মানুষের ভালোবাসার প্রতিদান দেওয়ার যোগ্যতা আমার নেই : বেনজীর

প্রকাশিতঃ 6:41 pm | October 01, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

কর্মজীবনের শেষ দিনে আবেগঘন ফেসবুক পোস্ট দিয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার)।

শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) আইজিপির দায়িত্ব হস্তান্তরের পর রাতে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।

সেখানে সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বেনজীর আহমেদ লিখেছেন, সবার ভালোবাসার প্রতিদান দেওয়ার যোগ্যতা আমার নেই। তিনি মনে করেন, পুলিশের সর্বোচ্চ পদে বসার বিষয়টি সম্ভব হয়েছে একমাত্র সৃষ্টিকর্তা ও প্রধানমন্ত্রীর বদান্যতায়। এজন্য তিনি সবার প্রতি ঋণী বলেও জানিয়েছেন ফেসবুক স্ট্যাটাসে।

গতকাল শুক্রবার বেনজীর আহমেদকে যখন বিদায় জানানো হয় তখন তিনি পুলিশ সদর থেকে গাড়িতে করে যাওয়ার সময় আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। পরে রাতে ফেসবুকে চাকরি থেকে অবসরে যাওয়া, চাকরি জীবনে সহকর্মী, সর্বোচ্চ পদে আসীন থেকে বিদায়সহ নানা কথা জানিয়েছে একটি স্ট্যাটাস দেন। বেনজীর আহমেদের এই স্ট্যাটাসে সবাই অভিনন্দন, শুভেচ্ছা ও লাভ রিয়্যাক্ট দেন।

পাঠকের জন্য বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শকের ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবহু পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

ফেসবুক স্ট্যাটাসে বেনজীর আহমেদ লিখেছেন, ‘পড়াশুনা শেষ করে যে কর্মজীবন শুরু করেছিলাম বাংলাদেশের আইজিপি হিসেবে আজকে তার যবনিকাপাত হলো। পরম করুণাময় আল্লাহ তায়ালার ইচ্ছায় ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বদান্যতায় আমার ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশ পুলিশের শীর্ষ তিন পদে দায়িত্ব পালনের দুর্লভ সুযোগ হয়েছে।

প্রতিটি পদে কর্তব্য পালনের সময় আমি আমার সহকর্মীদেরকে সঙ্গে নিয়ে সর্বোচ্চ মেধা, দক্ষতা, অভিজ্ঞতা, আন্তরিকতা, নিষ্ঠা, দেশপ্রেম এবং পেশার প্রতি কঠোর আনুগত্য দিয়ে দেশ ও দেশের মানুষের জন্য কাজ করার চেষ্টা করেছি।

‘দায়িত্ব পালনকালে চেনা অচেনা, পরিচিত অপরিচিত দেশের সাধারণ মানুষ আমাকে যে শ্রদ্ধা, সম্মান ও ভালোবাসা প্রদর্শন করেছেন তার কোনো প্রতিদান দেওয়ার যোগ্যতা বা ক্ষমতা কোনোটাই আমার নেই। চাকরির শুরুকাল থেকে আজ পর্যন্ত আমার প্রতিটি সহকর্মীর কাছ থেকে আমি যে সহযোগিতা ও সমর্থন পেয়েছি তার জন্য তাদের প্রত্যেকের কাছে আমার অনেক ঋণ।

শিখেছি সবার কাছ থেকে, জ্যেষ্ঠ, সতীর্থ, অনুজ বিশেষ করে তাদেরকে শ্রদ্ধার সঙ্গে আজ স্মরণ করতে চাই যারা দীর্ঘ সময়ব্যাপী “মেইকিং অভ আ বেনজীর” এর লক্ষ্যে ব্যক্তিগতভাবে ভূমিকা রেখেছেন। সেই সঙ্গে পরিবার, শিক্ষক ও বন্ধুবান্ধব।

আরও কৃতজ্ঞতা সব সহকর্মীদের কাছে যারা আমার নির্দেশে জনগণ, দেশ ও রাষ্ট্রের নিরাপত্তা ও কল্যাণের জন্য জীবনের সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিয়ে কর্তব্য পালন করেছেন, অনেকে আহত হয়েছেন, কেউ কেউ শাহাদাতবরণ করেছেন। দেশের গণমানুষের সার্বিক কল্যাণ হোক। আগামীর প্রতিটি চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জিতে যাক দেশ। প্রিয় মাতৃভূমিকে অভিবাদন।

কালের আলো/এমএইচ/এসবি

Print Friendly, PDF & Email