দক্ষতা ও সক্ষমতা যাচাইয়ে শীতকালীন প্রশিক্ষণে সেনাবাহিনী, আভিযানিক সক্ষমতা বাড়াতে চান সেনাপ্রধান

প্রকাশিতঃ 9:01 pm | December 21, 2022

বিশেষ সংবাদদাতা, কালের আলো:

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে বিশ্বমানের সেনাবাহিনীতে রূপান্তরের কর্মযজ্ঞ চলছে প্রতিনিয়ত। লক্ষ্যপূরণে বাস্তবসম্মত ও যুগোপযোগী প্রশিক্ষণকেই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল ড.এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। নিজেদের দক্ষতা ও সক্ষমতা যাচাইয়ে তাঁর নেতৃত্বাধীন এই বাহিনীটি পরিপূর্ণভাবে মনোনিবেশ করেছে শীতকালীন প্রশিক্ষণে। ইতোমধ্যেই নিজ নিজ দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় সেনা সদর ও সকল ফরমেশন পূর্ণাঙ্গরূপে মোতায়েন রয়েছে।

বুধবার (২১ ডিসেম্বর) সকালে চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের বারৈয়ারহাটে ২৪ পদাতিক ডিভিশন ও ৭ স্বতন্ত্র এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারির শীতকালীন প্রশিক্ষণ পর্যবেক্ষণ করে সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে সৈনিকদের দৃঢ় মনোবলের মাধ্যমে সেনাবাহিনীর আভিযানিক সক্ষমতা বৃদ্ধির তাগিদ দিয়েছেন। তিনি জোর দিয়েছেন ‘কঠিন প্রশিক্ষণ সহজ যুদ্ধ’ নীতিতে।

নিজের জবানীতেই সেনাপ্রধান তুলে ধরেছেন শীতকালীন এই প্রশিক্ষণের গুরুত্ব ও তাৎপর্য। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশ সেনাবাহিনী শান্তিকালীন সময়ে যে বিষয়টা সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকে সেটা হলো আমাদের প্রশিক্ষণ। আর আমরা যত রকম প্রশিক্ষণ করি তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশিক্ষণ হলো এই শীতকালীন প্রশিক্ষণ।’

সেনাপ্রধান যুদ্ধকালীন প্রস্তুতি স্বরূপ বিভিন্ন রণকৌশলগত প্রশিক্ষণ কার্যাবলী পর্যবেক্ষণ করে সন্তোষ প্রকাশ করেন। এ সময় তিনি আধুনিক ও যুগোপযোগী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সদা প্রস্তুত থাকতে উপস্থিত সেনা কর্মকর্তা, জেসিও ও অন্যান্য পদবীর সেনাসদস্যদের দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।

জানা যায়, গত সোমবার (১৯ ডিসেম্বর) থেকে বারৈয়ারহাটে শুরু হয়েছে সেনাবাহিনীর এই শীতকালীন প্রশিক্ষণ। যুদ্ধকালীন প্রস্তুতির অংশ হিসেবে এখানে প্রদর্শন করা হয় বিভিন্ন কৌশল। পাশাপাশি পরীক্ষা করা হচ্ছে সেনাবাহিনীতে নতুন সংযোজিত অত্যাধুনিক বিভিন্ন সমরাস্ত্র। বাস্তবধর্মী সামরিক সরঞ্জামাদির ব্যবহার এই প্রশিক্ষণের মূল লক্ষ্য। এসব সরঞ্জামাদি দিয়ে অনায়েসেই ধ্বংস করা যাবে শত্রুপক্ষের যুদ্ধবিমান।

ভাগ্যবিড়ম্বিত ৫ শতাধিক শীতার্ত মানুষকে শীতবস্ত্র
বঙ্গবন্ধুর দর্শন বাস্তবায়নের মাধ্যমে ‘জনগণের সেনাবাহিনী’ হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে চলা বাংলাদেশ সেনাবাহিনী শীতকালীন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নিজেদের যুগোপযোগী করার পাশাপাশি নানাভাবেই দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়াচ্ছে। এদিন সেনাপ্রধান জেনারেল ড.এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ নিজ বাহিনীর দেশসেবা ও জনকল্যাণমূলক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে বারৈয়ারহাট এলাকায় মানবিকতার উপহার তুলে দেন ভাগ্যবিড়ম্বিত শীতার্ত মানুষের হাতে। আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) জানায়, সেনাবাহিনী প্রধান ৫০০টি দরিদ্র ও শীতার্ত পরিবারের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেন।

জাতির আস্থার প্রতীক বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এমন জনকল্যাণমূলক ও মানবিক কার্যক্রম ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে বলে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন সেনাপ্রধান। সেনাবাহিনীর এমন সহায়তা পেয়ে খুশি স্থানীয় জনসাধারণও।

এ সময় ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) ও চট্টগ্রামের এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল মিজানুর রহমান শামীমসহ সেনাসদর এবং চট্টগ্রাম এরিয়ার ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তারা, জেসিও ও অন্যান্য পদবীর সেনাসদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

কালের আলো/এমএএএমকে

Print Friendly, PDF & Email