দুর্যোগ মোকাবেলায় বৈশ্বিক প্রস্তুতিতে বাংলাদেশ, ৪০ দেশের মন্ত্রীদের সম্মেলনে দ্যুতিময় ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 6:17 pm | September 19, 2022

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: এনামুর রহমান এমপি

বিশেষ সংবাদদাতা, কালের আলো:

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনাকে আধুনিক করার নানা কৌশলের চর্চা আর উদ্ভাবন চলছে বিশ্বজুড়ে। দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে বৈশ্বিক প্রস্তুতিতে শামিল হচ্ছে বাংলাদেশ। সক্রিয় উপস্থিতির মাধ্যমে প্রতিনিয়ত নিজেকে পরিবর্তনের মাধ্যমে জোরালো বক্তব্য উপস্থাপনের মাধ্যমে দেশটি হয়ে উঠেছে অনন্য এক কন্ঠস্বর। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ক্ষয়ক্ষতি আর প্রাণহানি কমিয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যকর দিকনির্দেশনায় ঈর্ষণীয় সাফল্য পেয়েছে ডা: এনামুর রহমানের নেতৃত্বাধীন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।

আরও পড়ুন: ব্রিসবেনের বুকে দুর্যোগ সহনশীল বাংলাদেশের নব উজ্জীবন, দেশপ্রেমের প্রভা-দীপ্তি প্রতিমন্ত্রীর

দুর্যোগ মোকাবিলায় ক্রমশ নিজেদের শক্তি ও সক্ষমতা বাড়াচ্ছে দেশটি। এবার ৪০ টি দেশের মন্ত্রীদের অংশগ্রহণে সুদূর অষ্ট্রেলিয়ায় এশিয়া-প্যাসিফিক মন্ত্রী পর্যায়ের দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসের সম্মেলনে (এপিএমসিডিআরআর) বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: এনামুর রহমান এমপি টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জনে দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকারের নিরলসভাবে কাজ করে যাওয়ার বিষয়টি দৃঢ়তার সঙ্গেই উচ্চারণ করেন।

দুর্যোগ ঝুঁকি মোকাবেলায় সাম্য, মৈত্রী ও সুদৃঢ় ভ্রাতৃত্ব স্থাপনের এই বৈশ্বিক মঞ্চে শাশ্বত সুন্দর নীতিতেই লাল-সবুজের বাংলাদেশকে উদ্ভাসিত করেন প্রতিমন্ত্রী। দুর্যোগ ঝুঁকি মোকাবেলায় দক্ষতা অর্জনে উৎসাহিত করেছেন। সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দুর্যোগ সহনশীল সুন্দর কল্যাণময়ী দেশ বিনির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বকে অন্তরঙ্গ অনুভবের শাব্দিক প্রকাশে দ্যুতিময় করেছেন।

অষ্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) থেকে শুরু হওয়া চার দিনব্যাপী এই সম্মেলনে গভীর অন্তর্দৃষ্টিতে সহজবোধ্য বিশ্লেষণে তিনি তুলে আনেন দুর্যোগঝুঁকি হ্রাসে সরকারের বহুমাত্রিক পদক্ষেপকে। নিখুঁত ভাষার মহিমায় আকর্ষণীয় ও গভীর চিন্তাপ্রসূ হয়ে উঠে প্রতিমন্ত্রী ডা: এনামুর রহমানের বক্তব্য।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বাস্তবতা, প্রতিবেশ ও সময়মুখর শব্দগুচ্ছে দুর্যোগ সংক্রান্ত স্থায়ী আদেশ এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার জন্য চার বছর মেয়াদী জাতীয় পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্তসহ নানামুখী প্রয়াসকে বিশ্ব পরিমন্ডলে যৌক্তিক আখরে অবিচ্ছেদী নির্মোহ কন্ঠে উপজীব্য করে তোলা হয়।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমে বিশ্বে বাংলাদেশের রোল মডেল হয়ে উঠা এবং গত ৫ বছর জাতীয় বাজেটের ৮ দশমিক ৮ শতাংশ দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস খাতে সরকারের বরাদ্দ দেয়ার বিষয়টি উল্লেখ করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: এনামুর রহমান।

‘দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনাকে পরবর্তী পর্যায়ে উন্নীত করতে বাংলাদেশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে’ জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সেন্দাই ফ্রেমওয়ার্কের মধ্য-মেয়াদী পর্যালোচনার শীর্ষ কৌশলগত ফলাফলের সাথে সামঞ্জস্য রেখে বাংলাদেশ দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস (ডিআরআর) কৌশলগুলোকে আরও আপডেট করেছে। যা সেন্দাই ফ্রেমওয়ার্ক, এসডিজি এবং প্যারিস চুক্তির সাথে সামঞ্জস্য বৃদ্ধি করেছে।

দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস কৌশলটি দুর্যোগ সংক্রান্ত স্থায়ী আদেশ এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার জন্য জাতীয় পরিকল্পনা ২০২১-২০২৫ এ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ২০২১ থেকে ২০২৫ সাল পর্যন্ত চতুর্থ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় জাতীয় বাজেটের প্রায় ৯ থেকে ১১% দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে বরাদ্দ করা হয়।’

করোনা মহামারির ভেতর বাংলাদেশ ২০২০ সালে পাঁচবার বন্যা ও ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের মতো দুর্যোগ দক্ষতার সঙ্গে সামাল দিয়েছে জানিয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: এনামুর রহমান আরও বলেন, ‘সামাজিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্যবিধি বজায় রেখে প্রায় ২.৪ মিলিয়ন মানুষকে ১৪ হাজারের বেশি আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। ২০২২ সালের মে এবং জুনে দেশের সিলেট ও সুনামগঞ্জে ১২২ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা হয়েছে। আমরা আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক করে বন্যার্তদের ক্ষয়ক্ষতি পূরণের উদ্যোগ বাস্তবায়ন করি।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এই বন্যার মূল শিক্ষা হল সেন্দাই ফ্রেমওয়ার্কের প্রতি দৃঢ় প্রস্তুতির সাথে টেকসই এবং স্থিতিস্থাপক পুনরুদ্ধার নিশ্চিত করা।’ তিনি সেন্দাই ফ্রেমওয়ার্কের নিরীক্ষণ ও বাস্তবায়নের দৃঢ়তার জন্য স্থিতিস্থাপকতার জন্য আরও আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা এবং জ্ঞান ভাগাভাগি প্রয়োজন বলেও মনে করেন।

চার দিনব্যাপী এশিয়া-প্যাসিফিক মন্ত্রী পর্যায়ের দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসের সম্মেলন (এপিএমসিডিআরআর) শেষ হবে আগামী বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর)। সম্মেলনে অষ্ট্রেলিয়ার কৃষি, মৎস্য ও বনবিষয়ক মন্ত্রী সিনেটর দ্য হন মোরে ওয়াট আয়োজক দেশের পক্ষ থেকে সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য উপস্থাপন করে বক্তব্য রাখেন।

দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসের জন্য জাতিসংঘ কার্যালয়ের (ইউএনডিআরআর) প্রধান মামি মিজুতুরিও পৃথক বক্তব্য রাখেন। পরে বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: এনামুর রহমান তাদের সঙ্গে ফটোসেশনে অংশ নেন।

কালের আলো/ডিএস/এমএএম

Print Friendly, PDF & Email