স্বল্পতার কারণে এমন হচ্ছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষেরও জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেন জনবান্ধব এ কাউন্সিলর।

কালের আলো/এসআর/সিএইচ

Print Friendly, PDF & Email