বিএনপি-জামায়াত ইসরায়েলের দোসরে রূপান্তরিত হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 8:31 pm | May 20, 2024

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ইসরায়েল যে ফিলিস্তিনের গাজায় নিরীহ নারী-শিশু হত্যা করছে, এর বিরুদ্ধে বিএনপি-জামায়াত একটা শব্দও বলেনি। এরা ইসরায়েলের দোসরে রূপান্তরিত হয়েছে।

সোমবার (২০ মে) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে ওলামা লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি ও তাদের দোসরেরা মুসলিমদের ধর্মীয় অনুভূতি নিয়ে রাজনীতি করে, কিন্তু আলেম-ওলামাদের জন্য তারা কিছু করেনি। শুধু আলেম-ওলামাদের ব্যবহার করেছে। আওয়ামী লীগ আলেম-ওলামাদের ব্যবহার করে না, বরং তাদের জন্য কাজ করে।

আওয়ামী লীগ আলেম-ওলামাদের দাবি প্রতিষ্ঠিত করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ দেশে আলেম-ওলামাদের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যা করেছেন, বঙ্গবন্ধুর পর আর কোনো সরকার তা করেনি। বায়তুল মোকাররম মসজিদের কোনো মিনার ছিল না, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিনার নির্মাণের উদ্যোগ নেন। ’৯৬ সালে সরকার গঠন করার পর তিনি মিনারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পাশাপাশি কাজও শুরু করেন। কিন্তু সরকার পরিবর্তনের পর সাত বছরে সেই মিনার নির্মাণ হয়নি। পরে আবারও ২০০৮ সালে সরকার গঠনের পর সেই মিনার নির্মিত হয়েছে।

তিনি বলেন, আলেম-ওলামারা দাবি করেননি, তারপরও বাংলাদেশে ১ লাখ ২০ হাজার মসজিদভিত্তিক মক্তব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ উদ্যোগে করেছেন। প্রতিটি মক্তবে একেকজন আলেম ৫ হাজার ২শ’ টাকা করে ভাতা পান। এর বাইরেও প্রতিটি উপজেলায় আরেকটি প্রজেক্টের মাধ্যমে মসজিদভিত্তিক মাদরাসা স্থাপন করা হয়েছে, যেখানে শিক্ষকরা সাড়ে ১২ হাজার টাকা করে ভাতা পান।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আজ প্রতিটি জেলায়-উপজেলায় যে মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে- এমন দৃষ্টিনন্দন মসজিদ ভেতরে-বাইরে থেকে দেখলে চোখ জুড়িয়ে যায়। পৃথিবীর কোনো দেশে সরকারি উদ্যোগে এত মসজিদ একসঙ্গে হয়েছে কি না আমার জানা নেই।

তিনি বলেন, ব্রিটিশ আমল থেকে এ দেশে আলেম-ওলামাদের দাবি ছিল- একটি ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়। ব্রিটিশের পর পাকিস্তান হলো, পাকিস্তানের পর বাংলাদেশ স্বাধীন হলো, বঙ্গবন্ধুকে সাড়ে ৩ বছরের মাথায় হত্যা করা হলো, কেউ এই দাবি পূরণ করেনি। জিয়াউর রহমান আলেম-ওলামাদের পাশে বসিয়ে এই দাবি পূরণের আশ্বাস দিয়েছিল, এরশাদ সাহেবও আশ্বাস দিয়েছিলেন যে মসজিদভিত্তিক মাদরাসা ও ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় দুটোই করা হবে। কিন্তু কেউ দাবি পূরণ করেনি।

মন্ত্রিসভায় এপোস্টল কনভেনশন স্বাক্ষরের অনুমোদন : বছরে সাশ্রয় হবে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জানিয়েছেন, মন্ত্রিসভায় এপোস্টল কনভেনশন স্বাক্ষরের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক এই কনভেনশনে স্বাক্ষর সম্পাদন হলে বিদেশগামী শিক্ষার্থী ও মানুষের বিভিন্ন সনদ, দলিল, হলফনামায় নিজ দেশের যথাযথ সত্যায়ন থাকলে অন্য দেশে গিয়ে পুণরায় সত্যায়নের প্রয়োজন হবে না এবং এর ফলে দেশের মানুষের বছরে সাশ্রয় হবে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা।

মন্ত্রী বলেন, এই প্রস্তাবটি সোমবার মন্ত্রিসভায় পাশ হয়েছে, অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই সিদ্ধান্ত আজ মন্ত্রিসভা দিয়েছে। এটি কার্যকর হলে শিক্ষার্থী, অভিবাসী, কর্মী, পারিবারিক পুণর্মিলন প্রত্যাশীসহ বিদেশগামী সকলের যে নানা ডকুমেন্ট এ দেশে এবং বিদেশের দূতাবাসসহ নানা দপ্তরে সত্যায়নের প্রয়োজন হয়, সেটি শুধু এ দেশে সত্যায়ন করলেই হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে সব দেশের দূতাবাস নেই। ৯০টি দেশের দূতাবাস রয়েছে দিল্লিতে। সেখান থেকে সত্যায়ন করে আনতে আবার ভারতের ভিসা লাগে। এ সবের জন্য যে অর্থ, সময় ও পরিশ্রম ব্যয় হয়, এই কনভেনশনে যুক্ত হলে তা বেঁচে যাবে, বছরে ৪০০ থেকে ৫০০ কোটি টাকা সাশ্রয় হবে।

এটি কার্যকর হতে প্রায় ৬ মাস লাগবে জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এপোস্টল কনভেনশনে যুক্ত হতে এর ১২৬টি সদস্য রাষ্ট্রকে অবহিত করতে হয়, কিছু আনুষ্ঠানিকতা রয়েছে।

সাংবাদিকরা এ সময় হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় ইরানের প্রেসিডেন্ট এব্রাহিম রেইসি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমিরাব্দুল্লাহিয়ানের  মৃত্যুর কথা উল্লেখ করলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এ মৃত্যুকে মর্মান্তিক ও অত্যন্ত দু:খজনক বলে বর্ণনা করেন ও নিহতদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন।

তিনি বলেন, প্রথমে ধারণা করা হয়েছিল, হেলিকপ্টারটি জরুরি অবতরণ করেছে, কিন্তু পরে দেখা যায় সেটি ক্র‍্যাশ করেছে। আমরা রাষ্ট্রীয়ভাবে শোক জানাচ্ছি।

‘বিশকেকে ভালো আছেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা’
কিরগিজস্তানের রাজধানী বিশকেকে সম্প্রতি বিদেশি শিক্ষার্থীদের ওপর স্থানীয়দের হামলার ঘটনায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান জানান, এখনও পর্যন্ত সেখানে বাংলাদেশি ছাত্রদের কোনো গুরুতর আহত বা হতাহতের খবর নেই। পাশের দেশ উজবেকিস্তানের তাসখন্দে অবস্থানরত আমাদের রাষ্ট্রদূতকে সেখানে যেতে বলা হয়েছে। তিনি স্থানীয় সময় বিকেলে বিশকেকে পৌঁছে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের খোঁজখবর নিতে ক্যাম্পাস ভিজিট করবেন এবং কিরগিজ পররাষ্ট্র ও অভ্যন্তরীণ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে যথাযথ পদক্ষেপ নেবেন। একজন শিক্ষার্থীর দেশে ফেরার জন্য খোলা চিঠি দেওয়া প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, সাধারণ শিক্ষার্থীরা এ ধরনের কোনো আবেদন করেননি।

এ সময় অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেনি ওঙের ঢাকা সফরকালে মঙ্গলবার বিকেলে তার সাথে বৈঠক হবে বলে জানান ড. হাছান। রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় এ সাক্ষাতে দ্বিপাক্ষিক বিষয়াবলীর মধ্যে বিশেষত বাংলাদেশে অস্ট্রেলীয় বিনিয়োগ, বাংলাদেশিদের অভিবাসন, মৌসুমি কর্মসংস্থান, সেখানে প্রবাসীদের কল্যাণ, জ্বালানি ও পরিবেশ সংরক্ষণে সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা প্রাধান্য পাবে বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

কালের আলো/ডিএস/এমএম

Print Friendly, PDF & Email