বিরল এক দৃষ্টান্ত স্থাপন এমপি সালাম মূর্শেদীর

প্রকাশিতঃ 6:26 pm | May 13, 2024

বিশেষ সংবাদদাতা, কালের আলো:

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্যের আত্মীয়দের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী না হতে দলীয় হাইকমান্ডের সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকলেও অনেকে সেই নির্দেশনা থোড়াই কেয়ার করেছেন। উল্টো নিজের পক্ষে গেয়েছেন সাফাই। তবে এক্ষেত্রে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের পর ব্যতিক্রম এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন খুলনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদী। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ উপেক্ষা করে খুলনার রূপসা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশ নেওয়া ভাতিজা, যুবলীগ নেতা নোমান ওসমানী রিচির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছেন তিনি। রীতিমতো সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দিয়েছেন। রোববার (১২ মে) রাতে নিজের ফেসবুক পেজে তিনি এ ঘোষণা দেন।

নিজের ভাতিজার বিষয়ে নমনীয় না হয়ে হার্ডলাইনের মাধ্যমে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে প্রশংসিত হয়েছেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম এ সদস্য। দেশসেরা সাবেক এ নন্দিত ফুটবলার রাজনীতি আর পরিবারকে এক করে দেখতে নারাজ। ইতোমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তাঁর ঘোষণাপত্র নিয়ে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। দলের ভেতর ঘাপটি মেরে থাকা ষড়যন্ত্রকারীদের মাথায় হাত পড়েছে। পরিবারতন্ত্রের বাইরে রাজনীতিকে উর্ধ্বে স্থান দেওয়া সালাম মূর্শেদীর এ সিদ্ধান্ত অন্যদের জন্যও হতে পারে বড় দাওয়াই, এমনটিই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

জানা যায়, আগামী ৫ জুন রূপসা উপজেলা পরিষদের নির্বাচন হবে। এ নির্বাচনে অংশ নিতে আব্দুস সালাম মূর্শেদীর ভাইয়ের ছেলে যুবলীগ নেতা নোমান ওসমানী রিচি চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

‘সালাম মূর্শেদী এমপি’ নামে নিজের ফেসবুক পেজে রোববার (১২ মে) রাতে দেওয়া ঘোষণাপত্রে টানা তিনবারের এ সংসদ সদস্য উল্লেখ করেন, ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষিত হয়েছে। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ও সমাজ বিনির্মাণে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন পরিচালনার যে অঙ্গীকার রক্ষা করে চলেছে, তা সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে। আগামী ৫ জুন রূপসা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও প্রভাবমুক্ত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা মোতাবেক সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার মধ্যে নির্বাচনী আচারণবিধি পালনে আন্তরিকতার সঙ্গে সচেষ্ট রয়েছি।

রূপসা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমার ভাতিজা নোমান ওসমানী রিচি চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন। যে কারণে আমি দুঃখিত। আমার ভাতিজার নৈতিক স্খলন ও অসৎ মানসিকতার কারণে আমি তাকে পরিত্যাগের ঘোষণা করি। আমার সামাজিক-রাজনৈতিক কর্মপ্রবাহের প্রধান সমন্বয়কারী পদ থেকে তাকে বিগত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রায় দুই বছর আগে অব্যাহতি প্রদান করি। আমার সামাজিক ও রাজনৈতিক ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার লক্ষ্যে আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের পৃষ্ঠপোষকতায় নোমান ওসমানী রিচি রূপসা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছেন।

আমি এই ঘোষণাপত্রের মাধ্যমে রূপসা উপজেলার সর্বস্তরের জনসাধারণের অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, আমার ভাতিজার সঙ্গে আমার এবং আমার পরিবারের কোনও সম্পর্ক নেই। মূলত আমাকে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য নোমান ওসমানী রিচি রূপসা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন। বিষয়টি সুস্পষ্টভাবে জানানোর জন্য এই ঘোষণাপত্র প্রকাশ করলাম।’

 

কালের আলো/আরআই/এমকে

Print Friendly, PDF & Email