ডক্টরেট ডিগ্রি নিয়ে বিতর্ক, মুখ খুললেন মমতাজ

প্রকাশিতঃ 12:35 pm | April 14, 2021

শোবিজ ডেস্ক, কালের আলো:

গত ১০ এপ্রিল ভারতের তামিলনাড়ুর গ্লোবাল হিউম্যান পিস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি পেয়েছেন লোকগানের জনপ্রিয় শিল্পী মমতাজ। তবে এমন খবর প্রকাশ হওয়ার পর বিতর্ক ওঠে মমতাজের পাওয়া ডিগ্রির গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে। কারণ ভারতে গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি নামে বৈধ কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই বলে দাবি অনেকের। প্রতিষ্ঠানটি ডক্টরেট ডিগ্রি বিক্রি করে বলেও মন্তব্য করেন কেউ কেউ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই নিয়ে চলছে আলোচনা-সামালোচনা।

এমন অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার যোগাযোগ করা হলে গণমাধ্যমে মমতাজ বলেন, আমার কাছে বিশ্ববিদ্যালয়টি ভুয়া মনে হয়নি। আর ভুয়া বলে যে বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম আসছে সেটা এ বিশ্ববিদ্যালয় নয়।

মমতাজ আরও বলেন, আমাকে প্রতিষ্ঠানটি প্রপার ওয়েতে সম্মানসূচক ডিগ্রি প্রদান করেছে। আমি ওখানে উপস্থিত হয়ে এটা গ্রহণ করেছি। ওই আয়োজনে শত শত মানুষ ছিলেন। আমার হাতে এই সম্মাননা তুলে দেন বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান পি ম্যানুয়েল। একই সময়ে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করেছেন চেন্নাইয়ের সাবেক জেলা জজ থিরু এজে মুরুগানানথাম ও তামিলনাড়ুর আধ্যাত্মিক ধর্মগুরু খলিফা মাস্তান সাহেব। সেখানে হাজির হয়ে বিষয়টি কোনোভাবেই ভুয়া মনে হয়নি আমার কাছে।

তবে মমতাজ দাবি করলেও অনুসন্ধানে দেখা যায়, ভারতের ৯৭৯টি বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় নেই গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটির নাম। তাদের কেন্দ্র পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয় ৫৪টি, ভারতের বিভিন্ন রাজ্য পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয় ৪২৫টি, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় ৪২৫টি এবং ইউজিসি অ্যাক্ট-১৯৫৬-এর তিন সেকশন অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গণ্য করা হয় আরও ১২৫টি প্রতিষ্ঠানকে। এরমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়টির নাম নেই।

মমতাজের ডিগ্রিপ্রাপ্তি নিয়ে শুধু সমালোচনাই নয়, অনেকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। উচ্চশিক্ষিত না হয়েও এমন প্রাপ্তিকে বিশেষ অর্জন বলেছেন অনেকে।

প্রসঙ্গত, শনিবার (১০ এপ্রিল) ভারতের তামিলনাড়ুর গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি এ সম্মাননা দিয়েছে তাকে। তারা উল্লেখ করেন, বিশ্বের প্রথম শিল্পী হিসেবে ৭০০টির বেশি একক অ্যালবামের রেকর্ড, সুদীর্ঘ ৩০ বছর বাংলা গানকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরা ও সমাজসেবা ছাড়াও নানামুখী কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত রেখে নিজেকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন মমতাজ।

কালের আলো/এসকে/এমএম

Print Friendly, PDF & Email