বক্তব্য টুইস্ট করা হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ 8:24 pm | August 13, 2022

কালের আলো প্রতিবেদক:

‘আমরা সুখে আছি, বেহেশতে আছি’- এমন বক্তব্যের পর তীব্র সমালোচনার মুখে এর ব্যাখ্যা দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

তিনি বলেছেন, বেহেশতের কথা আমি বলেছি, কম্পারেটিভ টু আদার কান্ট্রি (অন্য দেশের সঙ্গে তুলনা করে)। আর আপনারা সব জায়গায় লিখেছেন ‘‘বেহেশত বলেছেন’’, মানে টুইস্ট করা হয়েছে। আমাদের মূল্যস্ফীতি অন্য দেশের তুলনায় কম।

তিনি বলেন, ‘বলেছি, অন্য দেশের তুলনায় আমরা অনেক ভালো আছি এবং তাদের তুলনায় আমরা বেহেশতে আছি, এই কথা বলেছিলাম। কিন্তু আপনারা (সাংবাদিকরা) এক্কেবারে উল্টা!’

শনিবার (১৩ আগস্ট) দুপুরে সিলেট জেলা পরিষদ আয়োজিত শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ শ্রীলংকা হয়ে যাবে- একটি পক্ষ এমন প্যানিক ছড়িয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে। আমরা বৈশ্বিক মন্দার কারণে কিছুটা সংকটে আছি ঠিক, কিন্তু আমাদের যথেষ্ট রিজার্ভ আছে। আগাম সতর্কতা হিসেবে আমরা কিছুটা সাশ্রয়ী হওয়ার চেষ্টা করছি।’

ড. মোমেন বলেন, ‘মুদ্রাস্ফীতি ইংল্যান্ডে ১২ ভাগ, তুরস্কে ৬৭ ভাগ, পাকিস্তানে ৩৭ ভাগ, শ্রীলংকায় ১৫০ ভাগ, আর আমাদের মুদ্রাস্ফীতি মাত্র ৭ ভাগ। সেই দিক দিয়ে আমরা ভালো আছি, বেহেশতে আছি।আপনারা কিন্তু এই কথাগুলো বলেননি। এসব তুলনা করলে আমরা অনেক ভালো আছি। বিষয়টি না বুঝে টুইস্ট করা ঠিক হয়নি।

ড. একে আবুল মোমেন বলেছেন, ‘চলতি মাসের শেষের দিকে যৌথ নদী কমিশনের (জেআরসি) বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেই বৈঠকে ৬টি নদীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।’

তিনি বলেন, ‘দেশের সবকটি নৌপথ আগের মতো সচল করতে চাই; সেই বিষয়টি নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হবে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘সিলেটের আকস্মিক বন্যার সৃষ্টি হয় উজানের পাহাড়ি ঢলে। তাই, সেখানকার বন্যার পূর্বাভাস বাংলাদেশকে আগাম জানানো ও ড্যামগুলো উন্মুক্ত করার আগে বাংলাদেশকে অবহিত করার কথাও ভারতকে প্রস্তাব করা হয়েছে। এসব বিষয়ে ভারত নীতিগতভাবে সম্মত হয়েছে।’

ভারত সরকারের আমন্ত্রণে আগামী মাসের ৪-৫ তারিখ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সফরে যাবেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সফরের আলোচ্যসূচি এখনও চূড়ান্ত হয়নি। তবে, সেই সফরে ভারতের সাথে বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নের বিষয়গুলো প্রধান্য পাবে। সেখানে বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনায় আসবে।’

কালের আলো/বিএস/এমএন

Print Friendly, PDF & Email