২ সপ্তাহের মধ্যে শিক্ষার্থীরা পূর্নাঙ্গ বই পাবে: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 5:52 pm | January 04, 2023

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে শিক্ষার্থীরা তাদের শ্রেণির পূর্নাঙ্গ বই হাতে পাবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

তিনি বলেছেন, বিগত অতিমারি ও বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতির মধ্য দিয়েও বছরের প্রথম দিন আমরা বই উৎসব করতে পেরেছি এটাই একটি বড় বিষয়। কিন্তু সেটাকে পাশ কাটাবার জন্য নানান রকম কথা বলা হচ্ছে। আমি মনে করি প্রতিটি শিশুই বই পেয়েছে। তবে যে শিশু পাঁচটি বই পাওয়ার কথা, সে তিনটি বই পেয়েছে।

বুধবার (০৪ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্পে নিবন্ধিত জেলেদের মাঝে বকনা বাছুর বিতরণ শেষে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, এ বছর বই ছাপানোর জন্য বিদেশ থেকে কাগজ আনার কোনো সুযোগ ছিল না। আমাদের যে কাগজ ছিল সেটি দিয়েই বই ছাপাতে হয়েছে। আর এটির মান একেবারে খারাপ হওয়ার কথা নয়। শুধামাত্র কাগজের উজ্জলতা কম হতে পারে। এটিতে কোনো সমস্যা নয়। কারণ কাগজে বেশি উজ্জলতা হলে চোখের জন্যেও ভালো হয় না। বিদেশেও যখন বই ছাপা হয়, তখনও উজ্জলতা কমিয়ে বই ছাপানো হয়। আমাদের দেশে অনেকেই মনে করেন কাগজ যতো বেশি সাদা হবে ততোই ভালো।

তিনি আরও বলেন, আগে একটি বই অনেকজন শিক্ষার্থী পড়েছে। এখন একটি বই একজন শিক্ষার্থী একবছরই শুধু পড়ে। সুতরাং এই বই নিয়ে বড় ধরণের কোনো অসুবিধা হওয়ার কারণ নেই। আমাদের যে কোনো বিষয় নিয়ে গেল গেল বলে রব উঠে। কিন্তু সেটি সত্যিকার অর্থে দেখে এবং তার গুনাগুন বিচার না করে, সেটি কেন করা হয়েছে, কি ধরণের সমস্যা হচ্ছে, সেগুলো নিয়ে আমরা কেউ মাথা ঘামাই না।

পরে চাঁদপুর স্টেডিয়ামে জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত শেখ কামাল দ্বিতীয় বাংলাদেশ যুব গেমসের উদ্বোধন করেন দীপু মনি। এতে আটটি উপজেলা দলের বালক-বালিকা দল ছয়টি খেলায় অংশ নেয়।

এ সময় জেলা প্রশাসক কামরুল হাসানের সভাপতিত্বে ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফার সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান, ফরিদগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম (রোমান), চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আহসান উল্লাহ প্রমুখ।

পরে শিক্ষামন্ত্রী ২০ জন জেলেকে বিকল্প কর্মসংস্থান হিসেবে একটি করে বাছুর, ২৩ জন প্রতিবন্ধীর মাঝে হুইলচেয়ার ও ৩০০ অসহায় শীতার্ত ব্যক্তির মধ্যে কম্বল বিতরণ করেন।

এ সময় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সারাদেশেই এখন শীতের তীব্রতা বেড়েছে। আজকে চাঁদপুরে এসে দেখলাম বেশ শীত অনুভূত হচ্ছে। আজকে যাদের শীত বস্ত্র দেওয়া হচ্ছে তাদের অনেকের হয়ত শীতবস্ত্র আছে। তারপরেও দরকার থাকতে পারে। এসব বিষয়গুলো চিন্তা করেই প্রধানমন্ত্রী চাঁদপুরের সাত হাজার মানুষের জন্য শীতবস্ত্র (কম্বল) পাঠিয়েছেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী সবার কথা মনে রাখেন। এটি একমাত্র শেখ হাসিনার পক্ষেই সম্ভব। আজকে মানুষ তিনবেলা খেতে পারেন। এখন কারো ঘরে কোনো অভাব নেই। দেশের জনগণ ভালো থাকলেই তিনি ভাল থাকবেন। আজ দেশের প্রতিটি ক্ষেত্রেই উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। অন্য কোনো সরকার এমন উন্নয়ন করতে পারেনি। যাদের ঘর নেই প্রধানমন্ত্রী সেসব পরিবারকে ঘর করে দিয়েছেন এবং দিচ্ছেন।

শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) কামরুল হাসান।

চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সানজিদা শাহনাজের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ইমতিয়াজ হোসেন, জেলা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রের কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র নন্দী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলী এরশাদ মিয়াজীসহ সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

পরে একই অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী জেলা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রের উদ্যোগে ২৩ জন প্রতিবন্ধীর মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ করেন।

কালের আলো/এসবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email