বেসরকারি হাসপাতালকে সেবার মূল্য তালিকা দেয়ার নির্দেশ

প্রকাশিতঃ 4:05 pm | April 15, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ‘আমাদের স্বাস্থ্যসেবায় একশ দিনের কর্মসূচি, সেখানে সরকারি হাসপাতালে সেবা মূল্যের তালিকা দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে এবং সেটি নিশ্চিত করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘বেসরকারি হাসপাতালেও সেবার মূল্য তালিকা দেয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সেবার মান অনুযায়ী গ্রেডিং করে আমরা তালিকা তৈরি করব।’

সোমবার (১৫ এপ্রিল) দুপুরে সচিবালয়ে জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ-২০১৯ উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছি বেসরকারি সকল হাসপাতালগুলোর সুযোগ-সুবিধা দেখা হবে, সেখানে কোন সমস্যা দেখা দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। দরকার হলে যাদের সমস্যা বেশি থাকবে তাহলে সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হবে। আমরা মনিটরিং শুরু করেছি। ইতোমধ্যে সকল মেডিকেল কলেজের তথ্য জানাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, প্রায় অর্ধেক মেডিকেল কলেজের তথ্য পেয়েছি, আমাদের কাজ চলমান রয়েছে।’

স্বাস্থ্যসেবা আইনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘স্বাস্থ্যসেবা আইনের বিভিন্ন ধারা আছে, সেজন্য আমাদের স্টেকহোল্ডডারদের সঙ্গে আলোচনা করতে হয়। আমরা আলোচনা করেছি, এটা এখন ফাইনাল স্টেজে আছে। এখন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে আছে। সেখানে যাচাই-বাছাই শেষে আশা করি আগামী সংসদে এটি সংসদে পাশ হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আইন দিয়েই সবকিছু সমাধান হয়না। আমাদের নিজেদেরও দায়িত্ব রয়েছে। অনেক সময় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বাভাবিক কারণে রোগী মারা গেলে সেখানে ভাঙচুর হয়। এক্ষেত্রে ভাঙচুর করা হলে বা অবহেলার কারণে রোগী মারা গেলে দেশের প্রচলিত আইনেই তার বিচার করা যায়। দেশে যে এখন সে বিষয়ে আইন নেই, তা নয়।’

তিনি বলেন, ‘গড়ে মানুষের চিকিৎসা খরচের মোট ৬৭ শতাংশ পকেটে দেওয়া হয়। এটা অনেক বেশি, আমিও মনে করি। আমরা এটা কমিয়ে আনার চেষ্টা করছি। আপনারা জানেন দেশের বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে উচ্চ মূল্য পরিশোধ করতে হয় এবং বিদেশে গিয়ে কয়েক লাখ মানুষ বেশি খরচে চিকিৎসা নেয়। এই দুই খরচ যোগ হওয়ায় খরচের গড় পরিমাণ বেড়ে যায়।’

সেবা সপ্তাহের উদ্দেশ্যের কথা উল্লেখ করে জাহিদ মালেক বলেন, ‘সারাদেশে সরকারি ও বেসরকারি খাতে সেবার মান বৃদ্ধির জন্য আমরা এই সপ্তাহ পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এছাড়াও মানুষ যাতে স্বাস্থ্য সচেতন হোন সে লক্ষ্যেও কাজ করা হবে এ সপ্তাহে।

‘স্বাস্থ্য সেবা অধিকার, শেখ হাসিনার অঙ্গীকার’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে এই সেবা সপ্তাহে মন্ত্রণালয় বেশকিছু কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা, বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবাদান, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দ্বারা বিশেষায়িত হাসপাতালসহ সকল হাসপাতালের বহির্বিভাগে বিশেষ চিকিৎসা সেবা প্রদান।’

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘সেবার মূল্য তালিকা দিলে স্বচ্ছতা হবে। সেটি হলে কারো অভিযোগ থাকলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ আছে। আমরা চাই গ্রেড সেবার মূল্য তালিকা করতে। তারা সেবার সিদ্ধান্ত নেবে। এটি হলে সর্বোচ্চ মূল্য নির্ধারণের সুযোগ পাবো। আর সেটির ব্যত্যয় হলে ব্যবস্থা নেয়া যাবে।

এসময় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো: আসাদুল ইসলাম বলেন, ‘এই প্রক্রিয়া অনেক জটিল। এটা নির্ধারণ করা বেশ কঠিন। আমরা স্টেক হোল্ডারদের সঙ্গে কথা বলে সেবা মূল্য নির্ধারণের পথ খুঁজে বের করবো। কারণ অ্যাপোলো হাসপাতাল যেমন সেবা দেবে, অন্য সাধারণ হাসপাতালের সেবা তেমন নয়।’

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আগামী ১৬ থেকে ২০ এপ্রিল রাজধানীসহ সারাদেশে জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা সপ্তাহ পালিত হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান উপস্থিত ছিলেন।

কালের আলো/এমএইচএ

Print Friendly, PDF & Email