সিনহার টোপেই ‘ফ্রন্টলাইনে’ সারওয়ার্দী, ভেস্তে গেছে সরকার উৎখাত ষড়যন্ত্রের ‘ছক’!

প্রকাশিতঃ 11:29 am | July 26, 2020

বিশেষ সংবাদদাতা, কালের আলো :

পাকিস্তানের ধারায় বাংলাদেশকে পরিচালিত করার আকাঙ্খা ছিল সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার। যুক্তরাজ্যে পলাতক ও দন্ডিত বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে ‘সমঝোতা’ করে সরকার উৎখাতের সুগভীর ষড়যন্ত্রেও মেতেছিলেন।

আরও পড়ুন: ‘নায়ক’ থেকে ঘৃণ্য ‘খলনায়ক’ চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দীর ‘চিত্রনাট্য’

কিন্তু সেই যাত্রায় সফল হতে না পারলেও পুরনো ষড়যন্ত্র থেকে সরে আসেননি মোটেও।

উল্টো অতীতের মতোই নতুন কৌশলে ষড়যন্ত্রের নীল নকশা প্রণয়ন করেছেন। এক্ষেত্রে ঢাবি’র বিতর্কিত ভিপি নূর এবং সেনাবাহিনীর সাবেক লেফটেন্যান্ট জেনারেল চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দীকে সামনে রেখে নতুন ছকও কষা হয়েছিল বলে সংশ্লিষ্ট মহলের ধারণা।

আরও পড়ুন: এবার নিজেই ‘ফাউল’ খেলছেন সেই চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী!

এই দুই নবীন-প্রবীণের নেতৃত্বে একটি স্বতন্ত্র প্ল্যাটফর্ম থেকে নতুন একটি রাজনৈতিক দলের আত্নপ্রকাশ ঘটানোর পরিকল্পনাও করেছিলেন তারা, এমনটিও মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

মূলত সরকারকে চাপে রেখে দেশজুড়ে ভয়ঙ্কর অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির মাধ্যমে সরকার পতনের ‘টার্গেট’ করেছিলেন।

আরও পড়ুন: র‌্যাবকে জড়িয়ে হাসান সারওয়ার্দী চক্রের ‘অপপ্রচার’, নেতৃত্বে ড.কামালের জামাতা!

এক্ষেত্রে নারী কেলেঙ্কারী ও দুর্নীতিসহ অনৈতিক নানা কর্মকান্ডে চরম সমালোচিত হাসান সারওয়ার্দীকে স্বাধীনতা বিরোধী এই চক্রটি নিজেদের ‘গুটি’ হিসেবে ব্যবহার করতে চেয়েছিল।

কারণ তাদের হাতে হাসান সারওয়ার্দীর কুকর্ম এবং অন্য নারীর সাথে ফোনালাপের অনেক অডিও এখন তাদের হাতে। ফলশ্রুতিতে তাদের অঈুলী হেলনেই চলতে বাধ্য হচ্ছেন সারওয়ার্দী।

আরও পড়ুন: সারওয়ার্দীর পথেই ব্রাউনিয়া, জঘন্য মিথ্যাচারে ভরপুর নরম-গরম নতুন ‘ছবক’

সূত্র মতে, সিনহার টোপেই ফ্রন্টলাইনে এসে খেলতে রাজি হয়েছিলেন সারওয়ার্দী। এজন্য বিরাট অঙ্কের ফান্ডও গঠন করা হয়েছিল।

কিন্তু সারওয়ার্দীর মতোন অতি বুদ্ধির ব্যাপারীর বালখিল্যতায় এই ষড়যন্ত্র অঙ্কুরেই ফাঁস হয়ে যায়। এতে করে সরকার উৎখাতের নতুন গোপন ষড়যন্ত্র আবারও মুখ থুবড়ে পড়ে।

অবশ্য এ ব্যর্থতার পুরো দায় পড়েছে সারওয়ার্দীর কাঁধে। তাঁর কান্ডজ্ঞানহীনতার কারণেই আগেভাগেই পরিকল্পনা ভেস্তে গেছে এমনটিও মনে করছে ষড়যন্ত্রকারী অশুভ চক্রটি। খবর একাধিক গোয়েন্দা সূত্রের।

আরও পড়ুন: সেনানিবাসে ‘অবাঞ্চিত’ হওয়ার ‘তথ্য গোপন’; নাটকের অবতারণা চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী’র!

সূত্র মতে, চারিত্রিক অধ:পতনসহ বহু দুষ্কর্মের কারণে সেনাপ্রধান হওয়ার দৌড় থেকে ছিটকে পড়েন চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী। এরপর স্বাভাবিক নিয়মেই লেফটেন্যান্ট জেনারেল পদ থেকে অবসরে যান।

কিন্তু নিজের দ্বিতীয় স্ত্রী ফারজানা ব্রাউনিয়ার উচ্চভিলাষী মানসিকতার দৌলতে রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্খা জাগে তাঁর ভেতর।

নিজেকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার শিখরে পৌঁছাতেই এগোতে থাকেন যুক্তরাজ্যের মাটিতে কষা ছকেই। সেই সূত্রেই ঢাবির বহুল বিতর্কিত ভিপি নুরের সঙ্গে পরিচয় ঘটে সারওয়ার্দীর। গোপনে বাড়ে ঘনিষ্ঠতাও।

বিভিন্ন মাধ্যম তাদের নিয়মিত যোগাযোগ হয়। সারওয়ার্দী বিভিন্ন সময় নুরকে সরকার বিরোধী কার্যক্রম চালিয়ে যেতে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন।

একই সূত্র জানায়, পুরো প্রক্রিয়া বাস্তবায়নে এবার ভিন্ন কৌশল গ্রহণ করেন যুক্তরাজ্যে পলাতক তারেক। সারওয়ার্দীর আনুষ্ঠানিক সরকার বিরোধী ‘রোল প্লে’ করতে তৃতীয় পক্ষ হিসেবে তিনি বেছে নেন দুর্নীতিতে অভিযুক্ত সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহাকে।

সিনহার মাধ্যমেই তারেকের সঙ্গে গোপন ‘দফারফা’ হয় সারওয়ার্দীর। তবে দেশের সাধারণ মানুষের মোটিভ বুঝেই নতুন রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে নিজেদের উপস্থাপন করতে সারওয়ার্দী-নুরের নেতৃত্বে একটি রাজনৈতিক দল গঠনের কার্যক্রমও চলে ভেতরে ভেতরে।

যাবতীয় ব্যয়ভারসহ মোটা অঙ্কের ‘ক্যাশ’ সংগ্রহও করেন সারওয়ার্দী। আন্তর্জাতিক মহলের সহায়তারও আশ্বাস মেলায় সাবেক ওই সেনা কর্মকর্তা নতুন চেহারায় হঠাৎ করেই সামনে আসেন, কালের আলোকে এমনটিই বলেছে গুরুত্বপূর্ণ একাধিক সূত্র।

তাদের ভাষ্য মতে- ‘পুরনো বোতলে নতুন মদ’ আদলে যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত বিএনপি’র পলাতক রাজনীতিক তারেকের পলিসি বাস্তবায়নে ‘হার্ডহিটার’ হিসেবেই এবার সরাসরি দৃশ্যপটে হাজির হয়েছিলেন সারওয়ার্দী।

সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করে ফায়দা লুটতেই সেনাবাহিনীকে নিয়ে ঢালাও মিথ্যাচার, সরকার, দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব, গণতন্ত্র ও বাক স্বাধীনতা নিয়ে মিথ্যার তুবড়ি ছুটিয়ে ‘ঝড়ো ইনিংস’ খেলে আত্নতৃপ্তিতে ভুগতেও শুরু করেন।

নিজেকে ‘সাধু’ হিসেবে তুলে ধরতে গিয়ে গোটা দেশের বিরুদ্ধেই বিষোদ্গার করেন। কিন্তু বিএনপি’র ফখরুল-রিজভীদের মতো তাদের সঙ্গে গলায় গলা মিলানোর স্টাইল ‘নকল’ করতে গিয়েই সচেতন মানুষের কাছে ধরা পড়েন ধুরন্ধর মতলববাজ সারওয়ার্দী।

স্থানীয় একাধিক সূত্র বলছে, এসকে সিনহা মূল ‘মেন্টর’ হলেও নিজের ক্ষমতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী ক্রমশ সুসম্পর্ক গড়ে তোলেন পিনাকী ভট্টাচার্য, তাসনিম খলিল, একেএম ওয়াহেদুজ্জামান ও শামসুল আলমের মতো পলাতক ও দুর্নীতিবাজ, কথিত সাংবাদিক ও আত্মস্বীকৃত নাস্তিকদের সঙ্গে।

‘সারওয়ার্দী কার্ড’ ব্যবহার করে কতিপয় দেশের সংস্থাদের লাভবান করতে দেশবিরোধী এ অশুভ চক্রটি নানাভাবেই অপতৎপরতা চালানোরও চেষ্টা করেন।

একই সঙ্গে এসব অপকর্মকারী চক্রটির সঙ্গে সারওয়ার্দীর একাধিক বিয়ের পিড়িতে বসা স্ত্রী ফারজানা ব্রাউনিয়ার চাউর হওয়া গোপন সম্পর্কের বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সূত্র জানায়, সারওয়ার্দী সেনাবাহিনীর বিভিন্ন দায়িত্বশীল পদে থাকার সময়ে সরকার বিরোধী বিভিন্ন রাজনীতিক, সুশীল সমাজের একাংশসহ যারা সুবিধাভোগী হয়েছেন তারাও সারওয়ার্দীকে ষড়যন্ত্রের ছক কষার বিষয়ে মদদ দিচ্ছেন।

সরকারের বিরুদ্ধে এই চক্রটি কী ধরণের অপতৎপরতা চালাচ্ছেন তাও নজরে রেখেছেন বিভিন্ন গোয়েন্দারা।

কালের আলো/এমএ/এপি

Print Friendly, PDF & Email